‘ক্ষতিগ্রস্তরা বিশ্বব্যাংকের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারবে’

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, পদ্মা সেতু প্রকল্পে বিশ্বব্যাংক অর্থায়ন বাতিল এবং কানাডিয়ান আদালতে মামলা করার কারণে যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সেসব ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি আদালতে বিশ্ব ব্যাংকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করতে পারবেন।

শুক্রবার জার্মানির মিউনিখ শহরে ম্যারিয়ট হোটেলে ইউরোপীয় আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীসহ প্রবাসী আওয়ামী লীগ আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মারকেলের আমন্ত্রণে ৫৩ তম নিরাপত্তা সম্মেলনে যোগ দিতে শুক্রবার সকালে তিনি মিউনিখ পৌঁছান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কোনও প্রকার দুর্নীতি হয়ে থাকলে প্রমাণ করার জন্য বিশ্ব ব্যাংককে চ্যালেঞ্জ জানানোর পরও সেতুর নির্মাণ কাজ শুরুর আগেই তারা অর্থ প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেয়। তৎকালীন যুক্তরাষ্ট্র সরকারের এক প্রভাবশালী এবং নোবেল বিজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূস আমার পরিবারের সদস্যদেরকে পর্যন্ত এই মিথ্যা দুর্নীতির অভিযোগের সঙ্গে জড়ানোর চেষ্টা করেন।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত, সহকারী সচিব ব্লেইক (তৎকালীন), এমনকি পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন পর্যন্ত আমাকে হুমকি দেন যে, ড. ইউনূসকে গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে অপসারণ করা হলে বিশ্ব ব্যাংকের পক্ষ থেকে পদ্মা সেতুর অর্থায়ন প্রত্যাহার করা হবে। এমনকি ইউএস স্টেট ডিপার্টমেন্টর পক্ষ থেকে আমার ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়কে তিনবার ডেকে পাঠিয়ে ড. ইউনূসকে যেন সরানো না হয় সেজন্য আমাকে বোঝাতে বলা হয়। কেন একজন নোবেল বিজেতার ব্যাংকের একটি এমডি পদ আঁকড়ে থাকার মোহ থাকবে।’

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘আমরা তাকে (ড. ইউনূস) প্রস্তাব করেছিলাম ব্যাংকটির এমিরেটাস উপদেষ্টা হিসেবে যুক্ত থাকার জন্য। কিন্তু তিনি গ্রামীণ ব্যাংকের নিজ পদে অধিষ্ঠিত থাকার জন্য যুক্তরাষ্ট্র সরকারের সঙ্গে লবিং করেন।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্ব ব্যাংক একটি বড় সংস্থা। কাজেই কেউ কেউ বিশ্বাসও করতে শুরু করেন যে হয়তো তাদের অভিযোগের সত্যতা থাকলেও থাকতে পারে। কিন্তু বিশ্ব ব্যাংক তাদের এই অভিযোগ প্রমাণে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। আমরা যদি দুর্নীতিই করতাম তাহলে বিশ্ব ব্যাংকের সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করতে পারতাম না।’

তিনি আরও বলেন, ‘মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের কাছে শুকরিয়া, কেননা পদ্মা সেতু প্রকল্প থেকে ভিত্তিহীন দুর্নীতির অভিযোগে বিশ্ব ব্যাংকের অর্থ প্রত্যাহারের ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তরা বিচার পেল।…তারা আমার ছেলে ও মেয়ে, বোন, আমার মন্ত্রিসভার সদস্য, উপদেষ্টা, সচিবদের এই অভিযোগের সঙ্গে জড়াতে চেয়েছে।… যাই হোক আমি বলব, সত্য এবং ন্যায়ের পথে এবং সৎসাহস থাকলেই কেবল কোনও একজন মানুষ এ ধরনের কঠিন পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে পারে। কানাডার আদালতের রায় আমাদের অনুকূলে এসেছে, কারণ আমরা সবসময় সত্য ও ন্যায়ের পথে ছিলাম।’