মার্চ ২৬, ২০১৭

আমাদের স্বাধীনতা তাহলে ভারতেরই দান বলে শাসককুল মেনে নিচ্ছে!

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী মনোহর পারিকার বঙ্গবন্ধুকে বিভিষনের সাথে তুলনা করার একদিন পরও দেখলামনা চেতনার ফেরিওয়ালাদের কোন রকম উশখুশ করতে।

শাহবাগেও দেখলামনা, কোন চেতনার কোরাস! ভারতীয় হাইকমিশনের সামনে দেখলাম গুটিতক চেতনাবাজকে ঘুর ঘুর করতে! হাইকোর্টের উল্টোপাশে পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়েও দেখলাম,কেমন যেন নিস্তরঙ্গ। চেতনার কোন অালোড়ন সেখানেও টের পাওয়া গেলোনা!

দ্রুত গেলাম, ইমরান সরকারের টাইম লাইনে,না সেখানেও পেলামনা কোন জ্বালাময়ী দ্বিতীয় ঐতিহাসিক ভাষণ! তাহলে কেম্নে কি!

যতবড় মুখ নয়, তত বড় কথা বলে ফেললো পারিকর। অথচ! এত ত্যাগ,এত রক্ত এত সাধনাতে পাওয়া অামাদের স্বাধীনতা তাহলে ভারতেরই দান বলে অামাদের শাসককুল মেনে নিচ্ছে! অার সেকারনেই কি দেশটাকে তারা ইচ্ছেমত ব্যবহার করছে। অথবা ব্যবহার করতে দেওয়া হচ্ছে!

একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধকে তারা পাক-ভারত যুদ্ধ বলে এতকাল ধরে প্রচার চালিয়ে অাসছে, তারা বলে অাসছে,একাত্তরে পাকবাহিনী ভারতের কাছে অাত্মসমর্পন করেছিল। অাত্মসমর্পন অনুষ্ঠানে উপস্থিতি দেখলেই টের পাওয়া যায়, এটা অাসলে ভারতের সুদুরপ্রসারী একটি অভিলাষ। অার সে অভিলাষ পূরনে অামাদের শাসককুল সমানে তাল দিয়ে চলছে। কি সব্বনাশি কান্ড!

পাকিস্তান পুর্ব দিকের বারান্দায় দাড়িয়ে একটু গলা খাকারী দিলে যেখানে অামাদের অহমে লাগে! অামরা কালবিলম্ব না করে ঢাল, সড়কি বল্লম হাতে পাক হাইকমিশনের দিকে এগুই। অার মনোহর পারিকারের বক্তব্যে অামাদের কাছে এতই মনোহরণ বলে মনে হচ্ছে,যে সামান্য কুটনৈতিক ভাষায়ও তার নিন্দা তো দুরে থাক প্রতিবাদ করতেও শরম পাচ্ছি!

এমন শরমিন্দা জাতিতে অামরা শেষে পরিনত হতে যাচ্ছি তাহলে!

মনোহর পারিকর, ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী, এলেবেলে কেউনা। শিবসেনা,অার এস এস গোত্রিয় কেউ এমন কথা বললে হয়তো অামলে নেবার প্রয়োজন পড়তোনা। কিন্তু যিনি বলেছেন,তিনি সে দেশের দায়িত্বশীল ব্যক্তি। তার বক্তব্য ধরে নিতে হবে,সরকারের বক্তব্যই। যে দেশের সরকার তার প্রতিবেশী দেশকে এমন তুচ্ছতাচ্ছিল্য করে, তাদের সাথে বরং সম্পর্ক নবায়নের ব্যাপারে ভাবনার অবকাস অাছে বইকি!

সাধে কি অার বাংলার মানুষ বলে পাকিস্তান যদি অামাদের স্বাধীনতার শত্রু হয়ে থাকে, তবে অবশ্যই বাংলাদেশের শত্রু হচ্ছে ভারত! এত কিছুর পরে এ নিয়ে কারো কোন দ্বিধা অাছে কি!


ফেইসবুক থেকে নেয়া