বরুণা মাদরাসার ছালানা ইজলাসে মহানবীর আদর্শ গ্রহণ এবং ঐক্যের আহবান

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের ঐতিহ্যবাহী বহুমুখী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জামেয়া লুৎফিয়া আনোয়ারুল উলুম, হামিদনগর বরুণা মাদরাসার ছালানা ইজলাস আজ শনিবার লাখো মানুষের অংশগ্রহণের মধ্যদিয়ে শেষ হয়। ছালানা ইজলাস উপলক্ষে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আগত লাখো ভক্ত-মুরিদ আর জনসাধারণের সরব উপস্থিতিতে মুখরিত ছিলো বরুণা মাদরাসা ময়দান। বার্ষিক আন্তর্জাতিক ইসলামি সম্মেলন উপলক্ষে মুসল্লিদের ঢল নামে বরুণায়।

সম্মেলনকে কেন্দ্র করে শ্রীমঙ্গলের হাইল হাওর প্রান্তরে উৎসব ও আল্লাহ আল্লাহ ধ্বনিতে মুখরিত হওয়া গোটা এলাকায় আলাদা আমেজ বিরাজ করছিলো। অবশেষে দেশ-জাতির কল্যাণ কামনায় এক আবেগঘন মোনাজাতের মাধ্যমে আজ শনিবার সকালে মাহফিল সমাপ্ত হয়।

গতকাল শুক্রবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সাড়ে সকাল দশটায় বরুণার পীর, আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলামের আমির শায়খুল হাদিস আল্লামা খলিলুর রহমান হামিদির উদ্বোধনী বয়ানের মাধ্যমে সম্মেলনের মূল অধিবেশন শুরু হতেই লাখো জনতার উপস্থিতিতে কানায় কানায় ভরে ওঠে প্যান্ডেল। অনুষ্ঠিত হয় সিলেটের সর্ববৃহৎ জুমার নামাজের জামাত। ঢাকা, চট্টগ্রাম, কুমিল্লা, ব্রাক্ষ্রণবাড়িয়াসহ সিলেট বিভাগের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে জামাতবদ্ধ হয়ে ভোর হতেই মুসল্লিগণ সমবেত হতে থাকেন হাইল হাওরের বেলাভূমি বরুণার ময়দানে।
সম্মেলনে দেশ-বিদেশের অর্ধশতাধিক প্রখ্যাত আলেম, শিক্ষাবিদ, ইসলামি স্কলার ও বুজুর্গানে দ্বীন বয়ান পেশ করেন। উদ্বোধনী বয়ানে বরুণার পীর শায়খুল হাদিস আল্লামা খলিলুর রহমান হামিদি বলেন, পৃথিবীতে মানুষ হলো সৃষ্টির সেরা। তাই মানুষের কাজ হলো আল্লাহর ইবাদাত করা। আল্লাহর হক আদায়ের পাশাপাশী বান্দার হক ও আদায় করতে হবে। তিনি বলেন, আল্লাহকে চিনতে হলে ইলমে দ্বীন অর্জন করতে হবে।

তিনি পরস্পরের মধ্যে মারামারি-কাটাকাটি, অনৈক্য পরিহার করে মহানবীর আদশ গ্রহণ এবং ঐক্যের জন্য আহবান জানান। অন্যান্য বক্তারা সুপ্রিমকোর্টের সামনে গ্রীক মূর্তি দ্রুত অপসারণের আহবান জানান সরকারের কাছে।