গার্মেন্ট শিল্প ধ্বংস হলে দেশের উন্নয়ন ব্যাহত হবে: বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস | insaf24.com

গার্মেন্ট শিল্প ধ্বংস হলে দেশের উন্নয়ন ব্যাহত হবে: বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | ডেস্ক রিপোর্ট


বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের সিনিয়র নায়েবে আমীর মাওলানা ইসমাঈল নূরপুরী ও মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক আজ এক বিবৃতিতে বলেছেন, গার্মেন্ট শিল্পে বার বার বিক্ষোভ-অবরোধ হচ্ছে। শ্রমিকদের ন্যায্য দাবী মেনে নিয়ে তাদেরকে যথাযথ নিয়মে পারিশ্রমিক প্রদানের মাধ্যমে পরিপূর্ণ কাজে লাগালে দেশকে উন্নয়নের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছানো সম্ভব। গার্মেন্ট শিল্পই হচ্ছে বাংলাদেশের জন্য বৈদিশিক মুদ্রা উপার্জনের বৃহত্তম খাত। যেখানে অন্তত ৩ লাখ জনশক্তির কর্মসংস্থান। তিলে তিলে গড়ে উঠা এ শিল্প দেশ-বিদেশী কোনো চক্রান্তে ধ্বংস হলে একদিকে বৈদিশিক মুদ্রা অর্জন বন্ধ হবে, অন্যদিকে বেকারত্বের বোঝা ভারী হবে।

বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় বলেন, ইতোমধ্যে অনেকগুলো গার্মেন্ট বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। আরও অনেকগুলো বন্ধ হওয়ার প্রক্রিয়াধীন। দিন দিন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাহিরে চলে যাচ্ছে। আন্দোলন ছড়িয়ে পড়লে ব্যাপক ক্ষতি হবে। ফলে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ত ব্যাহত হবে। তাই অতিসত্বর সরকারের সরাসরি হস্তক্ষেপের মাধ্যমে জাতির বৃহত্তর স্বার্থে গার্মেন্টগুলো টিকিয়ে রাখতে হবে। তাদের বেতন কাঠামো সঠিক মাত্রায় নির্ধারণ ও পরিশোধের যথাযথ ব্যবস্থা নিশ্চিত করে এ সেক্টরে শৃংখলা ফিরিয়ে আনতে হবে। গার্মেন্ট শিল্প ধ্বংস হলে দেশের উন্নয়ন ব্যাহত হবে।


ইনসাফ সাংবাদিকতা কোর্স

ইনসাফ সাংবাদিকতা কোর্সদেশের প্রথম ইসলামী ঘরানার অনলাইন পত্রিকা ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকমের আয়োজনে শুরু হতে যাচ্ছে স্বল্পমেয়াদী সাংবাদিকতা কোর্স।অংশগ্রহণ করতে যোগাযোগ করুন এই নাম্বারে-০১৭১৯৫৬৪৬১৬এছাড়াও সরাসরি আসতে পারেন ইনসাফ কার্যালয়ে।ঠিকানা – ৬০/এ পুরানা পল্টন ঢাকা ১০০০।

Posted by insaf24.com on Monday, October 29, 2018


গার্মেন্ট শ্রমিকদের ওপর পুলিশি দমনপীড়ন বন্ধের আহ্বান জার্মান রাষ্ট্রদূতের
জানুয়ারি ১০, ২০১৯
ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নিজস্ব প্রতিনিধি


আন্দোলনরত গার্মেন্ট শ্রমিকদের ওপর পুলিশি দমনপীড়ন বন্ধের আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত জার্মানির রাষ্ট্রদূত পিটার ফারেনহোলজ। শ্রমিকদেরকে ন্যায্য মজুরি দেয়ার জন্য তিনি কারখানা মালিকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। এক টুইটে তিনি আজ বৃহস্পতিবার (১০ জানুয়ারি) এসব কথা বলেছেন।

টুইটে তিনি লিখেছেন, আন্দোলনরত গার্মেন্ট শ্রমিকদের ওপর পুলিশের দমনপীড়ন চালানো উচিত নয়। এর জন্য প্রয়োজন সমঝোতা। তা করতে হবে কারখানা মালিকদের। ন্যায্য মজুরি ও নিরাপদ কর্মপরিবেশ দিন। দুর্ঘটনা বা এক্সিডেন্ট বিষয়ক ইন্সুরেন্স প্রতিষ্ঠা করুন। সরকারের আড়ালে থাকবেন না।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের তৈরি পোশাকের দ্বিতীয় সর্ববৃহৎ ক্রেতা দেশ জার্মানি। এক্ষেত্রে প্রথম অবস্থানে আছে যুক্তরাষ্ট্র।