পান্তা ইলিশের সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসতে হবে: ইসলামী আইনজীবী পরিষদ

বাংলাদেশ ইসলামী আইনজীবী পরিষদবাংলাদেশ ইসলামী আইনজীবী পরিষদের সভাপতি বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী শেখ আতিয়ার রহমান বলেছেন, নববর্ষে পান্তা ইলিশের এক হুজুগ সৃষ্টি হয়েছে। নববর্ষের সঙ্গে পান্তা ইলিশের কোন সম্পর্ক নেই। পহেলা বৈশাখে নববর্ষ উদযাপনের নামে বাদ্য বাজনা আলপনা মুখোশ নৃত্য, বঙ্গখেলা, নারী-পুরুষের অবাধ মেলামেশার সাথে বেহায়পনা প্রভৃতিকে চিরায়ত বাঙ্গালি সংস্কৃতি বলে চালিয়ে দেয়া হচ্ছে। যার সঙ্গে দেশের বৃহত্তর মুসলিম জনগোষ্ঠির তথা বাঙ্গালির আচরিত সংস্কৃতির কোন মিল নেই।

আজ বাংলাদেশ ইসলামী আইনজীবী পরিষদের এক প্রতিনিধি সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সেক্রেটারী জেনারেল শেখ লুৎফর রহমান, এডভোকেট সরদার মোঃ মানিক মিয়া, এড্ভোকেট মাওলানা মোঃ মহিবুল্যাহ ও এডভোকেট শওকত আলী হাওলাদার প্রমুখ।

বাংলাদেশ ইসলামী আইনজীবী পরিষদের সেক্রেটারী জেনারেল শেখ লুৎফর রহমান বাংলা নববর্ষ পহেলা বৈশাখে উৎসর পালনে ইসলাম বিরোধী ও অনৈইসলামি আখ্যায়িত করে তা বাতিলের দাবী জানিয়েছেন। ইসলামে পহেলা বৈশাখ, পহেলা জানুযায়ী নববর্ষ পালন মুসলমানদের জন্য জায়েজ নেই। তাই ৯২ ভাগ মুসলমানের দেশে হারাম দিবস পালনে রাষ্ট্রীয় পৃষ্টপোষকতা ও আর্থিক সহযোগিতা বন্ধ করতে হবে।

এডভোকেট মাওলানা মোঃ মহিবুল্যাহ তার বক্তব্যে বলেন, পহেলা বৈশাখের নামে দেশে কোন বেহায়পনা বেলেল্লাপনা সহ্য করা হবে না। তিনি আরো বলেন বাংলাদেশ উলি আউলিয়া ও মাশায়েখের দেশ। এই দেশের ইসলাম ধর্মের অনুসারী ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা পহেলা বৈশাখের নামে কোন বেহায়াপনা মেনে নেবে না। তিনি বলেন, পান্তা ইলিশের নামে ইসলাম বিদ্বেষি মিডিয়া ও পুঁজিবাদী গোষ্ঠি বাণিজ্য করছে। ওদের শোষণ থেকে দেশকে বাঁচাতে হবে।