১০ বছর পর পর সংসদ নির্বাচনের প্রস্তাব আ’লীগ নেতার

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | সোশ্যাল মিডিয়া ডেস্ক


ড. সিদ্দিকুর রহমান

দেশ উন্নত না হওয়া পর্যন্ত প্রতি ১০ বছর পরপর বাংলাদেশের জাতীয় সংসদ নির্বাচন করার প্রস্তাব করেছেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান।

মঙ্গলবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে দেয়া এক পোস্টের মাধ্যমে তিনি এ প্রস্তাব করেছেন । পাশাপাশি এ বিষয়ে সবার মন্তব্যও কামনা করেছেন ড. সিদ্দিকুর।

ফেসবুক পোস্টে তিনি লিখেছেন-
বাংলাদেশে জাতীয় সংসদ নির্বাচন খুবই ব্যয়বহুল. অসাবধানতাবশত এর মাধ্যমে জীবনহানিও ঘটে । গত নির্বাচনেও ১৪ জন মৃতুবরন করেছে । এ ব্যাপারে একটি বিকল্প চিন্তা করা যায় কিনা যাতে করে সাশ্রয় হবে ও অমূল্য জীবন রক্ষা পাবে ।

গত ২০ বছর জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যাঁরা নির্বাচিত হয়েছেন, তাদের বেশির ভাগই দুই এর অধিকবার নির্বাচিত হয়েছেন ।

তাই আগামী ২০৪১ সাল নাগাদ উন্নত দেশ না হওয়া পর্যন্ত প্রতি ১০ বছর পর পর জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের বিবেচনার জন্য আবেদন রাখছি । এ ব্যাপারে সকলের মন্তব্য প্রত্যাশা করছি ।


ইনসাফ সাংবাদিকতা কোর্স

ইনসাফ সাংবাদিকতা কোর্সদেশের প্রথম ইসলামী ঘরানার অনলাইন পত্রিকা ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকমের আয়োজনে শুরু হতে যাচ্ছে স্বল্পমেয়াদী সাংবাদিকতা কোর্স।অংশগ্রহণ করতে যোগাযোগ করুন এই নাম্বারে-০১৭১৯৫৬৪৬১৬এছাড়াও সরাসরি আসতে পারেন ইনসাফ কার্যালয়ে।ঠিকানা – ৬০/এ পুরানা পল্টন ঢাকা ১০০০।

Posted by insaf24.com on Monday, October 29, 2018


সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারে ত্রুটি ছিল: সিইসি
জানুয়ারি ৩০, ২০১৯
ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নিজস্ব প্রতিনিধি


একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহারে ভুলত্রুটি ছিল বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নুরুল হুদা। তিনি বলেন, একাদশ নির্বাচনে ছয়টি নির্বাচনী এলাকায় আমরা ইভিএম ব্যবহার করেছি। দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্যি, সেটি কোথাও কোথাও ভুলত্রুটি ছিল, অসুবিধা ছিল। নতুন একটা পদ্ধতি বলেই হয়তো এমনটি হয়েছে।

বুধবার (৩০ জানুয়ারি) সকালে আগারগাঁওয়ের ইটিআই ভবনে এক প্রশিক্ষণ কর্মসূচির উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন । পঞ্চম উপজেলা নির্বাচন পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে নির্বাচনী কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষকদের এবং ইভিএম ব্যবহারে এ প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়।

নুরুল হুদা বলেন, জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারের কী ভুল ছিল, সেগুলো শনাক্ত করতে হবে। সেগুলো সংশোধন করতে হবে। আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে যেন সেই অনিয়ম না হয়, সেদিকে সজাগ থাকতে হবে। এবার যেনো কোনো ত্রুটি না হয়, সেদিকে সতর্ক থাকতে হবে।