হামলাকারী সন্ত্রাসবাদীর ইশতেহারে রয়েছে এরদোগানকে হত্যার হুমকি সহ তুরস্ক দখলের পরিকল্পনা

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | আরিফ মুসতাহসান


নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুইটি মসজিদে মুসলিম বিদ্বেষী খ্রিস্টান সন্ত্রাসবাদী কর্তৃক দুইটি মসজিদে হামলার আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ৭৮ পৃষ্ঠার একটি ইশতেহার প্রকাশ করে ঐ হামলাকারী।

গতকাল (১৫ মার্চ) হামলার পূর্বে প্রকাশিত ইশতেহারে উঠে এসেছে ইসলাম বিদ্বেষের নানান তথ্য। ইশতেহারে  বলা হয়, এ ভূখণ্ড (ইউরোপ) মুসলমানদের নয় তাই তারা এখানে থাকতে পারবেনা।

তুর্কী দৈনিক ডেইলি সাবাহ’র এক প্রতিবেদনে বলা হয়, উক্ত ইশতেহারে তুরস্কের মুসলমানদের উপর হামলা ও এরদোগানকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে।

৭৮ পৃষ্ঠা সম্বলিত ইশতেহারের একপর্যায়ে বলা হয়, ইউরোপে বসবাসকারী সকল তুর্কীকে হত্যা করা হবে। এরা শুধুমাত্র বসফরাসের পূর্ব দিকে বসবাস করতে পারবে। আমরা কনস্টান্টিনোপলের উদ্দেশ্যে আসছি, আমরা এই শহরের প্রত্যেকটি মসজিদ ও মিনারকে ধ্বংস করবো। হাজিয়া সোফিয়া (তুরস্কের ইস্তাম্বুলে অবস্থিত একটি মসজিদ) থেকে মিনার উৎখাত করবো। কনস্টান্টিনোপল আবার আমাদের (খ্রিস্টান) হাতে আসবে।

উক্ত ইশতেহারে খুবই ঘৃণ্যতার সাথে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগানকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। তারা বলে, ইউরোপে তুর্কি নিধনকালে তাকেও (এরদোগান) হত্যা করবো। তার সৈন্যরা ইউরোপ দখলের চেষ্টা চালাচ্ছে। সকল ইউরোপীয়রা মিলে তুরস্ককে প্রতিহত করবে। রাশিয়ার প্রধান শত্রুকে অপসারণ করা হবে। ন্যাটো জোট ভেঙ্গে (মুসলিম দেশগুলোকে অপসারণ) দেওয়া হবে। ন্যাটো হবে একমাত্র ইউরোপের।

এদিকে তুরস্কের এক কর্মকর্তা নিশ্চিত করেছে, ক্রাইস্টচার্চে হামলাকারী খ্রিস্টান সন্ত্রাসী ব্রেনটন ট্যারেন্ট একাধিকবার তুরস্ক ভ্রমণ করেছে। সে ২০১৬ সালের ১৭ থেকে ২০ মার্চ ও ১৩ থেকে ২৫ সেপ্টেম্বর তুরস্কে অবস্থান করেছে।

নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আর্ডার্ন সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, অস্ট্রেলীয় নাগরিক ২৮ বছর বয়সী ব্রেনটন ট্যারেন্ট অনেক রাষ্ট্র ভ্রমণ করেছে। সে কোথাও বেশিদিন ধরে অবস্থান করেনি।

এক রিপোর্টে বলা হয়েছে ২০০৯ থেকে ২০১১ পর্যন্ত জঙ্গি প্রশিক্ষক হিসেবে ইউরোপ ও এশিয়ার অনেক দেশ ভ্রমণ করেছে।

বুলগেরিয়ার প্রধান পাবলিক প্রসিকিউটর সাংবাদিকদের বলেন, গত বছরের ৯ থেকে ১৫ নভেম্বর সে বুলগেরিয়াতে অবস্থান করে। এরপর হাঙ্গেরি ও রোমানিয়াতেও ভ্রমণ করে।

বুলগেরিয়ার কর্তৃপক্ষ বলেছে, সন্ত্রাসীদের সাথে তার যোগাযোগের বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এজন্য তার ব্যবহৃত সিম কার্ডটি তদন্ত করছে।

প্রসঙ্গত; গতকাল জুমার নামাজের সময় নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুইটি মসজিদে হামলা করে ইসলাম বিদ্বেষী খ্রিস্টান সন্ত্রাসবাদীরা। হামলার আগে তারা ৭৮ পৃষ্ঠার তথাকথিত একটি ইশতেহার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশ করে। এবং পুরো হামলাটি সরাসরি সম্প্রচার করে। ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, একটি আধা স্বয়ংক্রীয় শর্টগান ও রাইফেল দিয়ে সাউথ আইল্যান্ডে আল নুর মসজিদে অন্তত ৫০টি গুলি ছোড়ে ২৮ বছর বয়সী এক যুবক। টুইটারে হামলাকারী নিজের পরিচয় দিয়েছেন ব্রেনটন ট্যারেন্ট নামে। সে অস্ট্রেলিয়ার নিউ সাউথ ওয়েলসের গ্রাফটন থেকে এসেছে। যা নিশ্চিত করেছেন স্বয়ং অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী।

নিউজিল্যান্ড গণমাধ্যমের প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী উক্ত হামলায় ৪৯ জন শহীদ ও আহত হয়েছেন ৪৮ জন। এ ঘটনায় একজন নারীসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করে পরে একজনকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