হাইকোর্ট: তালাকের নোটিশের পর ভরণ-পোষণের গাইডলাইন তৈরির নির্দেশ কেন নয়?

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নিজস্ব প্রতিনিধি


বিবাহবিচ্ছেদের (তালাকের) নোটিশ পাওয়ার পরবর্তীতে শালিসে মীমাংসার সময় আইন অনুযায়ী সম্পূর্ণ ভরণ-পোষণের জন্য একটি গাইডলাইন তৈরির নির্দেশ কেন দেয়া হবে না- তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে হাইকোর্ট।

অ্যাডভোকেট ফৌজিয়া করিম ফিরোজ আদেশের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, রুলে পবিত্র কোরআন এবং আন্তর্জাতিক কনভেনশনের আলোকে বিবাহবিচ্ছেদ, সন্তান হেফাজত, দেনমোহর ইত্যাদি বিষয় নিশ্চিতকরণে এ-সংক্রান্ত শালিস কাউন্সিলের ভূমিকা নিশ্চিত করতে কেন নীতিমালার নির্দেশ দেয়া হবে না- তা জানতে চেয়েছেন।

এছাড়া পবিত্র কোরআন ও আইন অনুযায়ী স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিবাহবিচ্ছেদ, ভরণ-পোষণ, অন্যান্য খরচ নিষ্পত্তির বিষয়ে শালিসি কাউন্সিল কার্যকরী করতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না- তাও জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট।

আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে মন্ত্রিপরিষদ সচিব, আইন সচিব, লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিভাগের সচিব (ড্রাফটিং), মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, এলজিআরডি সচিব ও আইন কমিশনের চেয়ারম্যানকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

‘ঢাকায় ঘণ্টায় এক তালাক’ সংক্রান্ত প্রতিবেদন সংযুক্ত করে আইনজীবী কাজী মারুফুল আলমের জনস্বার্থে দায়ের করা এক রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে হাইকোর্টের বিচারপতি এফআরএ নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কেএম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে আজ আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট ফৌজিয়া করিম ফিরোজ। তার সঙ্গে ছিলেন অ্যাডভোকেট রেবেকা সুলতানা, সীমা জহুর ও শরীফুল হক। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মোহাম্মদ সাইফুল আলম।

ফৌজিয়া করিম ফিরোজ জানান, ১৯৬১ সালের মুসলিম পারিবারিক আইন অনুযায়ী তালাক আবেদনের ৯০ দিনের মধ্যে কোনো পক্ষ আপস বা তালাক প্রত্যাহারের আবেদন না করলে তালাক কার্যকর হয়।

তালাক আবেদনের পর শালিসি কাউন্সিল মধ্যস্থতার জন্য ৯০ দিনে তিনবার উভয়পক্ষে নোটিশ দিয়ে ডাকবেন। কিন্তু কাউন্সিলের এ ডাকে কোনো পক্ষ যদি না আসে তাহলেও তালাক কার্যকর হয়।

তিনি বলেন, এখন প্রশ্ন হচ্ছে- এটি কার্যকর হলে তো সব কিছু শেষ হয়ে যায় না। কিন্তু এর সঙ্গে দেনমোহর, ভরণ-পোষণ, সন্তান থাকলে তার জিম্মা নেয়ার বিষয় থাকে। এ কারণে তালাক হওয়ার পরও এ বিষয়গুলো নিয়ে মামলা হয়, যা নিষ্পত্তিতে অনেক সময় লেগে যায়। আমরা বলেছি, পবিত্র কোরআনের স্পিরিট ও আন্তর্জাতিক কনভেনশন অনুযায়ী শালিসি পরিষদ কার্যকর করা এবং এ বিষয়ে একটি গাইডলাইন করার নির্দেশনায় রুল জারি করতে। আদালত রুল জারি করেছেন।