বড় কষ্টে আছে কোটি আইজউদ্দিন

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

মোয়াজ্জেম-হোসেন-আলালবর্তমান শাসকগোষ্ঠীকে উদ্দেশ্য করে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেছেন, স্বৈরাচারী এরশাদের জামানায় ঢাকা মহানগরীর দেয়ালে দেয়ালে অজ্ঞাত কারো যন্ত্রণার সেই স্পর্শকাতর লেখাটি বড় বেশী বেশী আজকাল মনে পড়ে-“বড় কষ্টে আছি-আইজউদ্দিন”। বারবার দু:সহ যন্ত্রণায় শোষিত মানুষরা যেন কোটি কন্ঠে এখন সমস্বরে বর্তমান শাসকগোষ্ঠীকে বলছে-“বড় কষ্টে আছে কোটি আইজউদ্দিন”।

বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে এগারটার দিকে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর প্রতিবেদন অনুযায়ী চলতি অর্থবছরে তৈরি পোশাক খাতে রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২৭৭ কোটি ১৬ হাজার ডলার। কিন্তু প্রকৃত রপ্তানি আয় হয়েছে ২১১ কোটি ৭৫ হাজার ৮০ ডলার, যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২৩ দশমিক ৬০ শতাংশ কম।

“গুলশান ও শোলাকিয়ায় ঘটনার পরে বিদেশি ক্রেতারা বাংলাদেশে আসার আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন, নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে তারা ক্রমাগত তাদের অর্ডার বাতিল করছেন।”

সরকারের উদ্দেশে আলাল বলেন, “আমরা মনে করি, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ দেখিয়ে আত্মতুষ্টির দিন বোধহয় খুব বেশি আমাদের হাতে নেই। সার্বিক আর্থিক বিশৃঙ্খলা ও অব্যবস্থাপনা একথাটার সত্যতা প্রমাণ করে।”

এ অবস্থা থেকে উত্তরণে পোশাক রপ্তারিকারক এবং সংশ্লিষ্ট খাতগুলোর বিশেষজ্ঞদের নিয়ে ‘কর্মকৌশল’ প্রণয়নের দাবি জানান বিএনপির এই যুগ্ম মহাসচিব।

গত ১১ অগাস্ট দিন শেষে বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ৩০ দশমিক ৪৩ বিলিয়ন ডলার।

এর আগে গত ২৭ জুন বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো রিজার্ভ ৩০ বিলিয়ন ডলারের মাইলফলক অতিক্রম করে। কিন্তু এশিয়ান ক্লিয়ারিং ইউনিয়নের (আকু) আমদানি বিল পরিশোধের পর তা কমে যায়। সম্প্রতি তা আবার ৩০ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে।

প্রতি মাসে সাড়ে ৩ বিলিয়ন ডলারের আমদানি ব্যয় হিসাবে হাতে থাকা এই রিজার্ভ দিয়ে আট মাসের আমদানি ব্যয় মেটাতে পারবে বাংলাদেশ।

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ ব‌্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে ৮১ মিলিয়ন ডলার চুরির প্রসঙ্গ টেনে মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, “কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভ লোপাটের তদন্ত প্রতিবেদন জমা হলেও অজ্ঞাত কারণে সরকার তা জনসমক্ষে প্রকাশ করছে না।

“আবার লোপাট অর্থ ফেরত পাওয়ার ক্ষেত্রেও সহায়তাকারী কোনো পক্ষকে সেটা (তদন্ত প্রতিবেদন) দিচ্ছে না। তাহলে নির্দ্বিধায় বলা যায়, ডাল মে কুচ কালা হ্যায়। অতীতে যেভাবে হয়েছে, সেই লোপাটেরই পুনরাবৃত্তি হচ্ছে বলে আমরা আশঙ্কা করছি।”

গত ফেব্রুয়ারির ওই ঘটনা তদন্তে বাংলাদেশ ব‌্যাংকের সাবেক গভর্নর মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিনের নেতৃত্বে গঠিত কমিটি ৩০ মে যে প্রতিবেদন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের কাছে দেয় তাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তাদের সম্পৃক্ততারও ইঙ্গিত মেলে।

অর্থমন্ত্রী সেদিন বলেছিলেন, প্রতিবেদন পড়ে ১৫ থেকে ২০ দিনের মধ্যে তা প্রকাশ করতে পারবেন বলে তিনি আশা করছেন।

সংবাদ সম্মেলনে এ প্রসঙ্গ তুলে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আলাল বলেন, “ওই তদন্ত প্রতিবেদনে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কয়েকজন কর্মকর্তাকে দায়ী করা হয়েছে বলে আমরা গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে জানতে পেরেছি।

“অর্থমন্ত্রী তখন সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেছিলেন, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কিন্তু কোথায় গেলো সেই আইনি পদক্ষেপ? কেন দায়ী কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না?”

রাজধানীর নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মালয়েশিয়ায় জনশক্তি রপ্তানি এবং সৌদি প্রবাসী বাংলাদেশিদের প্রসঙ্গেও কথা বলেন মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল

“আমরা শুনেছি, ১৫/২০ লাখ জনশক্তি মালয়েশিয়া যাবে। গতকাল প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী বলছেন, মালয়েশিয়ায় জনশক্তি রপ্তারির বিষয়ে বাংলাদেশ এখনও ধোঁয়াশের মধ্যে আছে। সৌদি আরবে বাংলাদেশি প্রায় ২ হাজার শ্রমিক কর্মহীন অবস্থায় না খেয়ে দিন কাটাচ্ছেন। তাহলে প্রকৃত অবস্থাটা কী?

“সব মিলিয়ে আমরা দেখতে পারছি, চোরদের রক্ষা করার জন্য সরকারের যে নিরলস প্রচেষ্টা জাতীয় জীবনের সর্বক্ষেত্রে তা নগ্নভাবে ফুটে উঠেছে। এর আগেও অনেক আর্থিক কেলেঙ্কারির হোতাদের আইনের আওতায় না এনে সরকার বরং তাদের সুরক্ষা দিয়েছে।”

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস জাহান শিরিন,শ্যামা ওবায়েদ, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক এমএ আউয়াল খান, ছাত্রদলের দপ্তর সম্পাদক আবদুস সাত্তার পাটোয়ারী প্রমুখ।