অর্থ আত্মসাতের মামলায় বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক কর্মকর্তার ১০ বছর কারাদণ্ড

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নিজস্ব প্রতিনিধি


বাংলাদেশ ব্যাংকের অর্থ আত্মসাতের মামলায় ব্যাংকের সাবেক সহকারী পরিচালক এসএম গিয়াস উদ্দিনকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। পাশাপাশি তাকে ৬৪ লাখ ৩৩ হাজার ৭০০ টাকা অর্থদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়েছে।

রোববার দুপুরে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত ১০-এর বিচারক জয়নাল আবেদীন এ রায় ঘোষণা করেন।

আদালতে আসামির পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মাসুদ আহমেদ তালুকদার।

অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী আবুল হোসেন।

রায় ঘোষণার সময় আসামি এসএম গিয়াস উদ্দিন আদালতে উপস্থিত ছিলেন। রায় ঘোষণার পর সাজা পরোয়ানা দিয়ে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

এ মামলার অন্য দুই আসামি মকবুল হোসেন ও মহিউদ্দিন মৃধার অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাদের বেকসুর খালাস দেন আদালত। মামলার আরেক আসামি আজিজুল হক মারা যাওয়ায় তাকে এ মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, ১৯৯৬ সালের ৮ নভেম্বর থেকে ১৯৯৭ সালের ৫ মার্চের মধ্যে পরস্পর যোগসাজশে বিভিন্ন সময়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের বিভিন্ন শাখায় মিথ্যা তথ্য দিয়ে অ্যাকাউন্ট খুলে ৫২ লাখ ৫৯ হাজার ৭০০ টাকা আত্মসাৎ করেন।
ওই ঘটনায় ১৯৯৭ সালের ২৫ মে মতিঝিল থানায় মামলাটি করা হয়।

২০০৩ সালের ৫ জানুয়ারি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. আবদুল হান্নান তদন্ত শেষে চার্জশিট দাখিল করেন।


পাকিস্তানের হুঁশিয়ারি
ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০১৯
ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | মুসলিম বিশ্ব ডেস্ক


গত বৃহস্পতিবার জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামায় স্বাধীনতাকামীদের হামলায় নতুন করে কূটনৈতিক সংকট শুরু হয়েছে ভারত এবং পাকিস্তানের মধ্যে।

ওই হামলার জন্য পাকিস্তানকে দায়ী করে এর প্রতিশোধ নেয়ার অঙ্গীকার করেছে ভারত।

ইতিমধ্যে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ঘোষণা দিয়েছেন, কূটনৈতিকভাবে পাকিস্তানকে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডল থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলা হবে।

এদিকে, ওই হামলায় ইসলামাবাদের যোগসাজশ নেই দাবি করে মোদির স্বপ্ন কখনই পূরণ হবে না বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে পাকিস্তান।

শনিবার পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি বলেছেন, পাকিস্তানকে নরেন্দ্র মোদির কূটনৈতিকভাবে বিচ্ছিন্ন করার স্বপ্ন কখনই পূরণ হবে না।

জার্মানিতে মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে কুরেশি বলেন, তিনি বেশ আস্থাবান ছিলেন যে, সম্মেলন শেষ মার্কিন সিনেটররা তার সঙ্গে আলোচনায় বসবেন।

‘জার্মানি, কানাডা, উজবেকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রী ও আফগান প্রেসিডেন্টের সঙ্গে আলোচনায় এ বিষয়টি স্পষ্ট যে, পাকিস্তানকে ভারত যে কূটনৈতিক বিচ্ছিন্নের দাবি করেছে সেটি ব্যর্থ হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, তদন্ত ছাড়াই দোষারোপের সংস্কৃতি অত্যন্ত দুঃখজনক। এই অঞ্চলের শান্তি এবং স্থিতিশীলতাকে গুরুত্ব দেয়া উচিত ভারতের।