ভ্যালেন্টাইনস ডের নামে অশ্লীলতার বিরুদ্ধে পাকিস্তান, ইন্দোনেশিয়া ও ইরানে কঠোর পদক্ষেপ

ভ্যালেন্টাইনস ডের নামে অশ্লীলতার বিরুদ্ধে পাকিস্তান, ইন্দোনেশিয়া ও ইরানে কঠোর পদক্ষেপ

PAKISTAN-VALENTINE'S-DAYভ্যালেন্টাইনস ডে উদযাপনের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছে পাকিস্তান, ইন্দোনেশিয়া ও ইরান। আজ রোববার ভ্যালেন্টাইনস ডে উদযাপনের নামে অশ্লীলতার দায়ে পাকিস্তানে মোট ২৭ জনকে বিভিন্ন অভিযোগে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

পুলিশের বরাতে পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম দ্য ডন জানায়, আটককৃতরা পেশোয়ার, খাইবার পাখতুনখাওয়া ও ইসলামাবাদ প্রদেশের।

আজ লাহোর, ইসলামাবাদ, পাঞ্জাব, পেশোয়ারসহ বিভিন্ন প্রদেশে ভ্যালেন্টাইনস ডের অপসংস্কৃতি রোধে মিছিলসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে বিভিন্ন সংগঠন।

1455468064-valentine-03এর আগেই পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট মামনুন হুসেইন ভালোবাসা দিবস পালন না করতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন। গতকাল শনিবার রাজধানী ইসলামাবাদে এক অনুষ্ঠানে পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট এই আহ্বান জানিয়ে বলেছিলেন, ‘পাকিস্তানের সংস্কৃতির সঙ্গে ভ্যালেনটাইনস ডের কোনো সম্পর্ক নেই। কাজেই এটিকে পরিহার করতে হবে।’ তিনি আরো বলেন, ‘এটি পাশ্চাত্যের সংস্কৃতি, মুসলিম সংস্কৃতির সঙ্গেও এর সম্পর্ক নেই।’

এর আগে পাকিস্তানের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের পেশোয়ার রাজ্যের কোয়াট জেলায় ‘ভ্যালেন্টাইনস ডে’ উদযাপন নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। ওই জেলার পুলিশ জানিয়েছিল, দোকানে যাতে ‘ভ্যালেন্টাইনস ডে’-এর কার্ড এবং কোনো রোমান্টিক জিনিসপত্র বিক্রি করা না হয়, তা নিশ্চিত করতে নির্দেশ দিয়েছে ওই জেলার ক্ষমতাসীন দল।

valentines_day_2012_20এ ছাড়া চলতি সপ্তাহে খাইবার পাখতুনখাওয়া প্রদেশের কোহা এলাকায় স্থানীয় সরকার ভালোবাসা দিবসের কার্ড ও বিভিন্ন আইটেম বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করে। পেশোয়ারের স্থানীয় কাউন্সিল দিনটিকে ‘ইউজলেস’ ডে বলে তা উদযাপনে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

বিবিসি জানায়, ২০১৩ সালে মানবাধিকারকর্মী সাবিন মাহমুদ ভ্যালেন্টাইনস ডে উদযাপনের জন্য একটি প্রচারণা শুরু করেছিলেন। কিন্তু হুমকির মধ্যে পালিয়ে যেতে বাধ্য হন তিনি। পরে ২০১৫ সালে গুলি করে হত্যা করা হয় এই নারী মানবাধিকারকর্মীকে।

1455467976-valentine-04ইন্দোনেশিয়ার চারটি প্রদেশে ভ্যালেন্টাইনস ডে পালন উপলক্ষে কড়া নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছিল। দেশেটির আচেহ প্রদেশের রাজধানী বান্দা আচেহতে অন্তত ৫০০ স্কুলের শিক্ষার্থীরা ভ্যালেন্টাইনস ডের বিরুদ্ধে র‍্যালি করেছে বলে জানায় বিবিসি। র‍্যালিতে শিক্ষার্থীরা ‘ইসলাম অশ্লীলতা সমর্থন করে না’, ‘ভ্যালেন্টাইনস ডে ইসলামে হারাম’ শীর্ষক প্ল্যাকার্ড বহন করে।

এ ছাড়া বান্দা আচেহর মেয়র লিইজা সাদউদদিন দাজামাল, রাকচন প্রদেশের গভর্নর হিশাম কামালি তরুণদের ভ্যালেন্টাইনস ডের কুফল জানাতে এক মহাসমাবেশ আয়োজন করেছিলেন।

এদিকে ইরানেও ভ্যালেন্টাইনস ডে উপলক্ষে সতর্ক অবস্থায় ছিল পুলিশ। এর আগে গত ১১ ফেব্রুয়ারি এক বিজ্ঞপ্তিতে পুলিশ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল, কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান ভ্যালেন্টাইনস ডে উদযাপনের ব্যবস্থা করলে সেটা অপরাধ বলে গণ্য হবে। এ ছাড়া ‘ভ্যালেন্টাইনস ডে’ উদযাপনের মাধ্যমে ‘পশ্চিমা অপসংস্কৃতি ’ ছড়ানোর বিরুদ্ধে তেহরানের কফি ও আইসক্রিমের দোকানদারদের উদ্দেশে গত শুক্রবার মাইকিং করেছিল পুলিশ।

আর পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি ছেপে সরকার জনগণ ও অভিভাবকদের বলেছিল, ভ্যালেন্টাইনস ডের দিন যেন ছেলেমেয়েরা কার্ড বা গিফট আদান প্রদান না করে।