সংখ্যালঘুদের সম্পত্তি দখলের অভিযোগে মন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি

pic m_117318হিন্দুদের সম্পত্তি দখলের অভিযোগে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজারের পদত্যাগ দাবি করেছেন বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ।

‘হিন্দু সম্পত্তি দখল প্রতিবাদ করায় পরিষদের সভাপতি কাজল দেবনাথের নামে মন্ত্রীর পাঠানো উকিল নোটিশ প্রত্যাহারের’ দাবিতে আজ শুক্রবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত মানববন্ধনে সংগঠনের নেতারা এ কথা বলেন।

মানববন্ধনে বলা হয়, ৭ দিনের নোটিশ প্রত্যাহার না হলে আবার আন্দোলন শুরু হবে ।

মানববন্ধনে বক্তারা অভিযোগ করেন, দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর উপজেলার চণ্ডীপুর ইউনিয়নের ৫৫টি ভূমিহীন হিন্দু (ক্ষত্রিয়) পরিবারের ভোগদখল জমি দখলের অপচেষ্টা করছেন মন্ত্রী ও তাঁর খালাতো ভাই এমদাদ। এর প্রতিবাদ করায় কাজল দেবনাথকে অহেতুক হয়রানি করা হচ্ছে। তাঁরা বলেন, সংখ্যালঘু জনগণ কোনো ভাবেই এটা মেনে নেবে না ।

মানববন্ধনে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রানা দাশ গুপ্ত বলেন, ‘আমরা এটাকে উকিল নোটিশ মনে করি না। এটা হচ্ছে হয়রানিমূলক। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার কথা বলা হচ্ছে কিন্তু এগুলো গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠাকে বাধা দিচ্ছে।’ তিনি বলেন, যদি এই নোটিশ প্রত্যাহার করা না হয়, তাহলে সারা বাংলাদেশে আন্দোলন ছড়িয়ে পড়বে।

প্রত্যক্ষদর্শী পদ্মাবতী দেবী বলেন, সম্পত্তি দখলের সেই চেষ্টা ছিল বিভীষিকাময়। হিন্দুদের বাড়ি-ঘর, গরু-ছাগল পুড়িয়ে দিয়েছে, মহিলাদের সঙ্গে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করেছে। এখনো অনেকে অবরুদ্ধ অবস্থায় আছেন, তাদের উদ্ধারের ব্যবস্থা করা দরকার।

পূজা কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তাপস কুমার পাল বলেন, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার তার খালাতো ভাই এমদাদকে নিয়ে হিন্দুদের জায়গা দখল করছে। প্রধান মন্ত্রীর কাছে আহ্বান এই মন্ত্রীকে অপসারণ করুণ।

মানববন্ধনে আরও বক্তব্য রাখেন- পরিষদের বিভাগীয় সম্পাদক কিশোর মণ্ডল, রামপুরা থানার সভাপতি সুদীপ্ত দাশ, সংগঠনের নেতা নির্মল কুমার চ্যাটার্জি, জে এল ভৌমিক, মিলন দত্ত, সুব্রত চৌধুরী প্রমুখ।