‘কাশ্মীরিদের পাশে না দাঁড়িয়ে শেখ মুজিবকে অপমান করা হচ্ছে’

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

গণ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, বাংলাদেশর উচিত কাশ্মীরের স্বাধীনতাকামীদের পূর্ণাঙ্গ সমর্থন দেয়া।

তিনি বলেন, ১৯৭১ আমরা পাকিস্তানের বিরুদ্ধে লড়েছিলাম আমাদের আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার নিয়ে। কাশ্মীরও তাদের আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার নিয়ে যুদ্ধ করছে। তাই তাদেরকে আমাদের পূর্ণাঙ্গ সমর্থন দেয়া উচিত।

কাশ্মীর প্রসঙ্গে আরটিএনএনকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন।

কাশ্মীর ইস্যুতে বাংলাদেশ লুকোচুরি খেলছে মন্তব্য করে জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, কাশ্মীরের স্বাধীনতাকামীদের পাশে না দাঁড়িয়ে আমরা শেখ মুজিবুর রহমানকে অপমান করছি। আমরা মুখে মুখে শেখ মুজিবরের কথা সবসময় বলি কিন্তু উনার সমর্থন করা বিষয়গুলো মানি না। যার মাধ্যমে আমরা উনাকে অপমান করছি।

মুক্তিযুদ্ধের এই সংগঠক বলেন, বঙ্গবন্ধুর আমলে দেশের প্রণীত সংবিধানে উল্লেখ আছে যে কোনো দেশের আত্ম নিয়ন্ত্রণে যুদ্ধ হলে সেখানে আমাদের পূর্ণ সমর্থন থাকবে। কিন্তু কাশ্মীর ইস্যুতে আমরা তা মানছি না।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের প্রত্যেক নাগরিকের দায়িত্ব কাশ্মীরের আন্দোলনকে সমর্থন করা। এরা যে মুক্তিযুদ্ধ করছে তা প্রতি সমর্থন করা।

রোহিঙ্গাদের দেশে প্রবেশ করতে না দিয়ে ফেরত পাঠানো হচ্ছে এ বিষয়টিকে কিভাবে দেখছেন এমন প্রশ্নের জবাবে প্রবীণ এই রাজনৈতিক বিশ্লেষক বলেন, রোহিঙ্গাদের অাশ্রয় না দিয়ে এ দেশের সরকার মানবতাবিরোধী অপরাধ করেছে।

তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের আশ্রয় না দিয়ে ফেরত পাঠিয়ে সরকার সবচেয়ে বড় অন্যায় কাজ করেছে। সরকার তাদেরকে দেশে ফেরত পাঠিয়ে মানবতা বিরোধী কাজ করেছে। এটা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।

জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ৫০ বছরও হয় নি আমরা নিজেরাই অন্যদেশে আশ্রয় নিয়েছিলাম। ১৯৭১ সালে আমরা প্রায় ১ কোটি লোক বিভিন্ন জায়গায় আশ্রয় নিয়েছিলাম। আমরা বার্মা, আসাম, ত্রিপুরায়ও আশ্রয় নিয়েছিলাম। যে দেশ এক সময় অন্য দেশে আশ্রয় নিয়েছিল সেই দেশ কিভাবে আমরা তাদের সঙ্গে এ ধরণের অন্যায় আচরণ করলাম।

তিনি বলেন, আমরা অতীতেও আশ্রয় দিয়েছি। পাকিস্তানের আমলেও দিয়েছি। শেখ সাহেবের আমলেও দিয়েছেন, ওই সময় অল্প স্বল্প এসেছিলো। শেখ সাহেব ধমক দিয়ে সে দেশকে বলেছিলো যদি ফেরত না নেও তাহলে তোমাদের দেশে সৈন্যসহ ফেরত পাঠাবো। তারপর জিয়াউর রহমানের আমলেও আশ্রয় দেওয়া হয়, আর খালেদা জিয়ার আমলেও তা হয়েছে। সবমিলেই এই সব ক্ষেত্রে আমাদের একটা মানবিক দৃষ্টি থাকা উচিত।