শান্তি ও ইনসাফ প্রতিষ্ঠায় কুরআন-সুন্নাহর বিকল্প নেই : আল্লামা শফী

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমীর, দারুল উলুম হাটহাজারীর মুহতামিম, শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী বলেছেন, পৃথিবীতে শান্তি, নিরাপত্তা ও ইনসাফ প্রতিষ্ঠা, মানুষের জীবনের সুখ-সমৃদ্ধি অর্জন এবং সকল প্রকার অশান্তি, অরাজকতা ও দুর্ভোগ থেকে আমরা সকলেই মুক্তির জন্য ও দুনিয়া-আখিরাতের কামিবীর জন্য কুরআন-সুন্নাহর আলোকে জীবন গড়ার কোনো বিকল্প নেই।রাসুলের আদর্শে আমাদের জীবনকে সাজাতে হবে।

তিনি বলেন, সারাদেশের সর্বশ্রেণীর মানুষের উদ্দেশে বলছি, আপনারা আজ থেকে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হোন প্রকাশ্য-অপ্রকাশ্য সকল প্রকারের পাপ, অনাচার, দুর্নীত, চুরি, ডাকাতি, প্রতারণা, অন্যের অধিকার হরণ ও জুলুম করবো না, শিরক, বিদআত ও ধর্মবিরোধী কাজ থেকে বিরত থাকবো। আল্লাহর হুকুম ও রাসুলের তরিকা মেনে চললে গোটা পৃথিবীর মানুষ শান্তিতে বসবাস করতে পারবে। সমাজে শান্তির সুবাতাস বইবে ইনশাআল্লাহ।

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ আয়োজিত চট্টগ্রাম লালদীঘি ময়দানে দু’দিন-ব্যাপী শা’নে রেসালত সম্মেলনের সমাপনী দিবসে প্রধান অতিথির ভাষণে শাইখুল ইসলাম এসব কথা বলেন।

আল্লামা শাহ আহমদ শফী বলেন, ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভ। এই ফরজ পাঁচ স্তম্ভ যথাযথভাবে না মানলে মুসলমানদের ঈমান-আকিদা দুর্বল হয়ে পড়ে। ঈমান-আকিদা রক্ষার প্রচেষ্টা ও এর চর্চা অব্যাহত না থাকলে জনগণকে নানামুখী খোদায়ী আজাব ও গজবে পতিত হতে হয়। আর যারা নাস্তিকতার নামে ইসলামের পাঁচ স্তম্ভ এবং ইসলামী মূল্যবোধ ও কোরআন-সুন্নাহের বিরুদ্ধে আক্রমণাত্মক কথা বলে, তারাই হচ্ছে ইসলামবিদ্বেষী। এরাই আল্লাহ ও তাঁর রাসূল (সা.)-এর নামে জঘন্য ভাষায় কুৎসা ও মিথ্যাচার রটনা করতে দ্বিধা করে না। মূলত এইসব হীন ও স্থ’ূল নাস্তিকতা চর্চাকারী ইসলামবিদ্বেষীদের বিরুদ্ধেই আমরা আন্দোলন ও গণপ্রতিরোধ গড়ে তুলেছি। আগামীতেও যে কোন ইসলাম বিরোধী কর্মকা-ের বিরুদ্ধে ডাক দেওয়া হবে ইনশাআল্লাহ।

তিন অধিবেশনে বিভক্ত শানে রেসালত সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন যথাক্রমে মাওলানা সালাহুদ্দিন নানুপুরী, মাওলানা হাফেজ তাজুল ইসলাম, মাওলানা শিহাবুদ্দিন ইউনুছিয়া।

বয়ান করেন, আল্লামা হাফেজ জুনাইদ বাবুনগরী, মাওলানা হাফেজ নুরুল ইসলাম, মাওলানা মুফতি ফয়জুল্লাহ, মাওলানা ড. আ.ফ.ম খালিদ হোসাইন, মাওলানা লোকমান হাকীম, মাওলানা মঈনুদ্দিন রুহী, মুফতি সাখাওয়াত হোসাইন লালবাগ, মাওলানা রহিমুল্লাহ ফেনী, মুফতি মাহমুদুল হাসান গুনবী, মাওলানা সরওয়ার কামাল আজিজী, মাওলানা ইয়াছিন হাবিব, মাওলানা ইসহাক মেহরিয়া, মাওলানা মুজাম্মেল হক। সম্মেলন পরিচালনা করেন মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী, আনম আহমদুল্লাহ, হাফেজ ফায়সাল।