ধর্ম অবমাননার অভিযোগে শিক্ষক লাঞ্ছনার মামলায় জামিন পেলেন সেলিম ওসমান

ধর্ম অবমাননার অভিযোগে নারায়ণগঞ্জে শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তকে লাঞ্ছনার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় জামিন পেয়েছেন নারায়ণগঞ্জের সংসদ সদস্য (জাপা) সেলিম ওসমান।

মঙ্গলবার ঢাকা চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জেসমিন আরা তার জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন।

এর আগে ১৪ মে ঢাকা চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জেসমিন আরা আদালতে সেলিম ওসমান আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেন। আদালত তার জামিন শুনানির জন্য আজ মঙ্গলবার দিন ধার্য করেছিলেন।

সেলিম ওসামনের আইনজীবী এসএম সিদ্দিকুর রহমান আদালতে স্বেচ্ছায় আত্মসমর্পণপূর্বক জামিনের আবেদন করেন। রাষ্ট্রপক্ষে কৌসুঁলি আনোয়ারুল কবীর বাবুল জামিনের বিরোধিতা করেন।

উল্লেখ্য, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করায় ২০১৬ সালের ১৩ মে নারায়ণগঞ্জের পিয়ার সাত্তার লতিফ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তকে স্থানীয় সংসদ সদস্য এ কে এম সেলিম ওসমান সবার সামনে কান ধরে ওঠবস করান।

২০১৬ সালের ১০ আগস্ট শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তকে কানধরে উঠবস করানোর ঘটনায় স্থানীয় সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান জড়িত কিনা সে বিষয়ে বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়।

ওই দিন আদালত আদেশে বলেন, কানধরে উঠবসের ঘটনায় স্থানীয় সংসদ সদস্য সেলিম ওসমানের সম্পৃক্ততা নেই মর্মে পুলিশের প্রতিবেদনে প্রকৃত সত্য তুলে ধরা হয়নি। পুলিশের প্রতিবেদন অসম্পূর্ণ ও অগ্রহণযোগ্য।

২০১৭ সালের ১৯ জানুয়ারি বিচার বিভাগীয় প্রতিবেদন দাখিল করেন ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রে শেখ হাফিজুর রহমান ওই প্রতিবেদন হলফনামা আকারে দাখিল করেন। বিচারক শেখ হাফিজুর প্রতিবেদনে ছয়টি সিদ্ধান্ত দিয়েছিলেন।