কাশ্মিরে নারীর চুলের বিনুনি কাটায় ভারতীয় সেনাকে গণপিটুনি

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

জম্মু-কাশ্মিরের কুপওয়াড়া জেলায় প্রাদেশিক এক সেনা সদস্যকে গণপিটুনি দিয়েছে ক্ষুব্ধ জনতা। তার বিরুদ্ধে এক নারীর চুলের বিনুনি কাটায় জড়িত থাকার সন্দেহে ওই গণপিটুনির ঘটনা ঘটে।

মঙ্গলবার পুলিশ মারমুখী জনতার হাত থেকে তাকে উদ্ধার করতে সমর্থ হলেও উন্মত্ত জনতার প্রহারে ওই সেনা সদস্য গুরুতর আহত হওয়ায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ নিয়ে উত্তর কাশ্মিরের কুপওয়াড়া জেলার রেড্ডি চৌকিবল ও ক্রালপোরা এলাকায় স্থানীয় জনতা প্রতিবাদ বিক্ষোভে শামিল হলে ও পুলিশের সঙ্গে তাদের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। উন্মত্ত জনতা নিরাপত্তা বাহিনীকে টার্গেট করে পাথর নিক্ষেপ করলে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। পুলিশ এ সময় কাঁদানে গ্যাসের সেল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি সামাল দেয়ার চেষ্টা চালায়।

ক্ষুব্ধ জনতা সন্দেহভাজন ওই সেনা সদস্যকে ব্যাপক মারধর করার পর পুলিশের হাতে তুলে দেয়। পুলিশ বলছে এ ব্যাপারে অভিযোগ দায়ের করে তদন্ত শুরু হয়েছে।

সম্প্রতি কুপওয়াড়া ছাড়াও শ্রীনগর ও রাজ্যের অন্যত্র রহস্যজনকভাবে নারীদের চুলের বিনুনি কেটে নেয়ার ঘটনায় সেখানকার মানুষজন তীব্র ক্ষোভে ফুঁসে উঠেছেন। প্রায় প্রতিদিনই সেখানকার নারীরা প্রতিবাদে সোচ্চার হয়ে রাজপথে নেমে বিক্ষোভে শামিল হচ্ছেন।

রাজ্যটিতে এ পর্যন্ত একশ’র বেশি বিনুনি কাটার ঘটনা ঘটলেও এখনো পর্যন্ত এ নিয়ে কোনো অপরাধীকে পুলিশ গ্রেফতার করতে সমর্থ হয়নি।

পুলিশ এ ব্যাপারে অপরাধীকে গ্রেফতারে সাহায্যকারীকে ৬ লাখ টাকা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে। আগে ৩ লাখ টাকা পুরস্কার দেয়ার ঘোষণা দেয়া হলেও তাতে বিশেষ ফল না হওয়ায় তা বাড়িয়ে ৬ লাখ টাকা করা হয়েছে।

কাশ্মিরি নেতাদের একাংশের অভিযোগ, নারীদের বিনুনি কাটার নেপথ্যে নিরাপত্তা এজেন্সির হাত আছে। কাশ্মিরের মূল ইস্যু থেকে অন্যদিকে নজর ঘোরাতেই ওই ঘটনা ঘটানো হচ্ছে।


পার্সটুডে