মাজারপূজারীদের হামলায় মাদরাসা ছাত্র নিহত; দুই সিনিয়র আলেমের মন্তব্য

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | ওয়াছিক ইবনে হাফিজ


সিলেটের জৈন্তাপুরে ২৬ ফেব্রুয়ারি মাজারপূজারী আটরশী পীরের অনুসারিদের পরিচালিত মাহফিলে আয়োজকদের হামলায় সভাপতি হিসেবে আমন্ত্রিত মাওলানা আব্দুস সালাম এবং এক মাদ্রাসা শিক্ষার্থী নিহত ও অর্ধশতাধিক শীক্ষার্থী আহত হয় সংঘটিত ঘটনাকে কেন্দ্র করে চলছে আলোচনা-সমালোচনা। মাজারপূজারীরা কিসের ভিত্তিতে এমনটি করলো! কার উস্কানিতে বা কার পৃষ্ঠপোষকতায়! নাকি এর মাঝে লুকিয়ে আছে গভীত কোন ষড়যন্ত্রের ছক! আর এই প্রেক্ষাপট নিয়ে সিলেটের আলেমরাই বা কি ভাবছেন!

এবিষয় নিয়েই সিলেটের শীর্ষ দুই আলেমের সাথে কথা হয় ইনসাফ প্রতিনিধি ওয়াছিক ইবনে হাফিজের সাথে।

ইনসাফের পক্ষ থেকে প্রথমেই জানতে চাওয়া হয় সিলেটের ঐতিহ্যবাহী সোবহানীঘাট মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা শফিকুল ইসলাম আমকুনি’র কাছে।

তিনি বলেন, জৈন্তাপুরের ঘটনাটা বাংলাদেশের ইতিহাসের একটি মর্মান্তিক ঘটনা! যা ইতোপূর্বে কখনো ঘটেনি। ফতোয়া বিরোধী আন্দোলনে অনেকেই শহীদ হয়েছেন। অনেক জায়গায় বিভিন্ন কারণে অনেকেই শহীদ হয়েছেন। কিন্তু আমন্ত্রন করে আগে থেকে পরিকল্পনা করে এভাবে হত্যা করা একটা ন্যাক্কারজনক ঘটনা। বর্তমান প্রেক্ষাপটে আমাদের পক্ষ থেকে আসামী করে যাদের নামে মামলা করা হয়েছে, উক্ত এলাকায় এখন যারা রয়েছে, এবং যাদের ছত্রছায়ায় এ ঘটনা ঘটিয়েছে, তারা কেউই এলাকায় নেই।

তিনি জানান, জৈন্তাপুরের প্রতিদিনই বড়বড় সভা সমাবেশ হচ্ছে। গতকালও কোরআন-সুন্নাহ সংরক্ষণ কমিটির উদ্দোগে ০৩ তারিখেও আলহামদুলিল্লাহ বিশাল সমাবেশ হয়েছে।

তাঁর মতে, দেশের পরিস্থিতিকে অস্থিতিশীল করার জন্যই মুলত এমন করা হয়েছে।

সিলেটের আরেক কৃতি সন্তান প্রবীণ রাজনীতিবিদ বারিধারা মাদ্রাসার শায়খুল হাদীস মাওলানা ওবাইদুল্লাহ ফারুক বলেন, এ ঘটনা যেকোনো অবস্থায়ই হোক মারামারি একটা খারাপ কাজ। ওরা নিজেরাই উনাকে (মাওলানা আব্দুস সালাম) দাওয়াত করলো, ওরাই তাকে সভাপতি বানালো! ওরাই তাকে হত্যাকরার ষড়যন্ত্র করলো।

মাওলানা ফারুক বলেন, ‘তারা গতবছরেও এমন ঘটনা ঘটিয়েছে। তাকে দাওয়াত করে অপমান করেছে। এদের মুলত শিক্ষা-দিক্ষা বলতে কিছু নেই। এদের মধ্যে কোনো আলেমও নেই এবং তারা এখানের স্থানীয় কেউ নয়। ওদের ওয়াজের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে হক্কানী আলেমদেরকে গালি দেয়া, হুব্বে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম  নিয়ে সমালোচনা করা। রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মাটির তৈরি নাকি নুরের তৈরী এবিষয় নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়ানো।

এই প্রবীণ আলেম ও রাজনীতিবিদের মতে মাওলানা আব্দুস সালাম ও তাঁর সঙ্গীদের ঐ মাহফিলে দাওয়াত করে পুর্ব পরিকল্পিত ভাবে হত্যার ষড়যন্ত্র করে হামলাকারীরা।

মাওলানা ওবাইদুল্লাহ ফারুক বলেন, আমরা আশা করবো, কখনো যেনো এমন ধরনের আলোচনা কোনো মাহফিলে না হয় যার মধ্যে কোন উপকারী বয়ান না থাকে, যার মধ্যে উম্মতের ফায়দার পরিবর্তে ফিৎনার আশংকা থাকে । এমন ধরনের বক্তৃতা বন্ধ করা আবশ্যক।


Notice: Undefined index: email in /home/insaf24cp/public_html/wp-content/plugins/simple-social-share/simple-social-share.php on line 74