মান্দায় এসএসসি পরীক্ষায় মোবাইল ব্যবহার ; কেন্দ্রে পরিদর্শনে সাংবাদিকদের বাঁধা

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

নওগাঁর মান্দায় চলতি এসএসসি পরীক্ষার তৃতীয় দিনের ইংরেজী প্রথম পত্রের পরীক্ষা চলাকালে কেন্দ্রের মধ্যে অবৈধভাবে মোবাইল ফোন ব্যবহার করার অভিযোগে ঐ কেন্দ্র সবিচ সহ চার শিক্ষককে অর্থ জরিমানা করা হয়েছে পরীক্ষা কেন্দ্রে ঝটিকা পরিদর্শনে এসে কর্তব্যরত নওগাঁ জেলা নিবার্হী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ ইয়াছিন আলী ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে অর্থ দন্ডের এ রায় দেন।

গতকাল মঙ্গলবার বেলা ১১টার সময় চকউলী বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ কেন্দ্র এ ঘটনাটি ঘটে। দন্ডপ্রাপ্তরা হলেন কেন্দ্র সচিব ও উক্ত প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম, মৈনম বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোস্তাক আহম্মেদ ও সাখাওয়াত হোসেন, নওগাঁ সদর উপজেলার কাঠখৈর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক কৌশিক আহমেদ মল্লিক এবং হাঁসাইগাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সাইফুল ইসলাম।

এ সময় অভিযুক্ত ঔ চার শিক্ষককে সরকারী নির্দেশনা অমান্য করায় ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে প্রত্যেককে এক হাজার টাকা এবং কেন্দ্র সচিবকে অভিযুক্ত শিক্ষকদের কাছ থেকে মোবাইলগুলো অফিসে জমা না নেয়ার অপরাধে দুই হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। এছাড়া বোর্ডের কর্মকর্তা, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাসহ দায়িত্বপ্রাপ্ত ম্যাজিস্ট্রেটদের বিাভন্ন কেন্দ্র পরিদর্শন করেন।

কেন্দ্র সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নুরুজ্জামান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, পরীক্ষা কেন্দ্রে ঐসব শিক্ষকরা মোবাইলে কথা বলছিলেন। এ সময় কেন্দ্রে পরিদর্শনে আসা ম্যাজিস্ট্রেট ঘটনাটি হাতনাতে ধরে এ জরিমানা করা ছাড়াও তৎক্ষনিকভাবে ঐ কেন্দ্রে দায়িত্ব পালন থেকে তাদের অব্যহতি দেন।

একইদিন দিন বেলা ১২টার দিকে বিটিবি পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক মোঃ আবদুল বারী খান, মহাদেবপুর উপজেলার কৃষ্ণগোপালপুর এলাকার মাহবুবুজ্জামান সেতু সহ তিন জন মান্দা থানা আর্দশ বালিকা বিদ্যালয় ও কলেজ কেন্দ্রে প্রবেশকালে কর্তব্যরত পুলিশ কনষ্টেবল তাদের বাধা প্রদান করেন।

এ নিয়ে বেশ কিছুক্ষণ পুলিশের সাথে তাদের বাক-বিতন্ডা শুরু হয়। ঐ কনষ্টেবল জানান, সকালে সহকারী কমিশনার (ভূমি) ফয়সাল আহমদ কেন্দ্র পরিদর্শনে এসে সব সাংবাদিকদের কেন্দ্রে প্রবেশ করতে নাকি নিষেধ করে গেছেন। সে অনুযায়ী তিনি বাঁধা প্রদান করেছেন। এসময় কেন্দ্র সচিব মোঃ আলমগীর হোসেন মন্ডল বিষয়টি জেনে নিজেই ঐ সাংবাদিকদের কেন্দ্রে আসতে বললেও আর কেন্দ্রে প্রবেশ না করে ফিরে যান। ঘটনাটি মুর্হুতে সব কেন্দ্রে ছড়িয়ে পড়লে অন্যন্যা সাংবাদিকরা বাঁধার সম্মুখীন হন।

অপর দিকে উপজেলা প্রত্যকটি কেন্দ্রে কোন সাংবাদিকদের ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না বলে সাংবাদিকরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। জানা গেছে, চলতি এসএসসি পরীক্ষার প্রস্তুতি সভায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) এসএসসি পরীক্ষা চলাকালে সব কেন্দ্রে সাংবাদিকদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা করে কড়াকড়ি আরোপ করেন।

পরীক্ষাচলাকালে মান্দা এসসি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ কেন্দ্র,সাহাপুর ডিএ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র, জোতবাজার বালিকা বিদ্যালয় কেন্দ্র, কালিকাপুর চককালিকাপুর কেন্দ্রে নকলের মহোৎসব চলছে বলে অভিযোগ রয়েছে। বিষয়টি সচেতন অভিভাবকসহ মেধাবী শিক্ষার্থীদের ভাবিয়ে তুলেছে। তাছাড়া একই ্ইউনিয়নে (মান্দা সদর) চার কেন্দ্রে নিয়েও নানা আলোচনার ঝড় বইছে।