ক্ষমতায় গেলে পাকিস্তানকে ভাই মনে করব : তালেবান

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | মুসলিম বিশ্ব ডেস্ক


আফগান রাজনীতিতে তালেবান চূড়ান্ত কথা বলার সক্ষমতা অর্জন করতে পারলে তারা পাকিস্তানকে ‘ভাই ও প্রতিবেশী’ হিসেবে গ্রহণ করা হবে। রোববার ডন পত্রিকার অনলাইন সংস্করণকে দেয়া এক বিশেষ সাক্ষাতকারে এই কথা জানান তালেবানের মুখপাত্র জাবিউল্লাহ মুজাহিদ। তিনি বলেন, পাকিস্তানের সাথে পারস্পরিক শ্রদ্ধার ভিত্তিতে সর্বোচ্চ ভালো সম্পর্ক গড়ে তুলতে চায় তালেবান।

মুজাহিদ বলেন, আফগানিস্তানের নতুন রাজনৈতিক ব্যবস্থায় তালেবান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। তবে তিনি এ ব্যাপারে এখনই বিস্তারিত কিছু বলতে চান না। তিনি বলেন, আমরা যখন বলি, আরো একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক রাজনৈতিকব্যবস্থা চাই, তখন এ দিয়ে বোঝাই যে ভবিষ্যতের সরকারে আফগানিস্তানের সব জাতির প্রতিনিধিত্ব থাকবে। তিনি বলেন, আর কোনো বিরোধ ছাড়াই আমরা তা করতে পারব।

শরিয়ার আলোকে সংবিধানের ব্যাপারে মুখপাত্র বলেন, তালেবান এখনো কোনো লিখিত ইস্তেহার পেশ না করলেও দখলদারিত্বের অবসান হলে তারা ইসলামী সরকার প্রতিষ্ঠা করবে। তিনি বলেন, বর্তমানে কাবুলে যে সংবিধান রয়েছে তা আমেরিকান দখলতারিত্ব ও স্বার্থের সাথে সংশ্লিষ্ট। কোনো দেশই এ ধরনের সংবিধান মেনে নিতে পারে না। তিনি বলেন, আমাদের সমাজ প্রায় ১০০ ভাগ মুসলিম। আমাদের সংবিধান হবে শরিয়ার আলোকে। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় সংশোধনী আনা হবে।

সাক্ষাতকারে মুজাহিদ যুক্তরাষ্ট্রের সাথে আলোচনা নিয়ে বলেন, তালেবান পক্ষ তাদের উদ্যোগেই যুক্তরাষ্ট্রের সাথে আলোচনা চালাচ্ছে। এমনকি মার্কিন অভিযানের আগেও যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি যুদ্ধের বদলে আলোচনার জন্য আহ্বান জানিয়েছিল তালেবান। তিনি জানান, এই উদ্দেশ্যেই ২০১৩ সালে কাতারে একটি অফিস পর্যন্ত খোলা হয়েছিল। ওয়াশিংটন ওই সময় আলোচনার জন্য আগ্রহী ছিল না। যুক্তরাষ্ট্র এখন আলোচনা করতে আগ্রহী, এ কারণেই তারা তাদের সাথে কথা বলতে রাজি হয়েছে।

আলোচনার টেবিলে তালেবানকে আনার ব্যাপারে পাকিস্তানের ভূমিকা নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে মুজাহিদ বলেন, বাইরের কোনো দেশেরই কোনো ভূমিকা ছিল না। আমরা নিজেদের উদ্যোগ ও নীতির আলোকেই আলোচনায় এসেছি। তিনি স্বীকার করেন, সোভিয়েত দখলদারিত্বের সময়ে পাকিস্তান ছিল আফগান উদ্বাস্তুদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্থান। এমনকি আফগানরা পাকিস্তানকে দ্বিতীয় আবাসভূমিও বিবেচনা করে।



ইনসাফ সাংবাদিকতা কোর্স

ইনসাফ সাংবাদিকতা কোর্সদেশের প্রথম ইসলামী ঘরানার অনলাইন পত্রিকা ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকমের আয়োজনে শুরু হতে যাচ্ছে স্বল্পমেয়াদী সাংবাদিকতা কোর্স।অংশগ্রহণ করতে যোগাযোগ করুন এই নাম্বারে-০১৭১৯৫৬৪৬১৬এছাড়াও সরাসরি আসতে পারেন ইনসাফ কার্যালয়ে।ঠিকানা – ৬০/এ পুরানা পল্টন ঢাকা ১০০০।

Posted by insaf24.com on Monday, October 29, 2018


আফগান যুদ্ধে বিজয়ী হয়েছে তালেবান : স্বীকার করলেন সাবেক মার্কিন জেনারেল
ফেব্রুয়ারি ০৯, ২০১৯
ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | মুসলিম বিশ্ব ডেস্ক


আফগানিস্তানের যুদ্ধে তালেবান বিজয়ী হয়েছে বলে খোলামেলা ভাবে স্বীকার করেছেন মার্কিন কমান্ডো বাহিনী স্পেশাল ফোর্সেসের সাবেক কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডন বোল্ডাক। তিনি আরো বলেন, তালেবানের কাছে পরাজিত হওয়ার বিষয়টি এখনো আমেরিকা বুঝে উঠতে পারে নি।

আফগানিস্তানে মোতায়েন থাকা অবস্থায় পাঁচ বছরে তার বাহিনীর ৬৯ কমান্ডো নিহত হয়েছে। ‘ডগ ট্যাগ’ নামে পরিচিত নিহত সেনাদের পরিচয় চিহ্ন নিজ সংগ্রহে রেখেছেন সাবেক জেনারেল বোল্ডাক।

মার্কিন বাজে নীতি এবং ভুল কৌশলের কি রকম চড়া মূল্য মার্কিন সেনাদের দিতে হয়েছে তা স্মরণ করার জন্য নিহত সেনাদের পরিচয় চিহ্ন নিজের কাছে রেখেছেন বলেও জানান তিনি।

মার্কিন কমান্ডোদের যে নির্দেশ দেয়া হয়েছে তা পালন করেছে বলে উল্লেখ করেন তিনি। সঠিক ভাবে নির্দেশ পালন করেছে মার্কিন স্পেশাল ফোর্সেসের সেনারা এবং এটি করতে যেয়ে তাদের প্রাণ দিতে হয়েছে। তাদের অঙ্গহানি ঘটেছে। আর এ সবই ঘটেছে মার্কিন নীতি নির্ধারক এবং শীর্ষস্থানীয় সেনা নেতৃবৃন্দের ব্যর্থতার কারণে।

আরেক সাবেক মার্কিন সেনা কমান্ডার মেজর জেনারেল জেফ স্কলোসার বলেন, আফগানিস্তানে তার বাহিনীর ১৮৪ সেনা নিহত হয়েছে। ২০০৮ থেকে ২০০৯ সালে মাঝামাঝি পর্যন্ত আফগানিস্তানে মোতায়েন ১০১তম এয়ারবোর্ন ডিভিশনের নেতৃত্ব দিয়েছেন তিনি।