মার্চ ২৪, ২০১৭

সন্ত্রাসী আস্তানায় গ্রেনেড বিস্ফোরণ করলো এক নারী

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

ঢাকার আশকোনার একটি তিন তলা ভবনের সন্ত্রাসী আস্তানায় অবস্থান করা এক নারী গ্রেনেডের বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে। ওই নারী একটি শিশুসহ ভবনের সামনে এসে গ্রেনেডের বিস্ফোরণ ঘটায়।

কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম একথা জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, এ বিস্ফোরণে বোম ডিসপোসাল ইউনিটের ইন্সপেক্টর শফি আহমেদসহ কয়েকজন আহত হয়েছেন। বাড়ির ভেতর থেকে গুরুতর আহত অবস্থায় সাত বছরের একটি শিশুকে উদ্ধার করা হয়েছে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কর্মকর্তারা জানান, বাড়ির ভেতরে থাকা তিনজনকে আত্মসমর্পণ করতে বললে এক নারী ধীরে ধীরে হেঁটে ঘরে থেকে বের হয়। এ সময় তাকে হাত উঁচু করতে বললে তিনি তা করেনি এবং ঢেকে রাখায় বোঝা যাচ্ছিল না তার কোমরে সুইসাইডাল ভেস্ট রয়েছে। ঘরের দরজার কাছে এসে তিনি বিস্ফোরণ ঘটনায়। এতে পুলিশ আহত হয় এবং সাত বছরের শিশুটি আহত হয়।

এর আগে দুই নারীর আত্মসমর্পণ করার সংবাদ দিয়েছিলো পুলিশ। তাদের সাথে দুটি শিশু ছিলো।

ঢাকার পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া ঘটনাস্থলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন যে দুজন আত্মসমর্পণ করেছে তাদের একজন নিহত মেজর (অব:) জাহিদুল ইসলামের স্ত্রী জেবুন্নাহার, আরেকজন জঙ্গি মুসার স্ত্রী।

তিনি বলেন আত্মসমর্পণের সময় তারা একটি পিস্তল পুলিশের হাতে তুলে দেয়। মেজর (অব:) জাহিদ ঢাকার রূপনগরে পুলিশী অভিযানে নিহত হয়েছিলেন।

ওদিকে আত্মসমর্পণের পর দুই নারী ও শিশুদের তাদের ঘটনাস্থল থেকে মাইক্রোবাসে করে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে।

ওদিকে পুলিশ কর্মকর্তারা ধারণা করছেন তিনতলা ভবনটির একটি ফ্লাটে নব্য জেএমবির বড় পর্যায়ের একজন নেতাও রয়েছেন।