তিনি মহাসচিব – তিনিই বেফাক

মাওলানা মুহাম্মাদ মামুনুল হক (শাইখুল হাদিস: জামিয়া রাহমানিয়া)


2016-11-18_165345বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়্যাহ বাংলাদেশের জন্ম থেকে তার মৃত্যু ৷ শায়েস্তাখান হল থেকে ফরিদাবাদ ও ফকিরাপুল হয়ে ডেমরা অতপর হলি ফ্যমিলি হতে অনন্তের পথে……… ৷ ১৯৭৮ থেকে ২০১৬ পূর্ণ চার যুগ ৷ প্রায় অর্ধ শতাব্দীর কওমী মাদরাসায় আলোচিত একটি নাম ৷ আলোকিত একটি পরিসর ৷ বেফাকুল মাদারিস ৷ এরই অপর নাম মাওলানা আব্দুল জব্বার জাহানাবাদী ৷ এখন থেকে মরহুম রাহিমাহুল্লাহ ৷

বেফাকের দীর্ঘ আটচল্লিশ বছর বিন্দুতে অবস্থান করেছেন ৷ তিনি আর বেফাক এতটাই একাত্ম হয়ে ছিলেন, যেন দুই স্বত্তায় এক প্রাণ ৷
মাটি কামড়ে পড়ে থাকার অর্থ আক্ষরিকভাবেই তার জীবনে বাস্তবায়িত হয়েছে ৷ বীজ যেমন মাটি কামড়ে পড়ে থেকে এক সময় বিলীন হয়ে যায় সেই মাটিতে ৷ আর সেখান থেকেই জন্ম নেয় দিগন্ত বিস্তৃত বিশাল মহিরূহ! তেমনি মাওলানা জাহানাবাদী রাহিমাহুল্লাহ মাটি কামড়ে পড়ে ছিলেন কওমীর উন্নয়ন চিন্তায় ৷ এমন কি নিজেকে বিলিয়ে দিয়েছেন অকাতরে ৷ আর তার অস্থি-মজ্জার নির্যাস থেকেই বিস্তৃত হয়েছে বেফাকুল মাদারিস ৷ ছড়িয়েছে সারা বাংলা জুড়ে ৷

আরো অনেকেই শুধু নয়, বাংলাদেশের প্রায় সকল বড়রাই তো বেফাকের সাথে কম-বেশি জড়িত, কিন্তু মিলে মিশে একাকার হওয়া বলতে যা বোঝায় তা মাওলানা আব্দুল জব্বার জাহানাবাদী রাহিমাহুল্লাহই ছিলেন ৷ একটু একটু তিল তিল করে গড়েছেন বেফাকের শিক্ষা কারিকুলামের অনেক কিছু ৷ একটি মাদরাসার বরাদ্দ রূম থেকে স্বতন্ত্র ভাড়া অফিস, আর তার পর দু-চার টাকা করে লাখো কওমী ছাত্র-জনতার সহযোগিতায় রাজধানীতে বিশাল পরিসরের নিজস্ব অফিসে স্বকীয় অবস্থান তৈরি, বেফাককে নিয়ে মাওলানা জাহানাবাদীর রচিত এ এক অনন্য ইতিহাস ৷

কওমী সনদের স্বীকৃতির ইস্যুতে রাজপথ থেকে মন্ত্রীপাড়া কিংবা সচিবালয় থেকে সংসদ ভবন আলোড়িত হলেও, টুক টুক করে দিনের পর দিন ফাইল-পত্র তৈরি করে যথার্থভাবে প্রস্তাব উত্থাপন, সে তো মাওলানা জাহানাবাদীর নিরলস সাধনার ফসল!
পঁচাশি বছরের বর্ণাঢ্য বেফাকময় জীবন, কওমী শিক্ষার উন্নয়নে ভাস্বর চেতনা আর ক্লান্তিহীন কাজ করে যাওয়ার অনন্য আদর্শ রেখে অনন্তের পথে চলে গেলেন আমাদের মহাসচিব মহোদয় রাহিমাহুুল্লাহ ৷ বলতে কোনো দ্বিধা নেই ,
তিনি আমাদের মহাসচিব ৷
তিনিই আমাদের বেফাক!
রাহিমাহুল্লাহু রাহমাতান ওয়াসিআহ!

———————————————————-
আজ ১৯ই নভেম্বর শুক্রবার সকাল ৯:৫৫ মিনিটের সময় রাজধানী মগবাজারস্থ হলি ফ্যমিলি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এন্তেকাল করেন হযরত মাওলানা আব্দুল জব্বার জাহানাবাদী রাহিমাহুল্লাহ ৷ বাদ এশা জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুকাররমে মরহূমের নামাযে জানাযা অনুষ্ঠিত হবে ৷