নবীজি সা. জীবনে চারবার উমরাহ্ করেছেন, সব কটি উমরাই ছিল জুলকা’দাহ মাসে

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

খু ৎ বা তু ল জু মু আ হ্


জুলকা’দাহ্ মাস ; মহত্ত্ব ও ইতিহাস

মুফতী হারুন ইজহার চৌধুরী
খতীব : লালখান বাজার জামে মসজিদ, চট্টগ্রাম


প্রিয় মুসল্লী!
জুলহজ্জ মাসকে আমরা সকলে হজের মাস হিসেবে জানি। তবে জুলকা’দাহ মাসটিকে আমরা কি হিসেবে মুল্যায়ন করব?
হ্যাঁ! এ জুলকা’দাহ্ মাসটির গুরুত্ব রয়েছে শরয়ী দৃষ্টিকোণে এবং ঐতিহাসিক দিক থেকেও।
আল্লাহপাক এরশাদ করেন – ﺍﻥ ﻋﺪﺓ ﺍﻟﺸﻬﻮﺭ ﻋﻨﺪ ﺍﻟﻠﻪ ﺍﺛﻨﺎ ﻋﺸﺮ ﺷﻬﺮﺍ ﻓﻲ ﻛﺘﺎﺏ ﺍﻟﻠﻪ —- ﻣﻨﻬﺎ ﺍﺭﺑﻌﺔ ﺣﺮﻡ ‏( ﺍﻟﺘﻮﺑﺔ ৩৬) অর্থাৎ নিশ্চয়ই আল্লাহর নিকট মাসের সংখ্যা বারটি যা আল্লাহর কিতাবে বর্ণিত তন্মধ্যে চারটি হারাম মাস।
এই যে চারটি মাসকে হারাম মাসের মর্যদা দিয়ে উল্লেখ করা হয়েছে,তার মধ্যে প্রথম মাসটি হলো জুলকা’দাহ মাস। কা’দাহ্ শব্দের অর্থ হলো বসা। যেহেতু এ পবিত্র মাস গুলোতে যুদ্ধ-বিগ্রহ নিষিদ্ধ ছিল, মানুষ তাই শান্তভাবে ঘরে অবস্থান নিয়ে থাকতো। একারণেই মাসটিকে জুলকা’দাহ্ বলা হতো।
জুলকা’দাহ সহ অন্যান্য হারাম মাস গুলোতে বিশেষ করণীয় হলো, পাপাচারের কুলষতা থেকে মুক্ত থাকার জন্য প্রয়াসী হওয়া। উক্ত আয়াতেই এ মাসগুলিতে করণীয় সম্পর্কে আল্লাহ তাআলা বলেন,فلا تظلمو افيهن أنفسكم
অর্থাৎ এ দিন গুলোতে তোমরা নিজেদের উপর জুলম করিওনা। জুলম বলতে গুনাহের কথা বলা হয়েছে।
এমাসটির আসল গুরুত্ব ও তাৎপর্য পবিত্র হজ্জ তথা কোরবানী ও জুলহজ্জের দশ দিনের সন্মানে প্রাথমিক মনস্তাত্বিক প্রস্তুতির মধ্যে নিহিত।
এমাসে হাজীদের জন্য অন্যতম আমল হলো উমরাহ্ করা। রমাদানের উমরাহর চেয়ে এ জুলকা’দায় উমরাকে বেশী ফজীলতপূর্ণ বলা হয়েছে।তবে এটা সকলের মতামত নয়।
আমাদের নবীজি সা. জীবনে চারবার উমরাহ্ করেছেন, এবং সব কটি উমরাই ছিল জুলকা’দাহ মাসে।
ﻋﻦ ﻗَﺘَﺎﺩَﺓُ ﺃَﻥَّ ﺃَﻧَﺴًﺎ – ﺭﺿﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ – ﺃَﺧْﺒَﺮَﻩُ ﺃَﻥَّ ﺭَﺳُﻮﻝَ ﺍﻟﻠَّﻪِ – ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ – ﺍﻋْﺘَﻤَﺮَ ﺃَﺭْﺑَﻊَ ﻋُﻤَﺮٍ ﻛُﻠُّﻬُﻦَّ ﻓِﻰ ﺫِﻯ ﺍﻟْﻘَﻌْﺪَﺓِ ﺇِﻻَّ ﺍﻟَّﺘِﻰ ﻣَﻊَ ﺣَﺠَّﺘِﻪِ….
পবিত্র এ মমাসটির ঐতিহাসিক তাৎপর্যের কথা যদি আমরা স্মরণ করি, তাহলে নবী হজরত মুছা আ. এর সে চল্লিশ দিবসের প্রসঙ্গটি এসে যায়। আল্লাহ পাক এরশাদ করেন
ﻭﻭﺍﻋﺪﻧﺎ ﻣﻮﺳﻰ ﺛﻼﺛﻴﻦ ﻟﻴﻠﺔ ﻭﺃﺗﻤﻤﻨﺎﻫﺎ ﺑﻌﺸﺮ ﻓﺘﻢ ﻣﻴﻘﺎﺕ ﺭﺑﻪ ﺃﺭﺑﻌﻴﻦ ﻟﻴﻠﺔ
হজরত মুসা আ. শরীয়ত প্রাপ্তির লক্ষ্যে যে ৪০ দিনের জন্য বের হয়েছিলেন তা ছিল এ মাসের ত্রিশ দিন, আর জুলহাজ্জ মাসের প্রথম ১০ দিন সহ সর্বমোট চল্লিস দিন যাকে আমাদের পরিভাষায় চিল্লা বলে থাকি।
আমাদের আদর্শ ও চেতনার বাতিঘর প্রিয়তম নবীজি সা. এর সীরাতেও আমরা এ মাসটিতে গুরুত্ববহ কিছু ঘটনার সন্ধান পাই। যেমন হুদাইবিয়ার সন্ধি যেটি ছিল মক্কা বিজয়ের মাইল ফলক। বনু কুরায়জার যুদ্ধটিও সংঘটিত হয়েছে এমাসটিতে যেখানে খন্দকের লড়াইয়ের প্রাক্কালিন সময়ে বহুজাতিক বাহিনীর সাথে গোপন আঁতাতের মাধ্যমে মদীনা রাষ্ট্রের পতনের ষড়যন্ত্রের অপরাধে ইহুদিদের নিশ্চিহ্ন করা হয়। এছাড়া আরো কিছু ঘটনা রয়েছ এ মাসেকে জুড়ে।
আল্লাহ পাক আমাদেরকে ইমানের এ মৌসুমে ইমানের সৌরভে মুগ্ধ থাকার তাওফিক দান করুন। আমীন।