ধর্মহীন শিক্ষানীতি বাতিলে যা কিছু প্রয়োজন তাই করা হবে| গোলটেবিল বৈঠকে ইসলামী নেতৃবৃন্দ

2016-05-14_195154বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস আয়োজিত গোলটেবিল বৈঠকে বিভিন্ন ইসলামী দলের নেতৃবৃন্দ ও উলামায়ে কেরাম বলেছেন, কুরআন ও সুন্নাহের শিক্ষাই প্রকৃত শিক্ষা। অথচ আমাদের ছেলে-মেয়েদের নীতি নৈতিকতা ধ্বংসের জন্য বর্তমান হিন্দুত্ববাদ ও নাস্তিক্যবাদ পাঠ্যসূচী প্রণয়ন করা হয়েছে। আর সেক্যুলার শিক্ষা আইন চালু করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহকে নাস্তিক্যবাদ ও হিন্দুত্ববাদের সিলেবাস অনুসরণে বাধ্য করার চক্রান্ত হচ্ছে।

সংখ্যাগরিষ্ট মুসলমানের এদেশে এ চক্রান্ত মেনে নেয়া যায় না। এ ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে যা প্রয়োজন তাই করা হবে। আগামী প্রজন্মকে বিপদগামী হওয়া থেকে রক্ষা করতে সেক্যুলার শিক্ষানীতি ও প্রস্তাবিত শিক্ষা আইন বাতিল করে দেশের আলেম-উলামা ও ইসলামী স্কলারদের সমন্বয়ে একটি পর্যালোচনা কমিটি গঠন করতে হবে। আমাদের নতুন প্রজন্মকে ধ্বংস করার সকল আয়োজন করা হবে আর ইসলাম প্রিয় তাওহিদী জনতা বসে থাকবে তা হবে না। আলেম উলামা ও ইসলামী জনতা ঐক্যবদ্ধ হয়ে এ চক্রান্ত প্রতিহত করবে।

আজ ১৪ই মে সকালে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের আয়োজনে শিক্ষাবিদ, রাজনীতিবিদ, আলেম-উলামাদের নিয়ে পুরানা পল্টনস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সেক্যুলার শিক্ষানীতি,শিক্ষা আইন হিন্দুত্ববাদী সিলেবাস পর্যালোচনা শীর্ষক এক গোলটেবিল বৈঠকে তারা এ কথা বলেন।

দলের সিনিয়র নায়েবে আমীর শায়খুল হাদীস মাওলানা ইসমাইল নুরপুরীর সভাপতিত্বে ও মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক ও যুগ্নমহাসচিব মাওলানা জালালুদ্দীন আহমদের সঞ্চালনায় গোলটেবিলে বৈঠকে আরো বক্তব্য রাখেন ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মাওলানা আব্দুল লতিফ নেজামী, ইসলামী ঐক্য আন্দোলনের আমীর ড. মাওলানা ঈসা শাহেদী, জামিআ মুহাম্মদিয়া মুহাম্মদপুর এর প্রিন্সিপাল মাওলানা আবুল কালাম, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের নায়েবে আমীর মাওলানা আফজালুর রহমান, নায়বে আমীর ও আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন মুফাসসিরে কোরআন মাওলানা খুরশিদ আলম কাসেমী, মাওলানা রেজাউল করীম জালালী, ইসলামী আন্দোলনের মহাসচিব মাওলানা ইউনুছ আহমদ, মুসলিম লীগ মহাসচিব কাজী আবুল খায়ের, বাংলাদেশ আইম্মাহ পরিষদের সভাপতি মাওলানা মহিউদ্দীন রব্বানী, ইসলামী আন্দোলন ঢাকা মহানগর সভাপতি অধ্যাপক এ টি এম হেমায়েত উদ্দীন, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা কোরবান আলী, বায়তুলমাল সম্পাদক মাওলানা আতাউল্লাহ আমীন, প্রশিক্ষণ সম্পাদক ড. মাওলানা জি এম মেহেরুল্লাহ, প্রচার প্রকাশনা ও অফিস সম্পাদক মাওলানা আজিজুর রহমান হেলাল, বায়তুল আমান মাদরাসার প্রিন্সিপাল মুফতী মাহমুদুর রহমান, বনানী জামিআ মুহাম্মদিয়ার ভাইস প্রিন্সিপাল মুফতী ওয়াজেদ আলী, মুফতী জুনাঈদ আহমদ, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের কেন্দ্রীয় সমাজকল্যাণ সম্পাদক মাওলানা মাহবুবুল হক, নির্বাহী সদস্য হাফেজ শহীদুর রহমান, ঢাকা মহানগর সাধারণ সম্পাদক মাওলানা এনামুল হক মূসা, ইসলামী ঐক্য আন্দোলনের ঢাকা মহানগর সাধারণ সম্পাদক ডা. এস এম সাখাওয়াত হোসাইন,ইসলামী ছাত্র মজলিসের কেন্দ্রীয় সভাপতি মুহাম্মদ হারুনুর রশীদ,সেক্রেটারী জেনারেল মুহাম্মদ আব্দুর রহীম সাঈদ,খেলাফত যুব মজলিসের কেন্দ্রীয় নেতা মুফতী মুহসিনুল হাসান প্রমূখ ।

