জানুয়ারি ১৯, ২০১৭

কওমী স্বীকৃতি; লাভের চেয়ে ক্ষতির দিকটাই বেশী: মুফতি এরশাদ

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

এম.আর. শামীম


%e0%a6%ae%e0%a7%81%e0%a6%ab%e0%a6%a4%e0%a6%bf-%e0%a6%8f%e0%a6%b0%e0%a6%b6%e0%a6%be%e0%a6%a6%e0%a7%81%e0%a6%b2%e0%a7%8d%e0%a6%b2%e0%a6%be%e0%a6%b9কওমী সনদের অন্তরালে আমাদের লাভের চেয়ে ক্ষতির দিকটাই বেশী হবে বলে মন্তব্য করেছন যূগসচেতন আলেমে দ্বীন, আল-জামেয়াতুল আরাবিয়া নছিরুল ইসলাম নাজিরহাট বড় মাদ্রাসার সিনিয়র মুফতী আল্লামা এরশাদ।

আজ বাদে যোহর জামেয়ার দারুল ইফতায় ছাত্রদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন ৷

উদাহরণস্বরূপ তিনি বলেন, কওমী সনদের মাধ্যমে সরকার নিয়ন্ত্রিত প্রতিষ্ঠান বা মসজিদগুলোতে হয়তো আমাদের একটা চাকরীর সুযোগ মিলবে৷ কিন্তু সেখানে অধিকপরিমাণ বেদয়াত-রুসুমাত,ভুল ফতুয়া প্রদান, সুদ-ঘুষের সাক্ষী হওয়ার মত জঘন্যতম কাজগুলো বাধ্য হয়েই করতে হবে৷ সরকারী পোস্টে চাকরীরত নামদারী আলেমরা তার জ্বলন্ত প্রমাণ৷

আলোচনার এক পর্যায়ে তিনি আরো বলেন, কওমীশিক্ষাঙ্গন গুলোর উজ্জ্বল দিশারী দারুল উলুম দেওবন্দের আট মুলনীতির মধ্যে সর্বপ্রথম মুলনীতি হচ্ছে সরকারী কোন অনুদান এজাতীয় মাদ্রাসাগুলো গ্রহণ করবে না৷ আজকে যারা দেওবন্দী বলে দাবী করি তাদেরকে এদিকেও লক্ষ রাখা উচিৎ বলে মনে করছি ৷

এভাবে তিনি কওমী মহামুনিষীদের কিছু ধারাবাহিক ঘটনা বর্ণনা করে বলেন তারা কেহ এধরনের পার্থিবজগতের অর্থ বা পদের মোহে পড়ে দ্বীনধর্মকে বিক্রি করে দেননি বরং তারা শাসকবর্গের শত ভয়ভীতি আর কারাগারে বিষপ্রয়োগে হত্যার পরেও তাদের কাছে কখনো মাথানত করেননি৷

স্বীকৃতিগ্রহণ স্বপক্ষে তিনি বলেন, ইসলামী শাসক বর্গের নিকট আলিমগনের সম্মান মর্জাদা বহুগুণ বেশী ছিল যা অনৈসলামীক সরকারগুলো থেকে কখনো আশা করা যায় না৷

তাই কওমীমাদ্রাসার স্বীকৃতি তাদের থেকে কখনো সুফল বয়ে আনবে না৷

তারপর তিনি স্বীকৃতির বিষয়ে সবশেষে দীর্ঘশ্বাসে বলেন, জানিনা কওমী মাদ্রাসার গতিধারা অদূর ভবিষ্যতে কোন পথে যায়! আল্লাহই ভাল জানেন৷ আল্লাহ আমাদের হেফাজত করুক!আমিন৷

এসময় উপস্থিত ছিলেন উক্ত ইফতা বিভাগে অধ্যয়নরত বাংলাদেশের বিভিন্ন কওমী মাদ্রাসা থেকে ফারেগীন শতাধিক ওলামায়ে কেরাম ৷