শ্রমিকের সম্মান ও অধিকার প্রতিষ্ঠায় ইসলামই দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছে: শহিদুল ইসলাম কবির

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

শহিদুল ইসলাম কবিরমুক্তিযুদ্ধ প্রজন্ম কাউন্সিল চেয়ারম্যান ও ইসলামী শ্রমিক আন্দোলনের নবগঠিত ভান্ডারিয়া সাংগঠনিক জেলা শাখার আহবায়ক শহিদুল ইসলাম কবির বলেছেন, রাসুল সা. শ্রম বিনিয়োগের ব্যাপারে উৎসাহিত করেছেন। ইসলামে ধনী দরিদ্র, উচু নিচু, জাত পাতের ভেদাভেদ নেই। ইসলাম শ্রেণী বৈষম্য সমর্থন করে না। ইসলামের দৃষ্টিতে সকল মানুষ সমান। ইসলামে কোন হালাল শ্রমই অমর্যাদাকর নয়, বরং মর্যাদার বিষয়। ইসলামই একমাত্র শ্রমিকের স্বার্থ পরিপূর্ণভাবে সংরক্ষণ করেছে এবং তাদেরকে যথাযথ মর্যাদা দিয়েছে। রাসূল সা. শ্রমিকের শরীরের ঘাম শুকাবার আগেই তার মজুরী দিয়ে দিতে বলেছেন।

ইসলামী শ্রমিক আন্দোলনের নবগঠিত ভান্ডারিয়া সাংগঠনিক জেলা কমিটির উদ্ধোধনী সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথা বলেন।

গতকাল বিকেলে ভান্ডারিয়া সাংগঠনিক জেলা কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন, সাংগঠনিক জেলার উপদেষ্টা মাওলানা মুহাম্মদ সোলায়মান মিয়া, জেলা যুগ্ম আহবায়ক মাওলানা হাবিবুর রহমান, সদস্য সচিব হাফেজ সুলতান আহমদ, মো: মোখলেছুর রহমান, মাওলানা মো: ইকবাল শিকদার, হাফেজ মো: মাসুম বিল্লাহ, মো: আব্দুর রহিম প্রমূখ।

শহিদুল ইসলাম কবির বলেন, শ্রম দিয়ে জীবিকা অর্জনের প্রতি গুরুত্ব প্রদান করে রাসুল সা. বলেছেন, ‘কারও জন্য নিজ হাতের উপার্জন অপেক্ষা উত্তম আহার্য বা খাদ্য আর নেই। আল্লাহর নবী দাঊদ আ. ও নিজ হাতের কামাই খেতেন’। ইসলাম সবসময়ই মানুষকে হালাল শ্রমের প্রতি উৎসাহিত করে পবিত্র কুরআনে বলা হয়েছে “অতঃপর সালাত সমাপ্ত হলে তোমরা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড় এবং আল্লাহ্র অনুগ্রহ তালাশ কর ও আল্লাহ্কে অধিক স্মরণ কর, যাতে তোমরা সফলকাম হও।”

তিনি আরো বলেন, শ্রমিকের সম্মান ও অধিকার প্রতিষ্ঠায় ইসলাম দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছে। রাসূলুল্লাহ সা. বলেছেন আল্লাহ ক্বিয়ামতের দিন তিন ব্যক্তির প্রতিপক্ষ হবেন প্রথমত যে আল্লাহর নামে কোন চুক্তি করে তা বাতিল করেছে। যে ব্যক্তি কোন স্বাধীন মানুষকে বিক্রি করেছে এবং যে শ্রমিকের দ্বারা পুরোপুরি কাজ আদায় করে নিয়েছে, কিন্তু তার পারিশ্রমিক প্রদান করেনি।