ঈমান ও নৈতিকতা ছাড়া কোনো সভ্যতা টিকে থাকতে পারেনা: এরদোগান

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম। আরিফ মুসতাহসান


ঈমান ও নৈতিকতা ছাড়া কোনো সভ্যতা টিকতে পারেনা বলে মন্তব্য করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান। তিনি বলেন, ঈমান ও নৈতিকতার অভাব থাকলে সেই সভ্যতা ধীরে ধীরে বিলুপ্ত হতে থাকে। আধুনিক বিশ্বে ঈমান ও নৈতিকতামুক্ত সংস্কৃতির প্রচার করা হয়, আমরা সে ভুলটি করবো না।

বুধবার (০৯ জানুয়ারী) তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারায় এক রাষ্ট্রীয় সেমিনারে বক্তব্য দানকালে এরদোগান এসব কথা বলেন।

এরদোগান বলেন, গত ৫ বছরে তুরস্কে অনেক ঐতিহাসিক পরিবর্তন এসেছে। যা রাষ্ট্র পরিচালনার ক্ষেত্রে প্রভাব ফেলছে। শত বছরের উসমানীয় ঐতিহ্য বর্তমান সরকার ব্যবস্থায় যোগ করা দরকার।

এরদোগান আরো বলেন, ঈমান ও নৈতিকতা ঠিক থাকলে কেউ কখনো রাষ্ট্রদ্রোহিতা বা সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের সাথে জড়িত হতে পারে না। অভ্যুত্থানের পরে তুরস্কে ব্যাপক পরিবর্তন এসেছে। তুরস্কে বর্তমানে সন্ত্রাসীদের কোনো স্থান নেই। তাদের গোড়া কেটে দেয়া হয়েছে।


সূত্র, আনাদোলু এজেন্সি


ইনসাফ সাংবাদিকতা কোর্স

ইনসাফ সাংবাদিকতা কোর্সদেশের প্রথম ইসলামী ঘরানার অনলাইন পত্রিকা ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকমের আয়োজনে শুরু হতে যাচ্ছে স্বল্পমেয়াদী সাংবাদিকতা কোর্স।অংশগ্রহণ করতে যোগাযোগ করুন এই নাম্বারে-০১৭১৯৫৬৪৬১৬এছাড়াও সরাসরি আসতে পারেন ইনসাফ কার্যালয়ে।ঠিকানা – ৬০/এ পুরানা পল্টন ঢাকা ১০০০।

Posted by insaf24.com on Monday, October 29, 2018


ভারত সরকার মুসলমানদের ওপর নির্যাতন বাড়িয়ে দিয়েছে : ইমরান খান
জানুয়ারি ০৯, ২০১৯
ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | আন্তর্জাতিক ডেস্ক


ভারতের বর্তমান কট্টর হিন্দুত্ববাদী বিজেপি সরকার মুসলমানদের ওপর নির্যাতন বাড়িয়ে দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

তিনি বলেন, ভারত সরকার মুসলমানদের ওপর নির্যাতন বাড়িয়ে দিয়েছে। বিশেষ করে কাশ্মীরে ভারতের অত্যাচার সীমা ছাড়িয়ে গেছে। তারা ছোট ছোট শিশুদের গুলির নিশানা বানাচ্ছে। শুধু ২০১৮ সালেই ৫০০ কাশ্মীরিকে ভারতীয় সেনারা গুলি করে হত্যা করেছে।

তুর্কী টিভি চ্যানেল টিআরটিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন। ২২ মিনিটের ওই সাক্ষাৎকারে আমেরিকা-পাকিস্তান সম্পর্ক, আফগান ও পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ নানান বিষয়েও বিভিন্ন কথা বলেন।

ভারতের বিষয়ে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান আরও বলেন, প্রতিবেশী দেশ হিসেবে আমরা সবসময় ভারতের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখতে চাই। কিন্তু তারা সর্বদা বিষয়টি এড়িয়ে চলে।

তিনি আরও বলেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে আমি বলেছি, পারস্পরিক সম্পর্ক উন্নোয়নের লক্ষ্যে আপনি এককদম অগ্রসর হলে আমরা দু’কদম আগাতে পারবো। কিন্তু মোদী আগামী নির্বাচনে সুবিধা পাওয়ার জন্য পাকিস্তান বিরোধিতাকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছেন।