হযরত মাওলানা শাহ্ বেদারুল আলম সাহেব রহ.

মানুষ দুনিয়াতে আগমন করে এবং নির্দিষ্ট মেয়াদ অতিক্রান্তের পর মহান রাব্বুল আলামীন আল্লাহ্ তাআলার সন্নিধানে প্রত্যাবর্তন করে এটাই জাগতিক নিয়ম। এই নিয়মের ব্যতিক্রম হওয়ার জো নেই। কিন্তু কখনো কখনো একজন প্রকৃত আলেমের মৃত্যু একটি দেশ এবং একটি জাতির দুর্ভাবনার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। এমনই একজন হক্কানী আলেমের জীবন ও কর্ম সম্পর্কে আজ আমরা কিঞ্চিত আলোচনা করতে প্রয়াস পাব, ইন্শা আল্লাহ্। যিনি বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী ছিলেন। দ্বীন ও ঈমানের প্রচার, প্রসার ও হেফাযতের লক্ষ্যে আমরণ কাজ করে গেছেন। তিনি আমাদের অতি পরিচিত সুজন হযরত মাওলানা শাহ্ মুহাম্মাদ বেদারুল আলম সাহেব রহ.।

বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন, ইসলামী চিন্তাবিদ, অন্যায় ও অসত্যের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী কণ্ঠ, সৎ ও সাহসী ওলামায়ে কেরামের মধ্যে হযরত মাওলানা শাহ্ মুহাম্মাদ বেদারুল আলম সাহেব রহ.-এর নাম অন্যতম। তিনি হাকীমুল উম্মাত মুজাদ্দিদুল মিল্লাত হযরত মাওলানা হাফেয শাহ্ আশরাফ আলী থানভী রহ.-এর শীর্ষস্থানীয় খলীফা ও দারুল উলূম হাটহাজারী, চট্টগ্রামের দীর্ঘকালীন সাবেক্ব সফল মুহ্তামিম (যিনি ‘বড় মুহ্তামিম সাহেব’ গণউপাধিতে খ্যাতিমান ছিলেন। পরিচালনার সময়কাল : ১৩৬১ হি./ ১৯৪২ ঈ.-১৪০২ হি./ ১৯৮২ ঈ.) এবং ঐতিহ্যবাহী পূর্ব-পাক নেজামে ইসলাম পার্টির মুহতারাম সহ-সভাপতি কুত্বুল আলম মুহ্তামিমে আযম হাকীমুন নাফ্স হযরত মাওলানা শাহ্ আবদুল ওয়াহ্হাব সাহেব রহ.-এর চতুর্থ পুত্রসন্তান এবং দারুল উলূম হাটহাজারীর সাবেক্ব সুযোগ্য সিনিয়র শিক্ষক।

মাওলানা শাহ্ বেদারুল আলম সাহেব রহ. গত ১৪ মুহাররম ১৪২৫ হিজরী মুতাবিক্ব ০৬ মার্চ ২০০৪ ঈসায়ী, রোজ শনিবার চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ইন্তিক্বাল করেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলায়হি রাজিউন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৪৬ বছর।
হযরত মাওলানা শাহ্ মুহাম্মাদ বেদারুল আলম সাহেব রহ. ১৩৭৮ হিজরী মুতাবিক্ব ১৩৬৫ বাংলা অনুযায়ী ১৯৫৮ ঈসায়ীতে চট্টগ্রাম জেলার হাটহাজারী উপজেলাধীন বিখ্যাত রুহুল্লাহ্পুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি স্বীয় পিতা যুগশ্রেষ্ঠ আলেমে দ্বীন হযরত মাওলানা শাহ্ আবদুল ওয়াহ্হাব সাহেব রহ.-এর নিকট এবং তাঁর তত্ত্বাবধানে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপ্ত করেন। অতঃপর উপমহাদেশের অন্যতম দ্বীনী শিক্ষাকেন্দ্র দারুল উলূম হাটহাজারীতে ভর্তি হয়ে ইব্তেদায়ী থেকে শুরু করে কৃতিত্বের সাথে ক্বাও্মী মাদ্রাসা পাঠ্যক্রমের সর্বোচ্চ স্তর ‘দাও্রায়ে হাদীস’ পর্যন্ত শিক্ষা সমাপ্ত করেন।

