মধ্যবাড্ডার সড়ক দুর্ঘটনায় এক নারী নিহত

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নিজস্ব প্রতিনিধি


রাজধানীর বাড্ডায় সড়ক ‍দুর্ঘটনায় জিন্না (৫০) নামে এক নারী নিহত হয়েছেন। এসময় বেপরোয়া একটি ট্রাকের চাপায় পিষ্ট হয়ে তার উভয় পা কোমর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

রোববার (১০ ফেব্রুয়ারি) রাত ১১টার দিকে মধ্যবাড্ডার ইউলুপ ও ফুটওভার ব্রিজ এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

জিন্না গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ার জাফর আলী স্ত্রী। তারা বাড্ডা এলাকায় বসবাস করছিলেন।

জানা যায়, নিহত জিন্না ছেলে তোফায়েলকে নিয়ে রাস্তা পার হওয়ার সময় একটি ট্রাকের চাপায় ঘটনাস্থলেই মারা যান। তবে এসময় ছেলে তোফায়েল অক্ষত রয়েছেন।

বাড্ডা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম এ বিষয়ে গণমাধ্যমকে জানান, দুর্ঘটনার পরপরই ট্রাকটিকে জব্দ করা হলেও চালক পালিয়ে গেছে। জিন্নার মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।



ইনসাফ সাংবাদিকতা কোর্স

ইনসাফ সাংবাদিকতা কোর্সদেশের প্রথম ইসলামী ঘরানার অনলাইন পত্রিকা ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকমের আয়োজনে শুরু হতে যাচ্ছে স্বল্পমেয়াদী সাংবাদিকতা কোর্স।অংশগ্রহণ করতে যোগাযোগ করুন এই নাম্বারে-০১৭১৯৫৬৪৬১৬এছাড়াও সরাসরি আসতে পারেন ইনসাফ কার্যালয়ে।ঠিকানা – ৬০/এ পুরানা পল্টন ঢাকা ১০০০।

Posted by insaf24.com on Monday, October 29, 2018


কাদিয়ানী ইস্যু; রেলমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবী শীর্ষ আলেমদের
ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১৯
ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নিজস্ব প্রতিনিধি


মানবতার মুক্তির দূত মহানবী হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে শেষ নবী হিসেবে অস্বীকারকারী কাদিয়ানী সম্প্রদায়ের পক্ষাবলম্বন করায় রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজনের পদত্যাগ দাবী করেছেন দেশের শীর্ষ ওলামায়ে কেরাম।

রবিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) বিকাল ৩টায় জাতীয় প্রেসক্লাবে আর্ন্তজাতিক মজলিসে তাহাফফুজে খতমে নবুওয়ত বাংলাদেশের উদ্যোগে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলন থেকে এ দাবী করা হয়।

কাদিয়ানী সম্প্রদায় (আহমদিয়া জামাত) এর পক্ষ হতে আগামী ২২,২৩,২৪, ফেব্রুয়ারী পঞ্চগড় জেলায় ’’জাতীয় ইজতেমা’’ নামক দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানের ঈমান আকীদা বিধ্বংসী অনুষ্ঠান আয়োজনের প্রতিবাদ ও অনতিবিলম্বে তা বন্ধের দাবিতে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, সংগঠনের সহ-সভাপতি আল্লামা নূর হুসাইন কাসেমী, সেক্রেটারি মাওলানা নূরুল ইসলাম, মুধুপুরের পীর মাওলানা আব্দুল হামীদ, মাওলানা মহিউদ্দীন রাব্বানী, মাওলানা আহমদ আলী কাসেমী, ফরিদাবাদ মাদরাসার মুহাদ্দিস মাওলানা নুরুল আমীন, ছারছীনার পীর সাইফুল্লাহ সিদ্দিকী, মাওলানা জহুরুল ইসলাম, মাওলানা মাসউদুল করীম, মাওলানা হাসান জামীল, মাওলানা শরীফ উল্লাহ, মাওলানা ইউনুস ঢালী, মুফতী শিব্বির আহমদ কাসেমী, মুফতী ইমরানুল বারী সিরাজী, মাওলানা মাসউদ আহমদ, মাওলানা রাশেদ বিন নূর, মাওলানা আশিকউল্লাহ প্রমূখ।

সংবাদ সম্মেলন থেকে আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারী বাদ জুমা জাতীয় মসজিদ বাইতুল মোকাররমসহ সারাদেশে বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষাণা করা হয়। এবং পঞ্চগড়ে মুসলমানদের ২১-২৫ ফেব্রুয়ারীর ইসলামী মহাসম্মেলন যে কোন মূল্যে বাস্তবায়নের ঘোষাণা দেয়া হয়।