কবি রফিক আজাদ ইন্তেকাল করেছেন

কবি রফিক আজাদ ইন্তেকাল করেছেনভাত দে হারামজাদা, তা না হ’লে মানচিত্র খাবো…। ১৯৭৪ সালের দুর্ভিক্ষের সময় এই বিক্ষুব্ধ পংক্তিমালার রচয়িতা মুক্তিযোদ্ধা, সম্পাদক কবি রফিক আজাদ আর নেই। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

শনিবার দুপুর ২টা ১০ মিনিটে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে (আইসিইউ) শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন তিনি।

মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের পর একুশে পদক ও বাংলা একাডেমী পুরস্কারজয়ী কবি রফিক আজাদ বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) ছিলেন।

শনিবার দুপুরে চিকিৎসকরা এই কবির মৃত্যু ঘোষণা করেন বলে জানান তার স্ত্রী অধ্যাপক দিলারা হাফিজ ও বড় ভাইয়ের মেয়ে ড. নিরু শামসুন্নাহার।

গত জানুয়ারিতে রফিক আজাদের ‘ব্রেইন স্ট্রোক’ হলে তাকে প্রথমে বারডেম হাসপাতালে পরে আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়।

গত শুক্রবার বিকালে বাংলা সাহিত্যের এই অমর কবিকে আনা হয়েছিল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে। আজ তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করে এই পৃথিবী ছেড়ে চেলে গেলেন।

১৯৪১ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি টাঙ্গাইল জেলার ঘাটাইল থানার এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন কবি রফিক আজাদ।

তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ার সময়ই ১৯৫২ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি বাবা-মার কঠিন শাসন উপেক্ষা করে ভাষা শহীদদের স্মরণে খালি পায়ে মিছিল করেন তিনি।

চিরদিনই প্রতিবাদী এই কবি তার দ্রোহকে শুধু কবিতার লেখনীতে আবদ্ধ না রেখে লড়াইয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন জাতির চরম ক্রান্তিকালেও। তারই মানসে ১৯৭১ সালে সশস্ত্র পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন।


Notice: Undefined index: email in /home/insaf24cp/public_html/wp-content/plugins/simple-social-share/simple-social-share.php on line 74