জানুয়ারি ২২, ২০১৭

নিউ ইয়র্কে ইমাম হত্যার ঘটনায় হেফাজতের উদ্বেগ প্রকাশ

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশগত ১৩ আগস্ট শনবিার স্থানীয় সময় বেলা ২টায় সন্ত্রাসীরা নিউইয়র্কের একটি জামে মসজিদের বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত ইমাম আলাউদ্দিন আকুঞ্জি (৫৫) ও তার সহকারী তারা মিয়া (৬৫)কে পেছন থেকে আকস্মিক গুলি করে নৃশংস হত্যার ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলামের আমীর শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী ও মহাসচিব আল্লামা হাফেজ মুহাম্মদ জুনায়েদ বাবুনগরী।

হেফাজত আমীরের প্রেসসচিব মাওলানা মুনির আহমদ স্বাক্ষরিত ১৭ আগস্ট, বুধবার বিকেলে সংবাদপত্রে দেওয়া এক যৌথ বিবৃতিতে নিউ ইয়র্কে ইমাম হত্যার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে উভয় নেতৃবৃন্দ বলেছেন, গত এক বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান দলীয় বিতর্কিত প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের ইসলাম ও মুসলমান বিদ্বেষী ধারাবাহিক বক্তব্যের কারণে যুক্তরাষ্ট্রে মুসলিম নাগরিকদের প্রতি সাম্প্রদায়িক হামলা ও বিদ্বেষের ঘটনা আশংকাজনক হারে বেড়ে গেছে।

যুক্তরাষ্ট্র প্রশাসন এই হত্যার ঘটনাকে সাধারণ অপরাধের দৃষ্টিতে বিবেচনা করলে হবে না। বরং এই হত্যার পেছনের কারণ তদন্ত করে উদ্ঘাটন করতে হবে। কারণ, ইমাম আলাউদ্দিন আকুঞ্জি ও তার সহকারী তারা মিয়া ছিলেন অত্যন্ত সরল ও নিরীহ প্রকৃতির। উভয়ের পরিবার বলেছে, তাদের কোন শত্রু ছিল না।

নিউ ইয়র্কের মুসলমানরাও মনে করেন, ইমাম ও তার সহকারী মুসলিম বিদ্বেষী প্রচারণায় সৃষ্ট ধর্মীয় বিদ্বেষের শিকার। হেফাজত নেতৃদ্বয় ইমাম হত্যায় জড়িত খুনিকে দ্রুত গ্রেফতারের ঘটনায় নিউ ইয়র্ক প্রশাসনের তড়িৎ পদক্ষেপে সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, শুধু হত্যাকারী নয়, মুসলিমদের প্রতি ঘৃণা ও ধর্মীয় বিদ্বেষ ছড়িয়ে দিতে যারা উস্কানী দিয়ে একের পর এক বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছে তাদেরকেও বিচারের আওতায় আনতে হবে।

যৌথ বিবৃতিতে আল্লামা শাহ আহমদ শফী ও আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী আরো বলেন, যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বকে নেতৃত্ব দেওয়ার দাবী করে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মানবাধিকার ও গণতান্ত্রিক অধিকার নিয়ে তারা কথা বলে। বাংলাদেশের বিষয়েও তারা প্রায়ই সংখ্যালঘুদের অধিকার, সাম্প্রদায়িক পরিস্থিতি ও কথিত আইএস ইস্যু তুলে উদ্বেগ প্রকাশ করে এবং জঙ্গিবাদ দমনসহ এসব বিষয়ে নানা উপদেশ ও সহযোগিতা দানের আগ্রহ প্রকাশ করে। কিন্তু নিজেদের দেশে ধর্মীয় বিদ্বেষ ও সাম্প্রদায়িকতার চর্চা করে, মুসলমানদের প্রতি ঘৃণা ও ধর্মীয় বিদ্বেষকে নানাভাবে উস্কে দিয়ে কীভাবে মানবাধিকার ও গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠার বিষয়ে তারা বিশ্বকে সবক দিবে?

হেফাজত নেতৃদ্বয় বলেন, রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিভিন্ন উক্তি শুধু যুক্তরাষ্ট্রে নয়, বিশ্বব্যাপী মুসলিম বিদ্বেষকে আরো উস্কে দিচ্ছে। ডোনাল্ড ট্রাম্প বিশ্বশান্তির জন্যে মারাত্মক হুমকি হিসেবেই আবির্ভুত হতে চাচ্ছেন। তবে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও যুক্তরাষ্ট্রের মুসলমানদের প্রতি সহনশীলতার বিষয়ে বর্তমান প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার অবস্থানকে ইতিবাচক ও প্রশংসনীয় বলেও নেতৃদ্বয় উল্লেখ করেন।