ফান্ড করে জৈন্তাপুরের ক্ষতিগ্রস্তদের সহযোগিতা করুন: আলেমদের উদ্দেশ্যে আল্লামা হবিগঞ্জী

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | এইচ. এম. হাফিজুর রহমান


গত ২৭ ফেব্রুয়ারি সিলেটের জৈন্তাপুরে একটি মাহফিলে বিনা উস্কানিতে আলেম সমাজের ওপর সশস্ত্র হামলা চালিয়েছে ভন্ড আটরশি পীরের অনুসারীরা। এ সময় পীরের একদল মুরিদদের হামলায় দারুল উলুম হরিপুরবাজার মাদরাসার একজন শিক্ষার্থী হত্যা ও অসংখ্য হতাহতের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনা নিয়ে সারা দেশে আলোচনা-সমালোচনা হচ্ছে বেশ। ঘটনার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রতিনিধি এইচ. এম. হাফিজুর রহমান কথা বলেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের নায়েবে আমীর ও হবিগঞ্জ উমেদনগর মাদরাসার মহা-পরিচালক প্রখ্যাত হাদিস বিশারদ শাইখুল হাদিস আল্লামা হাফেজ তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জীর সাথে।

জৈন্তাপুরের ঘটনাকে কিভাবে দেখছেন? জানতে চাইলে আল্লামা হবিগঞ্জী বলেন – একটা বিশৃঙ্খলা তৈরি করার জন্যই এ ঘটনার জন্ম দেয়া হয়েছে। শান্ত সিলেটে এমন ঘটনা অপ্রত্যাশিত। এটা ওদের উগ্রতার বহিঃপ্রকাশ।

এটা পূর্বপরিকল্পিত কোন হামলা ছিল কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে  আল্লামা হবিগঞ্জী আরো বলেন, ঘটনার বিশ্লেষণ করলে বুঝা যায় এটা পরিকল্পিত হামলা ছিল। তবে এখানে আমাদের লোকদেরও ভুল আছে। ওভাবে যাওয়া ঠিক হয়নি।

আলেম-উলামাদের অন্যতম একজন অভিভাবক হিসেবে বর্তমান পরিস্থিতিতে আলেমদের প্রতি দিক-নির্দেশনা সরূপ আল্লামা হবিগঞ্জী বলেন, অনেকেই অনেকভাবে চাইবে আমাদেরকে উগ্র প্রমাণিত করতে এবং বিভিন্ন ষড়যন্ত্রে আমাদের ফাঁসাতে। তাই আমাদের শান্তভাবে প্রতিবাদ করতে হবে। বিচার দেশের আইন করবে। প্রতিবাদ সমাবেশতো অনেক হয়েছে। আমাদের এখন উচিত একটা ফান্ড করে সম্মিলিতভাবে টাকা জমিয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্য করা। এতে তারা অনেক বেশি উপকৃত হবে। আমরা হবিগঞ্জে একটা ফান্ড করেছি সেখানেও যে যার সাধ্যমত সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিন। আমরা উশৃঙ্খল হইনি আর হবোও না আশাকরি। বিচার আইন করবে। প্রশাসন করবে বিচার সেটাই আশাকরি। তাছাড়া আমরা উগ্রভাবে প্রতিবাদ করলে উল্টো আমাদের ফাঁসিয়ে দেয়া হবে, তখন বিচার তো পাবোই না উল্টো আসামি হতে হবে আমাদেরই। সেটা বুঝতে হবে। তাই শান্ত থাকুন আর ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্য করুন।