নির্বাচন পর্যবেক্ষক সংস্থা ‘অধিকার’এর নিবন্ধন বাতিল করল ইসি

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নিজস্ব প্রতিনিধি


নির্বাচন পর্যবেক্ষক সংস্থা হিসেবে নির্বাচন কমিশনে (ইসি) নিবন্ধিত পর্যবেক্ষক সংস্থা অধিকার-এর নিবন্ধন বাতিল করেছে ইসি। আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার দুই দিন আগে গত মঙ্গলবার সংস্থাটির নিবন্ধন বাতিল করা হয়।

গত ৬ নভেম্বর মঙ্গলবার বাতিলের বিষয়টি জানিয়ে ইসি  সংস্থাটির সভাপতি সি আর আবরার বরাবর চিঠি দেয়।

নিবন্ধন বাতিলের কারণ হিসেবে ইসি অধিকার-এর কোন এনজিও ব্যুরোর নিবন্ধন না থাকা, রাষ্ট্র ও শৃঙ্খলাবিরোধী কাজে জড়িত থাকা ও কাগজপত্রে অনেক ঘাটতি থাকার অভিযোগের কথা জানিয়েছে ইসি।

ইসির যুগ্ম সচিব (জনসংযোগ) এস এম আসাদুজ্জামান স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, নির্বাচন কমিশনে স্থানীয় পর্যবেক্ষক সংস্থা হিসেবে নিবন্ধন পাওয়ার পূর্বশর্ত হলো সংস্থাটিকে সংবিধিবদ্ধ কোনও প্রতিষ্ঠান অথবা এনজিও ব্যুরোতে নিবন্ধিত হতে হবে। অধিকার (নিবন্ধন নং-১৪)-এর এনজিও বিষয়ক বিষয়ক ব্যুরোতে নিবন্ধনের মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ায় এবং নির্বাচন পর্যবেক্ষণ নীতিমালা-২০১৭ এর ৬-এর-২ উপধারা অনুযায়ী নির্বাচন কমিশন নিবন্ধিত স্থানীয় পর্যবেক্ষক সংস্থা হিসেবে প্রতিষ্ঠানটির নিবন্ধন বাতিল করা হলো।

চলতি বছরের জুন মাসে শর্ত পূরণ ও কাগজপত্র সরবরাহ করে ইসি থেকে অধিকার পর্যবেক্ষকের নিবন্ধন নবায়ন করলেও নীতিমালা অনুযায়ী নিবন্ধন বাতিলের আগে ইসি থেকে অভিযোগের বিষয়ে নোটিশ দেয়ার কথা।এবং নোটিশ পাওয়ার ৫ দিনের মধ্যে সংস্থাটি শুনানির জন্য আবেদন করতে পারবে। শুনানির পর অভিযোগের বিষয়ে গৃহীত সিদ্ধান্ত ৭ দিনের মধ্যে ইসি ওই সংস্থাটিকে অবহিত করবে। কিন্তু ইসি কোনও ধরনের শুনানির সুযোগ দেয়নি বলে অভিযোগ করেছে সংস্থার কর্মকর্তারা।

অধিকার-এর এক কর্মকর্তা জানান, সম্প্রতি সিটি নির্বাচনের প্রকৃত অনিয়মের চিত্র তুলে ধরেছিল অধিকার। এতে নির্বাচন কমিশন সংস্থাটির ওপর অসন্তুষ্ট হয়েছে। যে কারণে বিনা নোটিশে তাদের নিবন্ধন বাতিল করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে গত জুন মাসে নিবন্ধিত ১১৯টি পর্যবেক্ষক সংস্থাকে নিবন্ধন দেয় ইসি। তালিকায় অধিকার-এর নিবন্ধন নম্বর ১৪। ২০২৩ সালের মে মাস পর্যন্ত সংস্থাটির নিবন্ধনের মেয়াদ ছিল।



Notice: Undefined index: email in /home/insaf24cp/public_html/wp-content/plugins/simple-social-share/simple-social-share.php on line 74