‘মুসলিম নারীরা যুক্তরাজ্যে ধারাবাহিকভাবে বর্ণবাদী নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন’

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | ডেস্ক রিপোর্ট


মুসলিম নারীরা যুক্তরাজ্যের রাস্তায় ধারাবাহিকভাবে বর্ণবাদী নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন বলে মন্তব্য করেছেন লেবার পার্টির প্রধান জেরেমি করবিন। তিনি বলেন, ইসলামোফোবিয়া আমাদের সমাজে একটি বাস্তব সমস্যায় পরিনত হয়েছে।

উত্তর লন্ডনে অবস্থিত ফিনসবারি পার্ক মসজিদ পরিদর্শনকালে তিনি এই কথা বলেন। বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মধ্যে সেতুবন্ধন তৈরির জন্য মুসলিম কাউন্সিল অব ব্রিটেন (এমসিবি) এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

তিনি আরো বলেন, ‘ইসলামোফোবিয়া আমাদের সমাজে একটি বাস্তব সমস্যা। এটি আফ্রো-ক্যারিবীয় ঐতিহ্যের লোকদের বিরুদ্ধে জাতিবিদ্বেষ এবং বর্ণবাদের মতো এটিও বর্ণবাদের অন্য আরেকটি রূপ।’

তিনি বলেন, ‘আমি মুসলমান নারীদের সঙ্গে কয়েকটি মিটিং করেছি। তারা আমাকে আমাদের রাস্তায় নিয়মিতভাবে বর্ণবাদী নির্যাতনের ভয়াবহ বর্ণনা দিয়েছে। নারীরা যদি তাদের হিজাব পরার কারণে নির্যাতনের শিকার হয়, তবে তাদের বিরুদ্ধে ভুল করা হচ্ছে এবং এটা আমাদের সকলের বিরুদ্ধে ভুল।’

মুসলিম কাউন্সিল অব ব্রিটেন (এমসিবি) কর্তৃক আয়োজিত ‘ভিজিট মায় মসজিদ’ দিবসে অংশ নেওয়ার জন্য ফিনসবারি পার্ক মসজিদটিতে ২০০ জনেও বেশি মুসলিম প্রার্থনায় অংশ নেয়। ইসলাম সম্পর্কে কাল্পনিক ধারণা দূর করার একটি প্রচেষ্টা হিসেবে ইনভারনেস থেকে কর্নওয়াল পর্যন্ত সকল মসজিদে অন্য ধর্মের ও অবিশ্বাসী মানুষদেরকে আমন্ত্রণ জানানো হয়।

অনুষ্ঠানে বিভিন্ন ধর্মের লোকজন মুসলিম প্রার্থনায় সাক্ষী হন, ইসলাম নিয়ে বিভিন্ন প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করেন। এছাড়াও, কোরআন পড়া, হিজাব প্রদর্শন এবং ঐতিহ্যবাহী খাবারে আগত অতিথিরা অংশ নেন।

গত জুন মাসে সন্ত্রাসী হামলার পর ফিনসবারি পার্ক মসজিদ এবং নিকটবর্তী মুসলিম কল্যাণ কেন্দ্রের জন্য এটি প্রথম ‘ওপেন ডে’র আয়োজন করা হয়। ওই হামলায় ড্যারেন ওসবর্ন নামে এক ব্যক্তি এক দল মুসল্লির ওপর তার ভ্যান চালিয়ে দেন। এতে এক মুসল্লি নিহত হয় এবং ১২ জন আহত হয়।

ওই হামলার দায়ে চলতি মাসের শুরুতে ওসবার্নকে ৪৩ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। বিচারক তার রায়ে বলেন যে, ‘মুসলমানদের প্রতি ঘৃণার মতাদর্শ’ দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়ে ওসবার্ন ওই হামলা চালিয়ে।

মুসলিম কল্যাণ কেন্দ্রের ইমাম মোহাম্মদ মাহমুদ বলেন, ‘যদিও মুসলিম কল্যাণ কেন্দ্র ৩০ বছরেরও বেশি সময় ধরে ‘ওপেন ডে’র আয়োজন করে আসছে। তবুও দেশব্যাপী সমন্বয় সাধন করা গুরুত্বপূর্ণ কারণ বেশিরভাগ লোকের মধ্যেই মসজিদ নিয়ে একটি নেতিবাচক ধারণা রয়েছে।’

সম্প্রতি এমসিবি’র পক্ষ থেকে পরিচালিত গবেষণায় দেখা গেছে যে ৯০ শতাংশ ব্রিটিশরা কখনোই কোনো মসজিদ পরিদর্শন করেন নি এবং চারজনের মধ্যে একজন বলেছিলেন যে তারা কোনো মুসলমান সম্পর্কে জানত না।

দ্য গার্ডিয়ান