ওয়েবসাইটে যুক্ত করেও বাংলাদেশের কথা মুছে দিল জাতিসংঘ!

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | ডেস্ক রিপোর্ট


জাতিসংঘের ওয়েবসাইটে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস নিয়ে বাংলাদেশ সম্পর্কে লেখা

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস নিয়ে জাতিসংঘের ওয়েবসাইটে বাংলাদেশ ও ভাষা শহীদদের অবদানের কথা যোগ করা হলেও পরে তা মুছে ফেলা হয়েছে। তবে কেন এমনটি করা হলো সে বিষয়ে জাতিসংঘ এখনো কিছু জানায়নি।

১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতি লাভ করে একুশে ফেব্রুয়ারি। পরের বছর থেকে দিনটিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে সারা বিশ্বে পালন করা হচ্ছে।

১৮ বছর ধরে দিবসটি পালিত হলেও জাতিসংঘ ও ইউনেসকোর ওয়েবসাইটে দিবসটির পেছনের ইতিহাস এবং বাংলাদেশের ভাষা আন্দোলনের শহীদদের অবদান নিয়ে কোনো কথা উল্লেখ ছিল না।

এখন জাতিসংঘের ওয়েবে বাংলাদেশ নিয়ে লেখাটি দেখা যাচ্ছে না

বিষয়টি যাচাই করে জাতিসংঘকে ই-মেইলে জানান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের যোগাযোগ বৈকল্য বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শান্তা তাওহিদা। কয়েক দফা ই-মেইল করার পর এবং দিবসটির স্বীকৃতির পেছনে বাংলাদেশের যোগসূত্র সম্পর্কিত কিছু তথ্য দেয়ার পর ১৪ ফেব্রুয়ারি ই-মেইলেই শান্তা তাওহিদাকে জাতিসংঘের ওয়েব টিম জানায়, ওয়েব পাতায় কিছু তথ্য যোগ করা হয়েছে।

যোগ করা ওই তথ্যের বাংলা অনুবাদ করলে দাঁড়ায়, ‘২১ ফেব্রুয়ারি, এই তারিখটি বাংলাদেশের ভাষা আন্দোলন দিবসের সঙ্গে মিল রেখে নির্বাচন করা হয়েছিল। যেটি এই রেজ্যুলেশনের অন্যতম সহপৃষ্ঠপোষক। জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ ২০০২ সালের রেজ্যুলেশনে এই দিবসের ঘোষণাকে স্বাগত জানায়।’

এরপর গত মঙ্গলবার (জেনেভা সময়) জেনেভার রাষ্ট্রদূত ও স্থায়ী প্রতিনিধি মো. শামীম আহসান শান্তা তাওহিদাকে ই-মেইল করেন। এমন একটি উদ্যোগ নেয়ার জন্য শামীম আহসান বাংলাদেশ দূতাবাসের পক্ষ থেকে শান্তা তাওহিদাকে অভিনন্দন জানান। কিন্তু পরে হঠাৎ করেই জাতিসংঘের ওয়েবসাইটে বাংলাদেশ নামটি আর দেখা যাচ্ছে না।

এ বিষয়ে বর্তমানে জার্মানিতে থাকা শান্তা তাওহিদা জানান, এটি নিয়ে আমি জাতিসংঘের ওয়েব টিমকে আবার ই-মেইল করেছি। কিন্তু এখন পর্যন্ত তারা আমাকে কিছু জানায়নি। তবে আমারও প্রশ্ন, তারা বাংলাদেশের নাম যুক্ত করার পর কেন তা মুছে দিল।