নাস্তিক্যবাদী গোষ্ঠীর কোন চক্রান্ত সহ্য করা হবে না : অধ্যক্ষ ইউনুছ আহমাদ

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

অধ্যক্ষ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ (ফাইল ছবি)

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মহাসচিব অধ্যক্ষ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ বলেছেন, সংশোধিত সিলেবাস ও শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে নাস্তিক্যবাদী গোষ্ঠীর যে কোন চক্রান্ত সহ্য করা হবে না। শিক্ষার মাধ্যমে ৯২ ভাগ মুসলমানের সন্তানকে নাস্তিক্যবাদী শিক্ষায় শিক্ষিত করে গড়ে তোলা হবে আর মুসলমানরা চেয়ে চেয়ে দেখবে তা হতে পারে না। তথাকথিত বুদ্ধিজীবীদের সন্তানদেরকে তারা নাস্তিক বানালে বানাতে পারে, কিন্তু মুসলমানের সন্তানদের নাস্তিক্যবাদী শিক্ষা দেয়ার চক্রান্ত ঈমানদার জনতা রুখে দাড়াবে।

তিনি বলেন, এদেশের ৯২ ভাগ মুসলমানের চিন্তা চেতনা অনুযায়ী তাদের সন্তানরা শিক্ষা অর্জন করবে এটাই স্বাভাবিক। ৮ ভাগ মানুষের জন্য পৃথক সিলেবাস হতে পারে, কিন্তু তাদের চিন্তা চেতনার সিলেবাসে ৯২ ভাগ মুসলমানের সন্তানদের পড়ানোর খায়েশ পুরণ করার চেষ্টা করলে মেনে নেয়া হবে না।

তিনি বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ভেতরে নাস্তিক্যবাদী একটি চক্র প্রবেশ করে স্কুলের পাঠ্যপুস্তকে হিন্দুত্ববাদী ও নাস্তিক্যবাদী গল্প কবিতা সংযোজন করেছিল। এদেশের ইসলামপ্রিয় জনতা এর বিরুদ্ধে রাজপথে তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলায় এবছরের পাঠ্যপুস্তকে বেশকিছু আপত্তিকর গল্প কবিতা বাদ দেয়া হয়। কিন্তু সম্প্রতি বিভিন্ন বক্তৃতা ও টেলিভিশনের টকশোতে একশ্রেণীর বুদ্ধিজীবী এই পরিবর্তনের বিরুদ্ধে কথা বলছে, এমনকি ইসলাম ও মুসলমানদের বিরুদ্ধে নানারকম ধর্মীয় উস্কানি দিচ্ছে।

তিনি এসব বুদ্ধিজীবীদের সতর্ক করে দিয়ে বলেন, বাংলাদেশে বসে আমেরিকা ও ভারতের চিন্তাচেতনায় যারা কথা বলেন, তাদের এদেশে থাকার প্রয়োজন নেই। তিনি সরকারের উদ্দেশ্যে বলেন, পাঠ্যসূচি পরিবর্তনকে দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানরা স্বাগত জানিয়েছে, তাই গুটিকয়েক ব্যক্তির কথা না শুনে সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের পক্ষেই থাকুন।

গতকাল ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের পুরানা পল্টনস্থ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক সভায় তিনি সভাপতির বক্তব্যে একথা বলেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন মুফতি সৈয়দ জিয়াউল করীম, প্রচার সম্পাদক মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, সহ-প্রচার সম্পাদক মাওলানা নেছার উদ্দিন, মাওলানা আতাউর রহমান আরেফী, মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাকী প্রমুখ।