গৃহবন্দী প্রধান বিচারপতিকে জোর করে বিদেশে পাঠানো হচ্ছে: সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশন

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদীন

সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন বলেছেন, প্রধান বিচারপতিকে সুকৌশলে বিদেশে পাঠিয়ে দেয়ার ষড়যন্ত্র চলছে। তাকে বিদেশে পাঠিয়ে দেয়া হলেও আইনজীবীদের আন্দোলন চলমান থাকবে। আইনের শাসন ফিরে না আসা পর্যন্ত এই আন্দোলন চলবে। বিচার বিভাগ যারা ধ্বংস করতে চায় তাদের বিরুদ্ধে আন্দোলন চলবে।

বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্ট বার ভবনের সামনে সুপ্রিম কোর্ট বার আয়োজিত মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচিতে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, কোনো ব্যক্তিকে রক্ষা করার জন্য আমরা আন্দোলন করছি না, এটা বিচার বিভাগ রক্ষার আন্দোলন। অন্যদিকে সুপ্রিম কোর্ট বারের সম্পাদক মাহবুবউদ্দিন খোকন অভিযোগ করে বলেন, প্রধান বিচারপতিকে আজ গৃহবন্দী করে রাখা হয়েছে। তাকে জোর করে বিদেশে পাঠানো হচ্ছে।

জয়নুল আবেদীন অভিযোগ করেন, আইন মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।

এদিকে, মাহবুবউদ্দিন খোকন বলেন, আইনমন্ত্রী স্বীকার করেছেন প্রধান বিচারপতি জিওতে স্বাক্ষর করেননি। ব্যক্তিগত সহকারী কর্মকর্তা চিঠি লিখেছেন। প্রধান বিচারপতিকে আজ গৃহবন্দী করে রাখা হয়েছে। তাকে জোর করে বিদেশে পাঠানো হচ্ছে। সুপ্রিম কোর্টে অবৈধ কর্মকাণ্ড শুরু হয়েছে। পাকিস্তান থেকে এ পর্যন্ত গত ৭০ বছরেও বিচার বিভাগের ওপর এমন হামলা হয়নি।

তিনি বলেন, অ্যাটর্নি জেনারেল, ডেপুর্টি অ্যাটর্নি জেনারেলরা সরকারি চাকরি করেন। আপনারা পদত্যাগ করে রাজনৈতিক দলের কর্মসূচিতে অংশ নেন। অন্যায়ের প্রতিবাদ করার কারণে সুপ্রিম কোর্ট বারের সভাপতিকে গ্রেফতার করতে পারেন। আমাকেও গ্রেফতার করতে পারেন। কিন্তু প্রধান বিচারপতির পদ সমুন্নত না থাকলে আইনের শাসন ও ন্যায় বিচার থাকবে না।

তিনি আওয়ামী আইনজীবীদের উদ্দেশ্য করে বলেন, আপনারা পুলিশের প্রহরায় আসেন। পুলিশ প্রহরায় এসে ধমক দিবেন এটা মেনে নেয়া যায় না। ভবিষ্যতে ধমক দিলে আইনজীবীরা এর কড়া জবাব দেবে।

বক্তব্য শেষে জয়নুল আবেদীন আগামী রোববার ও সোমবার দেশের সকল জেলা বারের পক্ষ থেকে জেলা জজ ও ডিসি বরাবর স্মারকলিপি প্রদান এবং সুপ্রিম কোর্ট বারে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশের কর্মসূচি ঘোষণা করেন।