সভাপতির বক্তব্যে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের সিনিয়র নায়েবে আমীর শায়খুল হাদীস মাওলানা ইসমাইল নুরপূরী বলেছেন, প্রস্তাবিত শিক্ষা আইনের ১১ নং ধারার ২ নং উপধারায় বলা হয়েছে ‘নিবন্ধন ব্যতিত কোনো অবস্থাতেই কোনো বেসরকারী বিদ্যালয় বা মাদরাসা স্থাপন করা যাইবে না।’ সেক্যুলার শিক্ষানীতি ও বির্তকিত শিক্ষা আইন হিন্দুত্ববাদী ও নাস্তিক্যবাদী পাঠ্যসূচি বাধ্যতামূলক করায় একমুখী শিক্ষা ব্যবস্থা চালুর উদ্যোগ নিলেই দেশের হাজার হাজার কওমী মাদরাসা বন্ধ করা হবে।

মাওলানা নেজামী বলেছেন, এদেশে সংখ্যাগরিষ্ট মানুষ মুসলমান হলেও শিক্ষা আইন করা হচ্ছে নাস্তিক ও হিন্দুদের ফর্মুলায়। পৃথিবীর কোথায়ও এর নজীর নেই। বর্তমান সিলেবাস শিক্ষানীতি ও শিক্ষা আইন কার্যকর হলে মাদরাসা গুলো সাধারণ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পরিণত হবে। সুতরাং আগামী প্রজন্মের চরিত্র রক্ষায় ঐক্যবদ্ধ দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

ড. ঈসা শাহেদী বলেন, একটি দেশ ও জাতিকে ধ্বংস করার জন্যই এ শিক্ষানীতি ও আইন গ্রহণ করা হয়েছে। ইংরেজী প্রতিষ্ঠানে ও.এ লেভেল তাদের নিয়ম মতে চলতে পারে, তাহলে মাদরাসা শিক্ষা ব্যবস্থাও সতন্ত্রভাবে চলতে হবে।

মাওলানা ইউনুছ আহমদ বলেছেন, বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর ভারতের প্রেসক্রিপশন অনুযায়ি সংবিধনে ধর্মনিরপেক্ষতা সংযোজন করার পর শিক্ষানীতি ও শিক্ষা আইন প্রণয়নের মাধ্যমে সিলেবাস সংশোধন করে আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মকে ধর্মহীন, নাস্তিক ও হিন্দুত্ববাদের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। সরকারের প্রশ্রয়ে হিন্দু ও নাস্তিক্যবাদী গোষ্ঠী সিলেবাস প্রণয়নের মাধ্যমে ভারতের ধর্মনিরপেক্ষতাকে প্রতিষ্ঠার জন্য উঠে পড়ে লেগেছে। আমাদের ভবিষ্যত কর্ণধার ছাত্র ও যুব সমাজের ঈমান ও আমলের হেফাজত করতে না পারলে তাদের মুসলমানিত্ব থাকবে না। বর্তমান শিক্ষা আইন বাতিলের দাবিতে রাজ পথে কঠিন প্রতিবাদ ও প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।

মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক বলেছেন, সিলেবাসে যে সমস্ত অবাঞ্চিত বিষয় সংযুক্ত করা হয়েছে তা ৯২ ভাগ মুসলমানের দেশে অপ্রয়োজনীয়। সেক্যুলার শিক্ষা ব্যবস্থা বাদ দিয়ে ৯২% মুসলিম অধ্যুষিত বাংলাদেশে শিক্ষার সকল স্তরে ইসলামী শিক্ষা বাধ্যতামূলক করতে হবে।
কাজী আবুল খায়ের বলেছেন, জাতিকে ধ্বংস করার জন্য দীর্ঘ পরিকল্পনা নিয়ে সরকার এগুচ্ছে। সেক্যুলার নীতি মুসলমান ধর্মের জন্য কোনো ভাবেই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না।