২০১৬ আমরা হারিয়েছি যাঁদের

২০১৬ আমরা হারিয়েছি যাঁদের

আবদুল্লাহ আল ইমরান


২০১৬ সালে আমরা হারিয়েছি অনেক আলেম, গবেষক, হাদিস বিশারদ, বক্তা, শিক্ষাবিদ, ইসলামি রাজনৈতিক সংগীতশিল্পীসহ অনেক কিংবদন্তী ও জনপ্রিয় ব্যক্তিত্বকে। তাঁরা রফিকে আ’লার দরবারে চলে যান ফেলে আসা বছরে।


মৃত্যুবছর শুরু হয়েছিল বি-বাড়িয়া হাফেজ মাসউদকে দিয়ে। ১১ জানুয়ারি নৃসংশ সেই তান্ডবলীলায় শহীদ হল জামিয়া ইউনুসিয়ার ছাত্র হাফেজ মাসউদুর রহমান। পুলিশের ছত্রছায়ায় সন্ত্রাসী হামলা হয় ইউনুসিয়া মাদরাসায়, এতে এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটে।


তারপর ৪ মার্চ সবাই কাঁদিয়ে পরপারে পাড়ি জমালেন সিলেটের কৃতি সন্তান শায়েখ, কারিউল কুররা আলী আকবর সিদ্দিকি রহ.।


১২ এপ্রিল অনুরাগীদের শোকবার্তা দিয়ে ঐতিহ্যবাহী রাজাগঞ্জ জামেয়া ইসলামিয়া দারুল হাদীসের স্বনামধন্য নায়েবে মুহতামিম, হযরত মাওলানা আশরাফ আলী রহ. নিজে সাড়া দিলেন মহান প্রভুর ডাকে।


মসজিদে নববির তারাবির ইমাম, মসজিদে কুবার সাবেক ইমাম, ডক্টর শায়খ মুহাম্মদ আইয়ুব ইবনে ইউসুফ ইন্তেকাল করেছেন ১৬ এপ্রিল। তাঁর বয়স ছিল ৬৪ বছর। তাঁকে জান্নাতুল বাকিতে সমাধিত করা হয়েছে। শায়খ মুহাম্মদ আইয়ুব ১৯৫৮ সালে মক্কায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি মদিনা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তাফসিরের ওপর ডক্টরেট করেন।


একই মাসের ১৯ তারিখে শায়খে হাড়িকান্দির পরলোক গমন করলেন। তিনি সিলেটের শীর্ষস্থানীয় ওলামায়ে কেরামের একজন। তাঁকে হারিয়ে বক্তকুল শোকে স্তব্ধ।


৩ মে হাদীস শাস্ত্রের আরো একটি উজ্জল নক্ষত্রের পতন হল। অন্যতম হাদিস বিশারদ, বাংলাদেশের প্রখ্যাত বিদ্যাপীঠ জামিয়া ইসলামিয়া এমদাদুল উলুম ফরিদাবাদের ছদরুল মুদারিরসীন ও শায়খে ছানী বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন শায়খুল হাদীস আল্লামা হাসসান আহমদ রহ. ইহজগত ত্যাগ করে মাওলার পাকের দরবারে চলে গেলেন।


আহলুস সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের অনুসারী, আনগারজুর জামে মসজিদ খতিব হযরত মাওলানা আবদুশ শহীদ ৪৫ বছর বয়সে ১৮ মে ভোর রাতে উসমানী হসপিটালে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন ।


মে ২৯ তারিখে চলে যান হযরত মাওলানা হুসাইন আহমদ দুর্লভপুরী।


এশিয়া মহাদেশের শীর্ষ আলেম কলম সৈনিক, আন্তর্জাতিক ইসলামিক স্কলার, মাসিক মদীনার সম্পাদক,বাংলা সাহিত্যের উজ্জ্বল নক্ষত্র, পবিত্র কোরআন শরীফের বাংলা অনুবাদক আল্লামা মুহিউদ্দিন খাঁন রহঃ ২৫ জুন আমাদের রেখে মা’বুদের নিকট চলে গেলন।


জুলাই ১৭ তারিখে বিদায় নিলেন মাওলানা সাইদুর রহমানের শ্রদ্ধেয় পিতা হযরত মাওলানা আব্দুল হক রহ.। স্ব