দারুল উলূম হাটহাজারীতে অধ্যয়নকালে তাঁর সুযোগ্য শিক্ষকমণ্ডলীর মধ্যে শায়খুল হাদীস মাওলানা আবদুল কাইয়ূম সাহেব রহ., শায়খুল আদব মাওলানা মুহাম্মাদ আলী নিজামপুরী সাহেব রহ., প্রখ্যাত হাদীসবিশারদ শারেহে মেশ্কাত মাওলানা হাফেয মুহাম্মাদ আবুল হাছান সাহেব রহ., শায়খুত তাফ্সীর মাওলানা হাফীযুর রহমান (পীর সাহেব হুযূর) রহ., বিশিষ্ট মুহাদ্দিস মাওলানা মুহাম্মাদ কাসেম ফতেপুরী রহ., সাবেক্ব মুহ্তামিম মাওলানা ক্বারী হাফেয হামেদ সাহেব রহ., শায়খুল হাদীস মাওলানা শাহ্ আবদুল আজীজ সাহেব রহ., মুফ্তিয়ে আযম মুফ্তী আহমদুল হক সাহেব রহ., বর্তমান মুহ্তামিম ও শায়খুল হাদীস মাওলানা শাহ্ আহমদ শফী সাহেব দা.বা. এবং মাওলানা শেখ আহমদ সাহেব দা.বা.-এর নাম বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য।

ছাত্রজীবন শেষ করেই মরহুম মাওলানা শাহ্ বেদারুল আলম সাহেব দারুল উলূম হাটহাজারীতে ‘উস্তাদ’ (শিক্ষক) হিসাবে নিয়োগ লাভ করেন। ইন্তিক্বালের পূর্ব মুহূর্ত পর্যন্ত সুদীর্ঘ ২৩ (তেইশ) বছর সেথায় বিভিন্ন বিষয়ে তিনি ছাত্রদের পাঠদান করেন। এছাড়াও দারুল উলূমের অভ্যন্তরীণ ও বহির্বিভাগের অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ অত্যন্ত দক্ষতা ও নিষ্ঠার সাথে তিনি আনজাম দিতেন।

তিনি রাজনীতি সচেতন ব্যক্তি ছিলেন। ঐতিহ্যবাহী বাংলাদেশ নেজামে ইসলাম পার্টি ও ইসলামী ঐক্যজোট, বাংলাদেশের চট্টগ্রাম উত্তর জেলার সহ-সভাপতি, হাটহাজারী উপজেলার সভাপতি এবং চারদলীয় ঐক্যজোট, উত্তর জেলা হাটহাজারী উপজেলার সমন্বয়কারীর দায়িত্ব পালন করেন। তিনি চট্টগ্রামের ইসলামী আন্দোলনের অন্যতম কাণ্ডারী ছিলেন। ছিলেন প্রাণপুরুষ। বিগত ১৯৯৬-২০০১ ঈ. সনের আওয়ামী লীগ যালেম সরকারের ইসলাম ও রাষ্ট্রদ্রোহী কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে অত্যন্ত সাহসিকতার সাথে তিনি সফল নেতৃত্ব দিয়েছেন। ঈসায়ী ২০০১ সালে অনুষ্ঠিত অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রাম-৪, হাটহাজারী আসনের চারদলীয় ঐক্যজোট প্রার্থী জনাব আলহাজ্ব সৈয়দ ওয়াহিদুল আলমের নির্বাচনী প্রচারণায় সাবেক্ব প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)-এর চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া হাটহাজারী কলেজ ময়দানে অনুষ্ঠিত যে জনসভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন এবং গুরুত্ববহ ভাষণ দেন তাতে সভাপতিত্ব করেছেন মাওলানা শাহ্ মুহাম্মাদ বেদারুল আলম সাহেব রহ.। তিনি এতই জনপ্রিয় নেতা ছিলেন যে, সকল রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মী, প্রশাসন এবং সর্বস্তরের জনসাধারণ তাঁকে অনেক শ্রদ্ধা ও সম্মান করতেন। এছাড়া তিনি বিভিন্ন সমাজকল্যাণমূলক কর্মকাণ্ডের সাথেও নিবিড়ভাবে জড়িত ছিলেন। গরীব-দুঃখী-অসহায়-দরিদ্র মানুষের সেবায়ও তিনি ওতপ্রোতভাবে নিয়োজিত ছিলেন।

