ড. আফিয়া সিদ্দিকীকে ফেরত আনার জন্য যা যা করার দরকার সব করা হবে : পাকিস্তান

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | মারজান হুসাইন চৌধুরী


পররাষ্ট্র দপ্তরে সংবাদ সম্মেলন করছেন পাকিস্তানের-পররাষ্ট্রমন্ত্রী-শাহ-মেহমুদ-কোরেশি।

পাকিস্তানি স্নায়ু বিজ্ঞানী ড. আফিয়া সিদ্দিকীকে ফেরত আনার জন্য যা যা করার দরকার সব করা হবে বলে জানিয়েছেন পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কোরেশি।

শনিবার (১০ নভেম্বর) তিনি বলেছেন, “সরকার কূটনৈতিক পর্যায়ে সকল প্রচেষ্টা চালাবে ড. আফিয়া সিদ্দিকীকে ফেরত আনার জন্য।”

সেইসাথে, রেমন্ড ডেভিস ও শাকিল আফ্রিদির মুক্তির বিনিময়ে আফিয়া সিদ্দিকীর মুক্তির যে প্রস্তাব দিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র তা সরাসরি নাকচ করে দেন পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

প্রসঙ্গত, ২০১১ সালে যুক্তরাষ্ট্রের হয়ে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে শাকিল আফ্রিদি ও লাহোরে দুইজনকে গুলি করে হত্যার দায়ে সিআইএর এজেন্ট রেমন্ড ডেভিসকে আটক করে পাকিস্তান সরকার।

এরআগে ড. আফিয়া সিদ্দিকীর মানবাধিকার রক্ষার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি আহ্বান জানায় পাকিস্তান সরকার। গত বুধবার পাকিস্তানের পররাষ্ট্র দপ্তর বিষয়টি নিশ্চিত করে।

প্রসঙ্গত, পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত নিওরো সাইন্টিস্ট ড. আফিয়া সিদ্দিকী যুক্তরাষ্ট্রের কারাগারে বন্দি আছেন। তিন সন্তানের জননী, ৪৬ বছর বয়সী এই বিজ্ঞানীকে আফগানিস্তান থেকে গ্রেফতার করে যুক্তরাষ্ট্রে নিয়ে যাওয়া হয়। তাঁর বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের অভিযোগ, আফগানিস্তানে তিনি মার্কিন সেনাদের ওপর হামলার চেষ্টা করেছিলেন।

বিচারকার্য শেষে যুক্তরাষ্ট্রের একটি আদালত আফিয়া সিদ্দিকীকে ২০১০ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর ৮৬ বছরের কারাদন্ড দেয়।

গত ৯ অক্টোবর পাকিস্তানি কনসাল জেনারেল হিউস্টন কারাগারে দেখা করতে গেলে ড. আফিয়া সিদ্দিকী তার মাধ্যমে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের কাছে একটি চিঠি পাঠান।

জানাগেছে, সেই চিঠিতে তিনি তার মুক্তির জন্য প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের কাছে সহযোগিতা চেয়েছেন।

তিনি বলেন, “ইমরান খান অতীতে আমাকে অনেক সাহায্য করেছেন। তিনি যেন আমার মুক্তির জন্য চেষ্টা করেন। আমি বন্দিত্ব থেকে মুক্তি চাই। আমেরিকা আমাকে বেআইনিভাবে শাস্তি দিচ্ছে। আমাকে অপহরণ করে আমেরিকায় নিয়ে আসা হয়েছে।”