ইজতেমার প্রথম পর্বের আখেরি মোনাজাতে যা বললেন মাওলানা যোবায়ের

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | আমিন মুনশি


টঙ্গিতে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের আখেরি মোনাজাতে মুসলিম উম্মাহর ঐক্য ও শান্তি কামনা করেছেন কাকরাইলের মুরব্বি ও তাবলিগের শুরার সদস্য মাওলানা মুহাম্মাদ যোবায়ের।

সকাল ১০ টা ৪০মিনিটে মোনাজাত শুরু হয়ে শেষ হয় ১১ টা ১৫মিনিটে।

দীর্ঘ মোনাজাতে তিনি বলেন, হে আল্লাহ আপনি আমাদেরকে কবরের আজাব থেকে মুক্তি দিয়েন। হে আল্লাহ আমরা তওবা করছি। আমাদের সব গুনাহ থেকে তওবা করছি। হে আল্লাহ আমাদের সব কাজে কল্যাণ দান করেন। সব অকল্যাণ থেকে মুক্তি দিন। আপনার নবী যে উত্তম কিছু চেয়েছেন তা আমাদের দান করুন।

আমাদের গোনাহ মাফ করে দিন। আমাদের দিনের গোনাহ, রাতের গোনাহ, গোপনের গোনাহ, প্রকাশ্যে গোনাহ সব গোনাহ থেকে আমরা মাফ চাই। আপনি সবচেয়ে বড় ক্ষমাকারী। আমাদের ক্ষমা করুন। আমরা আমাদের গোনাহের স্বীকারোক্তি দিচ্ছি, আমাদের মাফ করুন। পুরো উম্মতকে মাফ করুন। আপনার হাবিবের পুরো উম্মাহকে মাফ করুন।

আপনার হাবিবের ইয়াতিম উম্মতকে মাফ করে দিন। আগামী জিন্দেগী সুন্দর করে দিন। ইমানের কামাল দান করুন। ইমানি গুনাবলি দান করুন। ইমানি জিন্দেগী দান করুন। ইমানের সাথে মৃত্যু দান করুন। বেইমানীর মৃত্য থেকে পানাহ চাই।

আপনার ইয়াকিন আমাদের মনে দিয়ে দেন। গায়েরের ইয়াকিন কে দিল থেকে বের করে দেন। এ দুনিয়ার ভয় ভীতি দূর করে দেন। মওতের পেরেশানি যেন না হয়। মওতের পরের জিন্দেগি বরকতপূর্ণ করে দেন । আমাদের জীবন সুন্নত দ্বারা ভরে দেন। সুন্নতের ওপর চলার তাওফিক দেন।

আপনার নবীর আখলাক আমাদের দিন। লিবাসে পোশাকে আজ গাইরের তরিকা আমাদের হয়ে গেছে। তা বের করে দেন। আপনার বন্দেগী করা। আপনার বন্ধু হিসেবে কবুল করুন। বন্দেগী ওয়ালী জিন্দেগী দান করুন। আপনার নাফরমানি পৃথিবী থেকে দূর করে দিন। ইলম শিখবার তাওফিক দিন।

যাদের কাছে ইলম আছে তাদের যেন সম্মান করতে পারি। জাহালত দূর করে দিন। জাহেলিয়াতের জিন্দেগী দূর করে দিন। আমরা দুনিয়াকে বুঝছি আখেরাত বুঝিনি।

আরশের ছায়াভুক্ত করুন। হাউজে কাউসারের পানি পান করান। বিনা হিসেবে জান্নাত দিন। যাদের বিনা হিসেবে জান্নাত দেবেন তাদের দলভুক্ত করুন। পুলসিরাত অনেক কঠিন।  পুলসিরাত আমাদের জন্য সহ করে দিন।

আমার স্মরণে আপনার জিকির চালু করে দিন। জিকিরের দারা আমাদের জবান তাজা করে দিন। এমন মৃত্যু আসে যেন আপনার জিকির সঙ্গে থাকে। উত্তম আখলাক হাছিল করার তওফি দিন। বদ খাসলত দূর করে দিন। চরিত্রহীনতা দূর করে দিন। আপনার পছন্দনীয় চরিত্র বানানোর তওফিক দিন।

আমাদের জান মালের হেফাজত করুন। ইমান আমাল হেফাজত করুন। মমতা বৃদ্ধি করে দিন। ঝগড়া খতম করে দিন। মহব্বত পয়দা করে দিন। সব মুসলমানকে এক শরীর বানিয়ে দিন। দিলের ভেতর মহব্বত তৈরি করে দিন। বিবাদ খতম করে দিন। নিরাপত্তার জীবন দান করুন। জান্নাতের জীবন দান করুন।

আপনাকে রাজি খুশি করা জীবনের মূল উদ্দেশ্য। আমাদের ওপর রাজি হয়ে যান। দীনের কাজে দুনিয়াকে উদ্দেশ্য বানানো থেকে দূরে রাখুন। লোক দেখানো জজবাকে খতম করে দিন। আামাদেরকে আপনার বানিয়ে নিন। আপনার দীনের জন্য মেহনত করার তাওফিক দিন।

আপনার হাবিবের আমানত- পুরো উম্মতকে এ কাজে মিলিয়ে দিন। এ কাজকে আপনি হেফাজত করুন। নবীর সুন্নতকে জিন্দা করে দিন। সব বাধা বিপত্তি দূর করে বাতিলের কালামকে নিচু করে দিন। হকের কালমাকে উচু করে দিন। বাতিলের আওয়াজ কে বন্ধ করে দিন। বাতিলকে ধ্বংস করে দিন।


শেষ পর্ব ১৯ জানুয়ারি

দ্বিতীয় পর্ব শুরু হবে আগামী ১৯ জানুয়ারি এবং ২১ জানুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হবে এবারের বিশ্ব ইজতেমা। এদিকে আজ রোববার প্রথম পর্বের আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে ভোরে সূর্য ওঠার আগেই ইজতেমা মাঠে দলে দলে আসতে থাকেন মুসল্লিরা।

শুক্রবার রাতে কাকরাইল মসজিদে তাবলিগ মুরুব্বিদের এক পরামর্শ সভা অনুয়ায়ী আগামি বিশ্ব ইজতেমা শুরু হবে ২০১৯ সালের ১১জানুয়ারি।


বিশ্ব ইজতেমা আগামী বছর শুরু হবে ১১ জানুয়ারি

আগামী বছর বিশ্ব ইজতেমা ১১ জানুয়ারি থেকে অনুষ্ঠিত হবে। শুক্রবার রাতে কাকরাইল মসজিদে তাবলিগ মুরুব্বিদের এক পরামর্শ সভায় ওই তারিখ নির্ধারণ করা হয়।

বিশ্ব ইজতেমার মুরুব্বি মো. গিয়াস উদ্দিন জানান, তাবলিগ জামাতের শীর্ষ মুরুব্বিদের সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামী বছর বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব ১১, ১২ ও ১৩ জানুয়ারি এবং চারদিন বিরতি দিয়ে দ্বিতীয় পর্ব ১৮, ১৯ ও ২০ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে।