তিন ছাত্রসহ চারজনকে তুলে নেওয়ার অভিযোগ, প্রধানমন্ত্রীর সাহায্য কামনা | insaf24.com

তিন ছাত্রসহ চারজনকে তুলে নেওয়ার অভিযোগ, প্রধানমন্ত্রীর সাহায্য কামনা

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | আন্তর্জাতিক ডেস্ক


রাজধানীর ফার্মগেটে বাস থেকে নামিয়ে তিন ছাত্রসহ চারজনকে সাদা পোশাকধারী পুলিশ নিয়ে গেছে বলে অভিযোগ করেছেন তাঁদের পরিবারের সদস্যরা। তাঁদের ফিরে পেতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহায্য চেয়েছেন তাঁরা।

আজ মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ক্রাইম রিপোর্টার্স ইউনিটিতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব বলেন ওই চারজনের পরিবারের সদস্যরা।

নিখোঁজ চারজন হলেন—এশিয়ান ইউনিভার্সিটির বাংলা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র আবু খালেদ মোহাম্মদ জাবেদ ( ২৫), স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটির ইংরেজি বিভাগের ছাত্র বোরহান উদ্দীন (২৬), মানারাত ইউনিভার্সিটির ফার্মেসির শেষ বর্ষের ছাত্র রেজাউল খালেক (২৪) ও ঢাকা ইউনানী আয়ুর্বেদিক মেডিকেল কলেজের সাবেক ছাত্র সৈয়দ মমিনুল হাসান (২৭)।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, গত ২৯ ডিসেম্বর শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটে কেনাকাটা শেষে বাড়ি ফেরার পথে ফার্মগেটে বাস থামিয়ে তাঁদের আটক করে সাদা পোশাকধারী পুলিশ। বাসে থাকা ওই চারজনের বন্ধুর মাধ্যমে তাঁরা বিষয়টি জানতে পারেন।

ওই চারজনের পরিবারের সদস্যরা বলেন, ‘আমরা তেজগাঁও থানা এবং পার্শ্ববর্তী সব থানাসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন সংস্থার কাছে যোগাযোগ করি। কিন্তু সবাই গ্রেপ্তারের বিষয় অস্বীকার করছে। গ্রেপ্তারের দুই দিন পেরিয়ে গেলেও আইন অনুযায়ী তাদের আদালতে হাজির করা হয়নি, যা আমাদের গভীরভাবে উদ্বিগ্ন করে ফেলেছে। আমরা আমাদের সন্তানদের নিয়ে শঙ্কিত।’

তাঁরা বলেন, ‘আমরা বিশ্বস্ত সূত্রে জানতে পেরেছি, আমাদের সন্তানরা পুলিশ হেফাজতেই আছে। নিরপরাধ মেধাবী ছাত্রদের গ্রেপ্তার করে অস্বীকার করা ও দুদিন পেরিয়ে গেলেও আদালতে না ওঠানোয় আমরা উদ্বিগ্ন। এটা কোনোভাবেই দায়িত্বশীল পুলিশের কাজ হতে পারে না; বরং তা সরাসরি প্রচলিত আইনের লঙ্ঘন। স্বয়ং পুলিশ কর্তৃক গ্রেপ্তারের পর অস্বীকার ও আদালতে না তোলায় আমাদের মনে নানা শঙ্কা দেখা দিয়েছে। দেশের বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় আমরা তাদের জীবন নিয়ে শঙ্কা বোধ করছি। আমাদের জানামতে, আমাদের সন্তানরা কোনো অপরাধের সঙ্গে জড়িত নয়। এর পরও যদি তারা কোনো অপরাধ করে থাকে, তাহলে দেশের আইন মেনে বিচার হওয়ার কথা। কিন্তু পুলিশ তা করছে না। স্বয়ং পুলিশেই যদি বেআইনি ও অমানবিক কাজ করে, তাহলে আমরা যাব কোথায়?’

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ‘আমরা এখন নিরুপায় হয়ে সন্তানদের সন্ধান ও মুক্তির জন্য সাংবাদিক সমাজের দ্বারস্থ হয়েছি। আমরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের কাছে আমাদের সন্তানদের নিরাপত্তা দাবি করছি। আমরা আপনাদের মাধ্যমে জাতীয় মানবাধিকার সংগঠনসহ দেশি-বিদেশি বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠনের কাছে আমাদের সন্তানদের মুক্তির ব্যাপারে সোচ্চার হওয়ার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করছি। আমরা অসহায় বাবা-মা হিসেবে সন্তানদের মুক্তির সহায়তার জন্য সাংবাদিক, প্রশাসন ও সর্বোপরি সংশ্লিষ্টদের কাছে আকুল আবেদন করছি।’

সংবাদ সম্মেলনে নিখোঁজ ছাত্র আবু খালেদ মোহাম্মদ জাবেদের পক্ষে তাঁর বড় ভাই ইয়াছিন করিম, রেজাউল খালেকের পক্ষে তাঁর বাবা আবদুল খালেক, বোরহান উদ্দীনের পক্ষে তাঁর ভাই মনির হোসেন এবং সৈয়দ মমিনুল হাসানের পক্ষে সৈয়দ ইদরাক উপস্থিত ছিলেন।


ইনসাফ সাংবাদিকতা কোর্স

ইনসাফ সাংবাদিকতা কোর্সদেশের প্রথম ইসলামী ঘরানার অনলাইন পত্রিকা ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকমের আয়োজনে শুরু হতে যাচ্ছে স্বল্পমেয়াদী সাংবাদিকতা কোর্স।অংশগ্রহণ করতে যোগাযোগ করুন এই নাম্বারে-০১৭১৯৫৬৪৬১৬এছাড়াও সরাসরি আসতে পারেন ইনসাফ কার্যালয়ে।ঠিকানা – ৬০/এ পুরানা পল্টন ঢাকা ১০০০।

Posted by insaf24.com on Monday, October 29, 2018


‘নির্বাচনে অনিয়ম-সহিংসতার বিষয়ে অবগত জাতিসংঘ’
জানুয়ারি ১, ২০১৮
ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নিজস্ব প্রতিনিধি


বাংলাদেশে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অনিয়ম, সহিংসতা ও প্রাণহানি সম্পর্কে অবগত থাকার কথা জানিয়েছে জাতিসংঘ।

৩১ ডিসেম্বর ‘পিস অ্যান্ড সিকিউরিটি’ শীর্ষক জাতিসংঘের মুখপাত্রের অফিস থেকে দেয়া বিবৃতিতে এ কথা বলা হয়েছে।

সোমবার এক লিখিত প্রতিক্রিয়ায় জাতিসংঘ মহাসচিবের ডেপুটি মুখপাত্র ফারহান হক ­জানান, বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাচন সংঘটিত অনিয়ম আর সহিংসতার ঘটনাগুলো সম্পর্কে অবগত আছে জাতিসংঘ। নির্বাচনী প্রচারণা আর নির্বাচনের দিন সহিংসতায় যেসকল প্রার্থী এবং ভোটার হতাহত হয়েছেন তাদের প্রতি সমবেদনা প্রকাশ করছি।

জনগণের সমাবেশ এবং মতপ্রকাশে কোনো প্রকার বাধা না দেয়ার আহ্বান জানিয়ে আন্থোনিও গুতেরেসে’র এই মুখপাত্র বলেন, ১০ বছর পর নির্বাচনে অংশ নেয়ায় বিরোধীদলগুলোকে স্বাগত জানাচ্ছে জাতিসংঘ। জনগণ যেন নির্বাচনের পরও স্বাধীনভাবে সমাবেশ এবং মতপ্রকাশ করতে পারে সে সুযোগ নিশ্চত করতে এবং সংযত থাকতে সবপক্ষকে আহ্বান জানাই।

নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ আইনিভাবে সমাধানের তাগিদ দিয়ে এই মুখপাত্র বলেন, শান্তিপূর্ণ পন্থায় এবং আইনি প্রক্রিয়া অবলম্বন করে নির্বাচনে ঘটে যাওয়া অনিয়মের বিষয়গুলো সমাধান করতে সকল দলকে আহ্বান জানাচ্ছে জাতিসংঘ। জনসাধারণ ও তাদের সহায় সম্পদের উপর হামলা বা সংহিসতা কোনোভাবে গ্রহণযোগ্য নয়।

গণমাধ্যমের খবরের ওপর ভিত্তি করে জাতিসংঘের বিবৃতিতে বলা হয়, নির্বাচনে ভূমিধস বিজয় পেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এতে তিনি টানা তৃতীয়বার নির্বাচিত হলেন। তবে বিরোধীরা জালিয়াতির ভোট আখ্যা দিয়ে এ ফলকে প্রত্যাখ্যান করেছে।