জিএসপি না ফেরালে টিকফা নয়: বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল

তোফায়েল আহমেদযুক্তরাষ্ট্রের বাজারে শুল্কমুক্ত সুবিধা (জিএসপি) সুবিধা ফিরিয়ে না দিলে দেশটির সঙ্গে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ ফোরাম চুক্তি (টিকফা) কখনোই কার্যকর হবে না বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

বুধবার দশম জাতীয় সংসদের নবম অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী এ কথা বলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘পোশাকশিল্পের উন্নয়নের জন্য আমাদের যা যা করণীয় আমরা তা তাই করেছি। কিন্তু পোশাক শিল্প নিয়ে যত সভা হয়। তাদের জিজ্ঞেস করলে তারা বলে, আরো করো। আমার আর কী করব তা খুঁজে পাচ্ছি না। আমরা এত কিছু করার পরও কেন তারা জিএসপি ফিরিয়ে দিচ্ছে না? বিষয়টি রাজনৈতিক।’

বাণিজ্যমন্ত্রী জানান, বর্তমানে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের ২৮টি দেশসহ মোট ৫২টি দেশে বাংলাদেশ উল্লেখযোগ্য সংখ্যক পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার সুবিধা পায়।

তোফায়েল জানান, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের ২৮টি দেশ, সার্কভুক্ত দেশগুলো, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, নরওয়ে, সুইজারল্যান্ড, জাপান, তুরস্ক, কানাডা, যুক্তরাষ্ট্র, চীন, দক্ষিণ কোরিয়া, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, চিলি, ভুটান, রাশিয়া, বেলারুশ ও কাজাখস্তানে পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার সুবিধা পায়।

মন্ত্রী বলেন, দেশীয় শিল্প সংরক্ষণ, উৎপাদনে উৎসাহ প্রদান, আমদানি ব্যবস্থা অধিকতর সহজীকরণ এবং শিল্পের কাঁচামাল সহজলভ্য করে আমদানি নীতি আদেশ প্রণীত হয়েছে। সরকারের নেওয়া পদক্ষেপের ফলে বাংলাদেশের আমদানি ও রপ্তানি ব্যবধান ক্রমান্বয়ে কমে আসছে।

আরেক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের বাণিজ্য ঘাটতি আট গুণ। তিনি আরো বলেন, ‘ভারত থেকে বাংলাদেশ গত পাঁচ মাসে মোট পণ্য আমদানি করেছে ১৭ হাজার ১৫২ কোটি টাকার। আর বাংলাদেশ রপ্তানি করেছে দুই হাজার ৭৪ কোটি টাকার।’

তোফায়েল বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে অন্যান্য দেশের বাণিজ্য ঘাতটি ৭৩ হাজার ৮৬ কোটি টাকা। বাণিজ্যিক সম্প্রসারণের লক্ষ্যে মোট ৪৮টি দেশের সঙ্গে চুক্তি হয়েছে। এর মধ্যে ৩৮টি দেশের দ্বিপক্ষীয় চুক্তি আছে। এ ছাড়া তিন দেশের সঙ্গে চুক্তি করা হলেও তার কার্যকারিতা নেই। এ ছাড়া আরো সাতটি দেশের সঙ্গে চলমান বাণিজ্যের পাশাপাশি সম্প্রসারণের চুক্তি রয়েছে।