হযরত মাওলানা শাহ্ বেদারুল আলম সাহেব রহ. ছিলেন এক অনন্য দৃষ্টান্তের অধিকারী মহান ব্যক্তিত্ব। দয়ামায়া ও আন্তরিকতায় ছিলেন তিনি অত্যন্ত বড় হৃদয়ের ব্যক্তি। সাদাসিধে ও আড়ম্বরহীন জীবন যাপনে অভ্যস্ত এবং নিরহঙ্কারী ও ঈমানী চেতনায় উজ্জীবিত এক ‘মর্দে মুজাহিদ’। চাল-চলন, আচার-আচরণ ও ব্যবহারে তিনি ছিলেন অমায়িক। মাদ্রাসায় পড়–য়া সর্বস্তরের ছাত্রদের যাবতীয় সমস্যা সমাধানের ক্ষেত্রে তিনি আজীবন আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে গেছেন। সমাজের সকল শ্রেণীর মানুষের সাথে তাঁর ছিল নিবিড় সম্পর্ক। তিনি নিজের জীবনকে দেশ, জাতি ও ইসলামের খেদমতে এবং দ্বীনী শিক্ষা সংস্কারের কাজে এমনভাবে উৎসর্গিত করেছেন, যার দৃষ্টান্ত বিরল।

মাওলানা শাহ্ মুহাম্মাদ বেদারুল আলম সাহেব রহ. এত বড় মাপের লোক ছিলেন যে, দেশের শীর্ষস্থানীয় ওলামা-পীর-মাশায়েখ ছাড়াও রাজনীতিবিদ, শিক্ষাবিদ, মন্ত্রী, এমপি, আমলাসহ সর্বস্তরের লোকের সাথে তাঁর গভীর সম্পর্ক ছিল। দারুল উলূম হাটহাজারীতে যে কোন নামী-দামী মেহমান ও লোকজন আসলে সকলেই একটু করে হলেও মিলিত হতেন হযরত বড় মুহ্তামিম সাহেবের বিশ্রামগারে হযরত মাওলানা শাহ্ বেদারুল আলম সাহেব রহ.-এর সাথে।

১৯ ফেব্র“য়ারী ২০০৪ ঈসায়ী, রোজ বৃহস্পতিবার মরহুম মাওলানা শাহ্ বেদারুল আলম সাহেব হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে প্রথমে তাঁকে হাটহাজারী পৌরসভাস্থ ‘লাইফ লাইন’ ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে চট্টগ্রাম শহরের পাঁচলাইশস্থ ‘একুশে হাসপাতাল’-এ এবং পরবর্তীতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তথায় দীর্ঘ এক সপ্তাহ চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় ০৬ মার্চ ২০০৪ ঈ., রোজ শনিবার বিকাল ৩টায় হাসপাতালের বেডেই তিনি ইহজগত ত্যাগ করে মহান আল্লাহ্ তাআলার দরবারে চলে যান। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ছয় ছেলে ও তিন মেয়েকে দুনিয়াতে রেখে যান।

মহান রাব্বুল আলামীন আল্লাহ্ তাআলার কী মহিমা! এত অল্প বয়সে দারুল উলূম হাটহাজারীর সকল ছাত্র-শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং জনগণের দরদী এই উজ্জ্বল ব্যক্তিটি আমাদের কাছ থেকে হারিয়ে গেলেন।
আমরা মরহুমের মাগফিরাত কামনা করছি, এবং মহান আল্লাহ্ তাআলার দরবারে ফরিয়াদ করছিÑ তিনি যেন তাঁকে জান্নাতের সর্বোচ্চ স্থান দান করেন। আমীন।


লেখক : কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক,
হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ।


Notice: Undefined index: email in /home/insaf24cp/public_html/wp-content/plugins/simple-social-share/simple-social-share.php on line 74