তুরস্কের প্রধান বিরোধীদলীয় নেতার গাড়িবহরে সন্ত্রাসী হামলা

151263_1

তুরস্কের প্রধান বিরোধী দলীয় নেতা কামাল কিলিকদারোগলুর উপর সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়েছে। এ ঘটনায় বিরোধী দলীয় নেতা কামাল প্রাণে রক্ষা পেলেও তার সঙ্গে থাকা তিনজন নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য আহত হয়েছেন। এর মধ্যে দুইজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

ওয়ার্ল্ড বুলেটিনের খবরে বলা হয়, বৃহস্পিতবার দুপুরে তুরস্কের প্রধান বিরোধী দল-রিপাবলিকান পিপলস্ পার্টির (সিএইচপি) নেতা কামাল কিলিকদারোগলু নিরাপত্তা বাহিনীর বেস্টনীতে দেশটির উত্তরাঞ্চলীয় জেলা সাভসেট থেকে ব্লাক সাগরীয় প্রদেশের আরদানাক এলাকায় যাওয়ার সময় তার গাড়িবহরকে লক্ষ্য করে সন্ত্রাসী গুলিবর্ষণ করে।

হামলার পরপরই কামাল কিলিকদারোগলুসহ তার সহকর্মীদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার তার বন্ধু ও শুভাকাঙ্খীদের উদ্দেশ্যে কামাল কিলিকদারোগলু এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ‘আমি ভাল আছি, তোমরা আমাদের জন্য চিন্তিত হবে না। সংঘাত এলাকা থেকে আমাদের বন্ধুদের খুজেঁ পেয়েছি। সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে আমাদের দৃঢ় অবস্থান অব্যাহত থাকবে।’

আর্টভিন গভর্ণরের পক্ষ থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এই হামলার ঘটনায় তিনজন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে দুইজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাদেরকে আর্টভিনের স্টেট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঘটনার পরপরই আঙ্কারায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলা এ হামলার জন্য পিকেকে দায়ি করে সাংবাদিকদের জানান, ওই এলাকায় নিরাপত্তা বাহিনী কুর্দি বিদ্রোহী পিকেকে’র বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করেছে।

এদিকে কামাল কিলিকদারোগলুর ওপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান, প্রধানমন্ত্রী বিনালি ইলদিরিম, তুর্কি পার্লামেন্টের স্পিকার ইসমাঈল কাহরামান ও বিচার মন্ত্রী বাকির বুজদাজ। তারা পৃথকভাবে ফোন করে কামাল কিলিদারোগলুর সঙ্গে কথাও বলেছেন।

এছাড়া তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারায় এক অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাবুসওগলু এ সন্ত্রাসী হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেছেন, যারা এ ধরনের হামলা চালাচ্ছে তারা অভিশপ্ত। তিনি আরো বলেন, অভ্যুত্থানের ষড়যন্ত্রকারী আর সন্ত্রাসী হামলাকারীদের একই উদ্দেশ্য, তারা তুরস্কের জাতীয় ঐক্য ও সংহতি বিনষ্ট করতে চায়।

তিনি আরো বলেন, ‘যেভাবেই এ ঘটনা ঘটুক না কেন, আমরা দৃঢ়ভাবে এর নিন্দা জানাচ্ছি। এবং বিরোধী দলীয় নেতার ওপর এই হামলা মূলত: আমাদের ওপর হামলা। যারাই এ ঘটনা ঘটিয়ে থাক না কেন, তারা অভিশপ্ত, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কোনো অবস্থাতেই তাদের ছাড় দেওয়া হবে না।

সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক দলগুলোর অবস্থানের কোনো পরিবর্তন হবে না বলেও উল্লেখ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

তুরস্কের ইউরোপীয় ইউনিয়ন বিষয়ক মন্ত্রী ওমার সিলিক অফিসিয়াল এক টুইট বার্তায় এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, ‘আমরা বিরোধী দলীয় নেতা কামাল কিলিকদারোগলুর গাড়িবহরে হামলার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। এতে কোনো সন্দেহ নেই যে, এই হামলা আমাদের প্রত্যেকের ওপর আঘাত।’ তিনি আহতদের দ্রুত সুস্থতা কামনা করেন।