আসামে বিতর্কিত নাগরিক তালিকায় নাম নেই ১ কোটি ৩৯ লাখের, প্রতিক্রিয়া জানালো জমিয়ত

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | ডেস্ক রিপোর্ট


ভারতের বিজেপি শাসিত আসামে বিতর্কিত ‘জাতীয় নাগরিক পঞ্জি’র (এনআরসি) প্রথম দফার খসড়া প্রকাশ হয়েছে। গতকাল (রোববার) দিবাগত রাত ১২ টায় ওই খসড়া প্রকাশ করেন ভারতের রেজিস্ট্রার জেনারেল শৈলেশ।

মধ্যরাতে প্রকাশিত ওই প্রথম খসড়ায় ১ কোটি ৯০ লাখ নাগরিকের নাম স্থান পেলেও এখনো ১ কোটি ৩৯ লাখ নাগরিকের নাম ওঠা বাকি রয়েছে। রাজ্যের ৩ কোটি ২৯ লাখ মানুষ এনআরসিতে নাম নথিভুক্ত করার আবেদন জানিয়েছিলেন। প্রথম খসড়ায় ২ কোটি ২৪ লাখ আবেদন নিষ্পত্তির লক্ষ্যমাত্রা নেয়া হলেও ভারতের রেজিস্ট্রার জেনারেল শৈলেশ বলেন, মধ্যরাতে প্রকাশিত প্রথম খসড়ায় ১ কোটি ৯০ লাখের নাম স্থান পেয়েছে। বাকি নাম পরে ঘোষণা হবে।

আসামের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়াল বলেন, এনআরসি’র প্রথম খসড়ায় নাম না থাকলেও পরবর্তী খসড়াগুলোতে প্রমাণপত্রের ভিত্তিতে নাম তোলা যাবে। তিনি অবশ্য এ নিয়ে গুজব ছাড়ানো সম্পর্কে সকলকে সতর্ক করে দিয়ে এ ব্যাপারে প্রশাসনের কঠোর দৃষ্টি রয়েছে বলে জানান।

আসামে এনআরসি খসড়া প্রকাশকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন এলাকায় চাপা উত্তেজনা থাকায় ৮৫ কোম্পানি অতিরিক্ত আধাসামরিক বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ছড়ানো বন্ধ করতে পুলিশের বিশেষ সেল কাজ করছে।

আসামে প্রথম দফায় এনআরসি খসড়া প্রকাশ সম্পর্কে আসাম রাজ্য জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের অতিরিক্ত সাধারণ সম্পাদক ও দ্বীনি তালিমি বোর্ডের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আব্দুল কাদির কাশেমি রেডিও তেহরানকে বলেন, “অসমে নাগরিক পঞ্জি যেটা বেরিয়েছে তা হল প্রথম ও আংশিক ঘোষণা। সংশ্লিষ্ট বিভাগের পক্ষ থেকে আগে বলা হয়েছিল অনেক লোকের নাম বাদ পড়বে কিন্তু পরবর্তীতে তাদের নাম উঠবে। সেই হিসেবে এনআরসি’র পরবর্তী যে তালিকা বের হবে তাতে অসম ও ভারতের প্রকৃত নাগরিক জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে সকলের নাম আসবে বলে আমরা আশাবাদী।”

তিনি বলেন, “রাজ্য ও কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে আসাম রাজ্য জমিয়তে উলামার দাবি, এনআরসি তৈরি ক্ষেত্রে যেসব নথি জমা হয়েছে তাতে যদি সামান্য ভুল থাকে, বিশেষ করে ভোটার তালিকায় নামের ভুল, বানানের ভুল থাকে, বয়সের তারতম্য থাকে সেগুলো দেখে যাতে প্রকৃত ভারতের নাগরিকের নাম বাদ না পড়ে সেদিকে দৃষ্টি দিতে হবে। কারণ, ভোটার তালিকায় যদি কোনো ভুল থাকে তাহলে কোনো ব্যক্তি সেজন্য দায়ী নন, বরং তালিকা যারা তৈরি করেছেন তাদের ভুল। সেজন্য অন্যের ভুলের জন্য যাতে কোনো নাগরিকের নাগরিকত্ব নষ্ট না হয় সেদিকে নজর দিতে হবে। আমরা সরকার ও এনআরসি কর্তৃপক্ষের কাছে আগেও আমরা এ নিয়ে দাবি জানিয়েছি। আমরা আশাবাদী আমাদের দাবিকে গুরুত্ব দিয়ে সেইমতো কাজ হবে।”

মাওলানা আব্দুল কাদির কাশেমি বলেন, “ভোটার তালিকায় যেসব নাগরিকের নামের পাশে ‘ডি’ বসানো হয়েছে তাদের নথি যাচাই করে তা অবিলম্বে সংশোধন করে ‘ডি’ সরিয়ে ফেলা হোক। এবং পরবর্তী এনআরসি তালিকায় যেন তাদের নাম থাকে।”

তিনি আরও বলেন, “নির্দিষ্ট সমস্ত প্রক্রিয়া পালন করার পরেও যদি আমাদের চোখে ধরা পড়ে উপযুক্ত নথি থাকা সত্ত্বেও কোনো ভারতীয়’র নাম এনআরসিতে ঢোকানো হয়নি তাহলে প্রয়োজনে আগের মতো আমরা আদালতের দ্বারস্থ হব।’

এর আগে নাগরিকত্ব ইস্যুতে পঞ্চায়েতের দেয়া প্রমাণপত্র হাইকোর্ট বাতিল করার রায় দিলে তারা এর বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে গিয়েছিলেন বলেও মাওলানা আব্দুল কাদির কাশেমি জানান।


পার্সটুডে