পার্থর ফেসবুক আইডি হ্যাক করে ড. কামালকে নিয়ে কটূক্তি

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নিজস্ব প্রতিনিধি


২০ দলীয় জোট নেতা ও বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির (বিজেপি) চেয়ারম্যান আন্দালিব রহমান পার্থর ফেসবুক একাউন্ট হ্যাকড হয়েছে। ৩০ হাজারের বেশি ফলোয়ার থাকা একাউন্টি আজ বিকেলের দিকে হ্যাকড হয়েছে বলে জানা গেছে।

হ্যাকড হওয়া ফেসবুক একাউন্ট থেকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেনকে নিয়ে কটূক্তি করা হয়েছে।

শুক্রবার সন্ধ্যায় আন্দালিব রহমান পার্থ সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, তার হ্যাকড একাউন্ট থেকে হ্যাকাররা ড. কামাল হোসেনকে নিয়ে বাজে মন্তব্য করেছে। বিষয়টি নিয়ে বিভ্রান্তিকর পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। তিনি হ্যাকড হওয়া একাউন্ট থেকে প্রচারিত বার্তায় বিভ্রান্ত না হতে সকলের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

এর আগে ৩০ হাজারের বেশি ফলোয়ার থাকা একাউন্টি ১২ ডিসেম্বর রাতে হ্যাক হয়। তবে পার্থর ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজটি সচল রয়েছে।

ঢাকা-১৭ (গুলশান, বনানী, ঢাকা সেনানিবাস ও ভাষানটেকের কিছু অংশ) নিয়ে গঠিত। এই আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও ২০-দলীয় জোটের প্রার্থী হিসেবে ধানের শীষ নিয়ে ভোট করছেন বিজেপির সভাপতি আন্দালিব রহমান পার্থ।


প্রধানমন্ত্রী হবেন কিনা? জবাবে ভারতীয় মিডিয়াকে যা বললেন ড. কামাল
ডিসেম্বর ২৮, ২০১৮
ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নিজস্ব প্রতিনিধি


জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ক্ষমতায় গেলে সরকারের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পদ প্রধানমন্ত্রী কে হবেন তা এখনো জানা যায়নি। কারণ ঐক্যফ্রন্টের নেতৃত্ব দেয়া দল বিএনপির প্রধান দুইজন অর্থাৎ; চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান এবারের নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারেননি। এছাড়াও আইনি নানা জটিলতায় আটকে আছেন তারা।

এমতাবস্থায় অনেকেই ধারণা করেছিল ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন ভোটে অংশ নেবেন এবং ফ্রন্ট ক্ষমতায় গেলে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেবেন। কিন্তু ড. কামাল হোসেনও ভোটে না নির্বাচন করেননি।

ফলে সরকারি দলসহ ভোটারদের মনে একটিই প্রশ্ন-যদি বিএনপি জোট একাদশ নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়, তবে কে হবেন প্রধানমন্ত্রী?

গত বুধবার ভারতের জাতীয় দৈনিক ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে এক সাক্ষাৎকার দেন ড. কামাল হোসেন। সেই সাক্ষাৎকারেও বিষয়টি উঠে আসে।

ক্ষমতায় গেলে প্রধানমন্ত্রী হবেন কিনা? ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের এমন প্রশ্নের জবাবে ড. কামাল বলেন, আমি-হ্যাঁ বা না বলব না। কিন্তু গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় কোনো পদ ও বেতন ছাড়াই কাজ করতে আগ্রহী।

নির্বাচনের বিষয়ে কামাল হোসেন বলেন, আমি ভোটের দিনের অপেক্ষায় আছি। ভোটের দিন একটি স্বাধীনতার দিন। যদি অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়, তা হলে তা হবে দ্বিতীয় স্বাধীনতা দিন। এখন গণতন্ত্র বিপদগ্রস্ত। যদি অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়, তা হলে স্বাধীনতা অর্থপূর্ণ হবে।

ভারতের সঙ্গে বিএনপির সম্পর্কের বিষয়ে ড. কামাল বলেন, ভারতকে বিএনপি বলেছে-তারা ভুল ছিল। খালেদা জিয়া যখন ভারত গেলেন, তখন তিনি তাদের এটি বলেছেন। এটি তাদের ভুল উপলব্ধির প্রক্রিয়ার অংশ, খালেদা জিয়া নিজেদের অবস্থান সংশোধন শুরু করেছেন।