ভূমিকম্প : সিলেটে হতাহত ও ক্ষয়ক্ষতি

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের আম্বালায় উৎপত্তি হওয়া ৫.৩ মাত্রার ভূমিকম্পে সিলেটে দুইজন নিহত ও আহত হওয়া ছাড়াও ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া গেছে।

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া গেছে। ভূমিকম্পনের উৎপত্তিস্থল আম্বালা কমলগঞ্জ উপজেলা থেকে মাত্র ৪০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।

জানাযায়, ভূকম্পনের ফলে উপজেলার শতাধিক ঘরবাড়িতে ফাটল দেখা দিয়েছে। এছাড়াও অর্ধশতাধিক এলাকার মাঠ ও ফসলি জমিতে ফাটল সৃষ্টি হয়ে বালি ও পানি ভূপৃষ্ঠে উঠে আসে। এছাড়াও উপজেলার নবনির্মিত অডিটোরিয়াম ভবন দেবে যায় ও ভবনের বিভিন্ন অংশে ফাটল দেখা দিয়েছে।

উপজেলার শমসেরনগর বাজারে একটি তিনতলা রেস্টুরেন্টে মারাত্মক ফাটল দেখা দিয়েছে বলেও জানা গেছে। উপজেলার কুমড়াকাপনসহ বেশ কিছু এলাকার রাস্তাঘাটেও ফাটল দেখা দিয়েছে বলে স্থানীয়রা জানান।

কমলগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান মো. রফিকুর রহমান জানান, ভূমিকম্পে উপজেলার ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে, তবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নিরূপণ এখনো সম্ভব হয়নি। তিনি বলেন , বিস্তারিত ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানতে উপজেলা প্রশাসন ও পরিষদ একসাথে কাজ করে যাচ্ছে।

এদিকে, সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলায় মঙ্গলবার দুপুরে ভূমিকম্প চলাকালে আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে হৃদরোগে এক বৃদ্ধ মারা গেছেন। এসময় আরো ২জন আহত হন।

নিহত বৃদ্ধ হচ্ছেন হিরণ মিয়া (৬০)। তিনি উপজেলার আমলপুর পাটলি ইউনিয়নের আসামপুর গ্রামের বাসিন্দা মৃত সুনু মিয়ার ছেলে।

আহতরা হলেন পাটলি দারুল উলুম মাদ্রাসার আবাসিক ছাত্র নাজিউর রহমান (১৩)। তার বাড়ি হবিগঞ্জের চুনারুঘাট। এছাড়াও উপজেলার জগন্নাথপুর গ্রামের রুবা আক্তার (১৬) নামে এক কিশোরী আহত হয়েছেন।

স্থানীয়রা জানান, মঙ্গলবার দুপুরে ভূমিকম্পের সময় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় হিরণ মিয়ার। আহত নাজিউর রহমান মাদ্রাসার দ্বিতীয় তলা থেকে তাড়াহুড়া করে নিচে নামতে গিয়ে আহত হয়।

অন্যদিকে, সিলেট শহরে ভুমিকম্প আতঙ্কে তাড়াহুড়ো করে ভবন থেকে নামতে গিয়ে ৩ জনের আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

তারা হলেন- শাহজালালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র ইফতেখার আহমদ রবিন (২২), বন্দরবাজার এলাকার হোটেল শ্রমিক সাব্বির আহমদ (১৫) ও আরিফ আহমদ (১৩)।