পাকিস্তানিদের কাছ থেকে স্বাধীনতা এনে দিল্লিকে দিতে যুদ্ধ করিনি : শাহ মোয়াজ্জেম

শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনস্বাধীনতার বারোটা বাজিয়ে দেওয়া হয়েছে মন্তব্য করে বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেছেন ‘অত্যাচার-নির্যাতন, গুম-খুন করে ক্ষমতায় থাকা যাবে না। দেশে এখন চুরি-ডাকাতি, খুন-খারাবি ছাড়া কিছু হচ্ছে না। সভা সেমিনার করা যায় না। মানুষ নির্বিঘ্নে কথা বলতে পারে না। এই জন্য কি যুদ্ধ করেছি?’ ‘বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা প্রত্যাহার’ দাবিতে রাজধানীর নয়াপল্টনের ভাসানী ভবনে শনিবার দুপুরে এক প্রতিবাদ সভায় এ কথা বলেন তিনি। জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতির সংস্থা-জাসাস ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখা এর আয়োজন করে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ্য করে শাহ মোয়াজ্জেম বলেন, ‘একাত্তরে খালেদা জিয়া পাকিস্তানিদের হাতে বন্দি ছিলেন। আপনি কোথায় ছিলেন? আর এখন তার নামে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা দিচ্ছেন। রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা কীভাবে হয়? আপনি যা শুরু করেছেন তা ভালো করছেন না। পাকিস্তানিদের কাছ থেকে স্বাধীনতা এনে দিল্লির কাছে দেওয়ার জন্য একাত্তরে জীবন বাজি রেখে যুদ্ধ করিনি।’ খালেদা জিয়ার বাড়ির দেওয়ালে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলার সমন টানিয়ে দেওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘তাকে নিয়ে ফাজলামি, হাস্যরস করার জন্য দেওয়ালে সমন টানিয়ে দিলেন। কিছু বেয়াদবকে পাঠালেন, তারা গিয়ে এই কাজটি করলো। এক মাঘে শীত যায় না। আপনি কতদিন ক্ষমতায় থাকবেন? মেঘে মেঘে বেলা তো কম হলো না।’ পারস্পরিক দোষারোপের রাজনীতি পরিহার করে ‘স্বাধীনতা রক্ষায় দলের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থেকে সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধির আহ্বান জানান তিনি। তিনি সরকারকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, বিএনপি নেত্রী কি বক্তব্য দিলেন যে তিনি অপরাধী হয়ে গেলেন? আমরা সবাই তার কথায় সমর্থন জানালাম। পারলে এখন সবাইকে গ্রেফতার করুন।’ আয়োজক সংগঠনের সভাপতি জাহাঙ্গীর শিকদারের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিএনপির যুব বিষয়ক সম্পাদক সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ, সহতথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব, জাসাসের সভাপতি এম এ মালেক প্রমুখ।