ইউএনওর নিরাপত্তা দিতে না পারায় বরিশাল-বরগুনার ডিসি প্রত্যাহার

বরিশালের ডিসি গাজী মো. সাইফুজ্জামান(বাঁয়ে) ও বরগুনার ডিসি বশিরুল আলম(ডানে)।

বরগুনা সদরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তারিক সালমনের ঘটনায় বরিশাল ও বরগুনার জেলা প্রশাসককে (ডিসি) সরিয়ে নিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

সোমবার (২৪ জুলাই) ওই দুই ডিসিকে প্রত্যাহারের প্রজ্ঞাপন জারি করে মন্ত্রণালয়। মন্ত্রিপরিষদ সচিব শফিউল আলম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ইউএনও তারিক সালমনকে নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হওয়ায় দুই জেলা প্রশাসকের বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। দুই জেলা প্রশাসককে প্রত্যাহারে ফাইলে সই করা হয়েছে। ফাইল চলে গেছে। প্রজ্ঞাপন করবে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

গত ৭ জুন ইউএনও তারিক সালমনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেন বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক (বর্তমানে বহিষ্কৃত) ও জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি ওবায়েদুল্লাহ সাজু। মামলার আরজিতে অভিযোগ করা হয়, আগৈলঝাড়া উপজেলায় স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণপত্রে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি ব্কিৃত করে ছাপা হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর বিকৃত ছবি দেখে মর্মাহত হয়ে তিনি পাঁচ কোটি টাকার মানহানির অভিযোগে মামলা করেন।

ওই মামলায় বিবাদী ইউএনও গাজী তারিক সালমনকে সমন দেওয়া হয়। এর পর ১৯ জুলাই বুধবার বেলা ১১টার দিকে আদালতে হাজির হন ইউএনও। তাঁর জামিন নামঞ্জুর করে জেলে পাঠানোর আদেশ দেন জেলার মুখ্য মহানগর বিচারিক হাকিম মোহাম্মদ আলী হোসাইন। প্রায় তিন ঘণ্টা কোর্টহাজতে থাকার পর দুপুর ২টায় আবার তাঁকে জামিনে মুক্তির নির্দেশ দেন একই বিচারক।

গতকাল রোববার মামলার বাদী বরিশাল আইনজীবী সমিতির সভাপতি (আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কৃত) ওবায়েদুল্লাহ সাজু আদালতে উপস্থিত হয়ে মামলা প্রত্যাহারের আবেদন করেন। পরে শুনানি শেষে বিচারক অমিত কুমার মামলাটি খারিজ করে দেন।

এদিকে, এ ঘটনা তদন্তে আজ পাঁচ সদস্যের কমিটি গঠন করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। কমিটিকে আগামী ১৫ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. শফিউল আলম।