অসুস্থ বেফাক মহাসচিবকে দেখতে ঢাকায় আল্লামা শফীর প্রতিনিধি

2016-11-15_182955

বেফাকের অসুস্থ মহাসচিব মাওলানা আব্দুল জাব্বার জাহানাবাদিকে দেখতে এবং চিকিৎসার খোঁজ-খবর নিতে আল্লামা শাহ আহমদ শফী বিশেষ প্রতিনিধি করে তার প্রেসসচিব মাওলানা মুনির আহমদকে ঢাকায় পাঠান।

তিনি গতকাল দুপুর ১২টায় ঢাকার মগবাজার হলি ফ্যামেলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের হাই ডিপেনডেন্সি ইউনিটে (এইচডিইউ) চিকিৎসাধীন মাওলানা আব্দুল জাব্বারকে দেখতে যান এবং চিকিৎসাসংক্রান্ত সকল খোঁজ-খবর নেন। ইশারায় মাওলানা আব্দুল জাব্বারকে বেফাক সভাপতির উদ্বেগ ও দোয়ার কথা জানালে বেফাক মহাসচিবও ইশারায় শাহ আহমদ শফীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে আবেগ তাড়িত হয়ে পড়েন।

এ সময় বেফাক সভাপতির প্রতিনিধি মাওলানা মুনির আহমদের সাথে হাসপাতালে গিয়েছিলেন ফেনী জেলা হেফাজতে ইসলামের সভাপতি মাওলানা আবুল কাসেম ভূঁইয়া, তরুণ আলেম ও ঢাকা খিলগাঁও মাদ্রাসার মুহাদ্দিস মাওলানা মাসূদ আহমদ, ইনসাফ টয়েন্টিফোর ডটকমের এর সম্পাদক সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকার।

মাওলানা আব্দুল জাব্বারের চিকিৎসার সার্বিক তদারকিতে থাকা বেফাকের সহকারী মহাপরিচালক মাওলানা জোবায়ের আহমদ চৌধুরী বেফাক সভাপতির প্রতিনিধিকে সার্বিক পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করে বলেন, মাওলানা আব্দুল জাব্বার জাহানাবাদির শরীরে বেশ কিছু জটিলতা দেখা দিয়েছে। বিশেষ করে কিডনিতে দুর্বলতা, অগ্নাশয়ে ইনফেকশন, হার্টে জটিলতা, লাঞ্চে পানি জমে যাওয়াসহ উচ্চ মাত্রার ডায়াবেটিক প্রবলেমও আছে।

15058628_1135131189928513_511050223_n
মাওলানা আবুল কাসেম ভূঁইয়া, মাওলানা মুনির আহমদ ও মাওলানা জুবায়ের আহমদ

খিলগাঁও এর খিদমাহ হাসপাতালে কয়েক দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর পরিস্থিতির অবনতি দেখা যাওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্যে বর্তমানে তাঁকে মগবাজার হলি ফ্যামেলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের হাই ডিপেনডেন্সি ইউনিটে মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. আবু হেনার তত্ত্বাবধানে অন্যান্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের নীবিড় পর্যবেক্ষণে রেখে চিকিৎসা দিচ্ছেন। বর্তমানে লাঞ্চের পানি ও ইনফেকশন নিয়ন্ত্রণে আনাকেই চিকিৎসকরা সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে ঔষধ প্রয়োগ করা হচ্ছে। কিন্তু বয়স বৃদ্ধির কারণে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হয়ে পড়ায় অপারেশনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়াটা স্থগিত রেখে ঔষধের মাধ্যমে রোগ নিয়ন্ত্রণে আনাকে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, আজ কালের মধ্যে পরিস্থিতির উন্নতি না হলে ঢাকার বিশিষ্ট ডাক্তারগণ মিলে বোর্ড বসে বেফাক মহাসচিবের চিকিৎসার বিষয়ে অস্ত্রোপাচারসহ চিকিৎসার বিকল্প দিকগুলো খতিয়ে দেখে সিদ্ধান্ত নিবেন বলে হাসপাতালের পক্ষ থেকে আমাদেরকে জানানো হয়েছে। বেফাক মাহসচিবকে দেখার পর আল্লামা শাহ আহমদ শফীর আরবী ভাষায় লেখা একটি চিঠি মাওলানা মুনির আহমদ ঢাকার সৌদি দূতাবাসে গিয়ে রাষ্ট্রদূত আব্দুল্লাহ এইচ এম আল-মুতাইরির হাতে হস্তান্তর করেন। চিঠিতে পবিত্র মক্কা নগরীকে লক্ষ্য করে ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীদের ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের তীব্র নিন্দা জানানোসহ ইয়েমেন, বাহরাইন ও ইরানের বিষয়ে সৌদি অবস্থানের প্রতি তাঁর সর্বাত্মক সমর্থনের কথা জানানো হয়েছে।

15045622_1135138986594400_598561689_n
মাওলানা জুবায়ের আহমদ ও সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকার

সৌদি রাষ্ট্রদূত চিঠির জন্যে আল্লামা শাহ আহমদ শফীর প্রতি কৃতজ্ঞতার কথা জানান। মাওলানা মুনির আহমদ দিন শেষে রাতেই চট্টগ্রাম হাটহাজারীতে ফিরে আসেন এবং আজ (১৪ নভেম্বর) সকাল ১০টায় আল্লামা শাহ আহমদ শফীকে বেফাক মহাসচিবের চিকিৎসা সংক্রান্ত বিষয়সহ ঢাকা সফরের সার্বিক বিষয়াদি সম্পর্কে রিপোর্ট করেন। এ সময় বেফাক সভাপতি কওমি শিক্ষার উন্নয়ন ও অগ্রগতিতে নিবেদিতপ্রাণ মাওলানা আব্দুল জাব্বার জাহানাবাদির রোগ মুক্তির জন্যে সকলের দোয়া কামনা করেন।

উল্লেখ্য, দারুল উলূম হাটহাজারী মাদ্রাসার প্রধান মসজিদ বায়তুল কারীমে বাদ আসর ছাত্র, শিক্ষক ও মুসল্লীদের অংশগ্রহণে খতমে বুখারী ও খতমে কুরআনের দোয়ায় বেফাক মহাসচিব মাওলানা আব্দুল জাব্বার জাহানাবাদির রোগমুক্তি কামনায় বিশেষ দোয়ার আয়োজন করা হয়।