প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতার বাড়িতে কাজ করায় গ্রেপ্তার করা হচ্ছেনা আসামীকে

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

যৌতুক মামলার আসামী লিয়াকত হোসেন

প্রভাবশালী এক রাজনৈতিক নেতার বাড়ির কাজের লোক তাই আদালত থেকে ওয়ারেন্ট ও মাল ক্রোকের আদেশ হওয়ার পর তাকে গ্রেফতার করা হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। আদালতের আদেশ পালন না করায় ভুক্তভোগী মালেকা পারভিন নামে এক গৃহবধু দিনে পর দিন আদালতের বারান্দায় ঘুরছেন এবং আসামী তাকে মামলা তুলে নেওয়ার হুমকি দিচেছন। অসহায়ত্বের শিকার ওই গৃহবধু এখন দুই সন্তানকে নিয়ে মানবতার জীবন যাপন করছেন।

মামলা সুত্রে জানা গেছে, ১৯৯৪ সালের ৬ নভেম্বর পরিবারিকভাবে কালীগঞ্জ উপজেলার একতিয়ারপুর (চাদরা) গ্রামের ইয়াকুব আলীর ছেলে লিয়াকতের সাথে ঝিনাইদহ সদর উপজেলার রতনহাট গ্রামের মৃত আনছার আলীর মেয়ে মালেকা পারভীনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে যৌতুকের দাবিতে স্বামী ও তার পরিবারের লোকজন নির্যাতন করে আসছিল।

গত ২০১৫ সালের ১৫ মে স্ত্রীকে নির্যাতন করে পিতার বাড়িতে পাঠিয়ে দেয় যৌতুক লোভী স্বামী আব্দুল মালেক। স্ত্রীকে পাঠিয়ে দিয়ে তার বিনা অনুমতিতে লিয়াকত আরেকটি বিয়ে করেন। ভরন পোষন দিতে অস্বীকৃতি জানানোর কারনে নিরুপায় হয়ে গৃহবধু মালেকা খাতুন ঝিনাইদহ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্টেট আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন (যার মামলা নং-ঝি/সিআর ৬৩৬/১৫ই ং)। মামলা হওয়ার পরও স্বামী আদালতে হাজির হয়নি। আদালত তার বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট ও মাল ক্রোকের আদেশ দেন। এই আদেশ পৌছে যায় কালীগঞ্জ থানায়।

আসামী স্থানীয় সরকারী দলের প্রভাবশালী নেতার কাজের লোক হওয়ায় আদালতের আদেশ এখনো পালন করা হয়নি। মালেকা খাতুন অভিযোগ করেন, স্থানীয় এক রাজনৈতিক নেতার বাড়িতে কাজ করার কারণে পুলিশ তাকে ধরতে সাহস পাচ্ছে না। এ ব্যাপারে কালীগঞ্জ থানার ওসি আমিনুল ইসলামের সাথে মোবাইলের ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে খোঁজ নিয়ে আইনী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।