নামধন্য আলিমেদ্বীন, মিষ্টভাষী, আলহাজ্ব হযরত মাওলানা আব্দুর রহিম (বাট্টি মৌলবী) হুজুর ২০ আগস্ট তাঁর নিজ বাড়িতে মৃত্যু বরন করলেন।


৮ সেপ্টেম্বর রাতে সিলেট গোয়ালাবাজারে মোগলা বাজার রেঙ্গা এলাকার, অনলাইনের পরিচিত মুখ, বাতিলের বিরুদ্ধে সোচ্চার একজন আহলে ইলেম মাওলানা আবদুর রহমান অজ্ঞাত সন্ত্রাসীদের দ্বারা নির্মমভাবে খুন হন।খুনিরা তাঁকে তার মসজিদের হুজরায় হাত পা বেঁধে হত্যা করে ফ্যানের সাথে ঝুলিয়ে রাখে।


মুফতি আবু সুফিয়ান মর্মান্তিক বিদায়ে শোকে স্তব্দ গোটা দেশ। ১৬ সেপ্টেম্বর জুমার পরেই বিয়ের পিড়িতে বসার কথা ছিল ছাত্র জমিয়তের এই উদীয়মান নেতার। ঠিক জুমার আগেই মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় এই তরুণ আলেম ইন্তেকাল করেন। ছাত্র জমিয়তের কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন আবু সুফিয়ান নিজাম।


একই দিনে নোয়াখালী বাসীর প্রিয় মুখ, প্রসিদ্ধ বক্তা মাওলানা ছানা উল্লাহ আব্বাসী রহ. দীর্ঘ দিন অসুস্থ থাকার পর তাঁর নিজ বাড়িতে ইন্তেকাল করেন। তিনি নোয়াখালির জামেয়া ওসমানিয়ার ভারপ্রাপ্ত মুহতামিম ছিলেন।


বেফাকের প্রাণ, উলামা জগতের উজ্জল নক্ষত্র, বাংলাদেশ কওমি মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড (বেফাক)’র মহাসচিব আল্লামা আব্দুল জাব্বার জাহানাবাদী রহ. ১৮ নভেম্বর পরলোক গমন করেন। তিনি প্রতিষ্ঠাকাল থেকে বেফাকের মহাসচিব।


ইসলামী সঙ্গীতের কিংবদন্তি জুনায়েদ জামশেদ রহ. ৭ ডিসেম্বর এক মর্মান্তিক বিমান দুর্ঘটনায় সস্ত্রীক নিহত হন। তিনি ছিলেন সুরের পাখি জগদ্বিখ্যাত দ্বীনের দাঈ।


বিখ্যাত ক্বারী, প্রখ্যাত আলেমেদ্বীন, ঢাকা চকবাজার শাহী মসজিদের খতীব মাওলানা ক্বারী মুহাম্মদ ওবায়দুল্লাহ রাহ. ২০ ডিসেম্বর রফীকে আ’লার ডাকে সাড়া দিয়ে আমাদের থেকে চির বিদায় নিয়েছেন। তিনি বাংলাদেশ বেতারে আজান দিতেন।


জামেয়া আতহারুল উলুম আদীনাবাদের প্রতিষ্ঠাতা ও মুহতামীম, পীরে কামেল হযরত মাওলানা ফয়জুর রহমান ২৫ ডিসেম্বর অসংখ্য গুনগ্রাহীকে রেখে না ফেরার দেশে চলে গেলেন।


২০১৬ সালে সর্বশেষ নক্ষত্র পতন হল ৩০ ডিসেম্বর সন্ধায়। শাইখুল মাশায়েখ উস্তাদুল আসাতিজা ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দের শাইখুল হাদিস (শায়খে সানি) হজরতুল আল্লাম আবদুল হক আজমি রহ. ইন্তেকাল করেন। ১৯৩৬ ইংরেজিতে ভারতের উত্তরপ্রদেশের আজমগড়ে জন্মগ্রহণ করেন। পড়াশোনা শেষ করে ১৪০৩ হিজরিতে হজরত দারুল উলুম দেওবন্দের খেদমতে নিয়োজিত হন৷ দীর্ঘ ৩৫ বছর তিনি ইলমে নববীর শিক্ষক ছিলেন।


এছাড়াও আরো অনেক আলেমেদ্বীন,গুণীজনকে আমরা হারিয়েছি ২০১৬ তে। আল্লাহ তাঁর সকল বান্দাকে সফলতার উচ্চ শিখরে আসীন করুন। এবং জান্নাতের সুউচ্চ মাকাম দান করুন।