সিলেটের উন্নয়ন অভিযাত্রায় চীনের সহযোগিতার হাত প্রসারিত থাকবে : চীনা রাষ্ট্রদূত

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নিজস্ব প্রতিনিধি



বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত এইচ ই মি. ঝেং জুঁও বলেছেন, “সিলেটের চলমান উন্নয়ন অভিযাত্রায় চায়না সরকারের সহযোগিতার হাত প্রসারিত থাকবে।”

বৃহস্পতিবার দুপুরে সিলেট নগরীর একটি অভিজাত হোটেলের হল রুমে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী আমন্ত্রণে আয়োজিত অভ্যর্থনা সভায় চীনের রাষ্ট্রদূত এইচ ই মি. ঝেং জুঁও এসব কথা বলেন।

এর আগে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী চীনা হাই কমিশনার এইচ ই মি. ঝেং জুঁওকে নিয়ে নগরীর সুরমা নদীর পাড়, ধোপাদিঘীরপাড়, লালদিঘীরপাড় এলাকা পরিদর্শন করেন।

সৌজন্য সাক্ষাতে চীনা রাষ্ট্রদূত বলেন, “দক্ষিণ এশিয়ায় দ্রুত ও টেকসই আর্থ-সামাজিক অগ্রগতির ক্ষেত্রে বাংলাদেশ নতুন উদাহরণ সৃষ্টি করেছে।”

এই প্রথম তাঁর সিলেট সফর উল্লেখ করে তিনি বলেন, “সিলেট সকল ধর্মের মানুষের বসবাস থাকলেও এখানে সম্প্রীতির বন্ধন রয়েছে। এটা দেখে আমি অভিভূত।”

চীন এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশকে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে বলেঅ জানান তিনি।

দেশটির রাষ্ট্রদূত আরও বলেন, “বাংলাদেশে চায়নার বাণিজ্যিক সম্পর্ক খুবই শক্তিশালী। সিলেট অঞ্চলে প্রযুক্তি, কৃষি ও শিক্ষা খাতে তার সরকার বিনিয়োগ করতে চায়। এটি করতে পারলে বাংলাদেশ তথা সিলেটের সাথে বাণিজ্য সম্পর্ক আরো জোরদার হবে। এতে করে দুই দেশই দারুণভাবে লাভবান হবে।”

এদিকে, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী চীনের রাষ্ট্রদূতকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, “সিলেট অসাম্প্রদায়িক একটি অঞ্চল। এখানে সকল ধর্মের মানুষের সামাজিক নিরাপত্তা ও সম্প্রীতির বন্ধন সুদৃঢ়।”

সিলেটে তথ্যপ্রযুক্তি সহ বিভিন্ন খাতে চীনা সরকারের অর্থায়নের আহবান জানিয়ে ভবিষ্যৎ সম্ভাবনা ও বিশ্ব বাণিজ্যে সিলেট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, “চীন বাংলাদেশের উন্নয়নের একটি সহযোগী রাষ্ট্র। বাংলাদেশের বিভিন্ন খাতে চীনের রয়েছে ব্যাপক বিনিয়োগ। এসব বিনিয়োগের পাশাপাশি সিলেটে বিনিয়োগ বৃদ্ধি করতে পারলে বাংলাদেশ এবং চীন উভয় দেশই লাভবান হবে।”

তিনি আরও বলেন, “সিলেট প্রবাসী অধ্যুষিত একটি পর্যটন ও বাণিজ্যিক এলাকা। এ সিলেট দেশের অর্থনীতির হৃদপিণ্ড। আমরা নগরীকে বিশ্বমানের নগরীতে রূপান্তর করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। সে লক্ষে ইতোমধ্যে নগরীতে ব্যাপক উন্নয়ন কাজ চলছে।”

আগামী দিনে দ্বিপাক্ষিক ব্যবসা-বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক অংশীদারিত্ব নতুন উচ্চতায় পৌঁছবে বলেও আশা প্রকাশ করেন মেয়র আরিফ।


ইনসাফ শো | পর্ব : ৫৬ | বিষয় : দাওয়াতে তাবলীগের চলমান সমস্যা

ইনসাফ সম্পাদক সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকারের (Mahfuj Khandakar) সঞ্চালনায় চলছে ইনসাফ শো।বিষয় : দাওয়াতে তাবলীগের চলমান সমস্যা ও আজকের সংবাদ সম্মেলন।অতিথি : মাওলানা মাওলানা বাহাউদ্দীন জাকারিয়া, মাওলানা জহির ইবনে মুসলিম, মাওলানা ফজলুল করীম কাসেমী ও মাওলানা লোকমান মাজহারী।পর্ব : ৫৬

Posted by insaf24.com on Sunday, December 2, 2018